সর্বশেষ আপডেট : ২১ মিনিট ৬০ সেকেন্ড আগে
শনিবার, ১৮ নভেম্বর, ২০১৭, খ্রীষ্টাব্দ | ৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৪ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

সুনামগঞ্জে ২ আইনজীবিসহ ৩ জনকে জেলহাজতে প্রেরণ

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি:: সুনামগঞ্জ জেলা জজ আদালতের হিসাব শাখা থেকে জালিয়াতির মাধ্যমে অগ্রক্রয় মামলার প্রায় ২০ লাখ টাকা হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগে দুই আইনজীবি ও আদালতের এক হিসাব রক্ষককে থানা পুলিশে সোপর্দ করেছেন স্বয়ং বিচারক। জেলা ও দায়রা জজ মোঃ শহীদুল আলম ঝিনুক এর নির্দেশে জালিয়াতির ঘটনায় তাদেরকে সুনামগঞ্জ সদর মডেল থানা পুলিশের কাছে সোপর্দ করা হয়।

রোববার বিকেল ৪টার দিকে আদালত এলাকা থেকে তাদেরকে গ্রেফতার দেখিয়ে নিয়ে যাওয়া হয় থানা হাজতে। জেলা ও দায়রা জজ আদালতের প্রশাসনিক কর্মকর্তা মোঃ খুরশেদ আলম এ তথ্য নিশ্চিত করেন। অভিনব কায়দায় জালিয়াতি প্রতারনার এমন ঘটনায় আদালত এলাকায় তোলপাড় সৃষ্টি হয়েছে। আটককৃতরা হলেন শহরের তেঘরিয়া নিবাসী ডাঃ আমিরুল ইসলামের পুত্র ও যুবলীগ নেতা এডভোকেট মাজহারুল ইসলাম, সদর উপজেলার কুরবাননগর ইউনিয়নের ধারারগাঁও নিবাসী সাবেক সচিব মৃত আজিজুর রহমানের পুত্র রেজাউল করিম ও সংশ্লিষ্ট আদালতের হিসাবরক্ষক ঘেনু চন্দ্র রায়।

এ ব্যাপারে মামলার সংশ্লিষ্ট নায়েব-নাজির শিফাত শাহরিয়ার বাদী হয়ে সুনামগঞ্জ থানায় একটি প্রতারনার মামলা দায়ের করেছেন। রোববার রাতে সুনামগঞ্জ সদর মডেল থানায় আটককৃতদেরকে দফায় দফায় জিজ্ঞাসাবাদ করে পুলিশ। আদালত সুত্র জানায়,আদালতে বিচারাধীন একটি অগ্রক্রয় মামলা নিস্পত্তির পর মামলার সংশ্লিষ্ট আইনজীবি এডভোকেট আলী আহমদ মোয়াক্কেলের জামানতকৃত টাকা উত্তোলনের জন্য আদালতে আবেদন করেন। দাপ্তরিক আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন হওয়ার পর অর্থ পরিশোধের জন্য আবেদনটি হিসাব শাখায় পাঠানোর পর দেখা যায় অগ্রক্রয়ের মামলাটি বিচারাধীন থাকাবস্থায় আইনজীবি মাজহারুল ইসলাম হিসাব শাখায় পেমেন্ট অর্ডার দাখিল করে অগ্রক্রয়ের ৪ লাখ ২০ হাজার টাকা উত্তোলন করে নিয়ে গেছেন। বিষয়টি জানাজানির পর এমন জালিয়াতির আরও ৫টি মামলার অনুরুপ জালিয়াতির ঘটনা কর্তৃপক্ষের নজরে পড়ে। এর মধ্যে ৫টি মামলার টাকা মাজহারুল ইসলাম ও একটি মামলার টাকা আত্মসাতের সাথে রেজাউল করিম জড়িত রয়েছেন। জেলা হিসাবরক্ষন অফিস জানায়,মাজহারুল ইসলাম ৫টি অগ্রক্রয় মামলায় নিজ ব্যাংক হিসাবে জমা দিয়ে প্রায় সাড়ে ১৭ লাখ টাকা উত্তোলন করেছেন। আরেকটি বিবিধ অগ্রক্রয় মামলার ২ লাখ ৩১ হাজার টাকা একই কায়দায় উত্তোলন করেছেন রেজাউল করিম।

জালিয়াতির মাধ্যমে টাকা উত্তোলনের বিষয়টি অবগত হবার পর সুনামগঞ্জ সদর আদালতের সিনিয়র সহকারী জজ মোহাম্মদ জালাল উদ্দিন টাকা উত্তোলনকারী দুই আইনজীবি ও হিসাব রক্ষক ঘেনু চন্দ্র রায়কে ব্যাখ্যা প্রদানের জন্য বুধবার কারন দর্শানো নোটিশ প্রদান করেন। তাদের কাছ থেকে সন্তোষজনক জবাব না পাওয়ায় রোববার জেলা জজের নির্দেশে তাদেরকে পুলিশ আটক করেছে। সুনামগঞ্জ জেলা আইনজীবি সমিতির সভাপতি এডভোকেট সৈয়দ শায়েখ আহমদ বলেন,অপরাধের সঙ্গে যেই জড়িত থাকুকনা কেন তাদের বিচার হওয়া উচিত। অগ্রক্রয় মামলার অর্থ আত্মসাতের বিষয়ে যে দুই আইনজীবির বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠেছে আমরা এর বিচার হউক সেটা চাই।

এ ব্যাপারে জেলা আইনজীবি সমিতি আদালতকে সহযোগীতা করবে। সুনামগঞ্জ সদর মডেল থানার ওসি মোঃ শহীদুল্লাহ বলেন,জালিয়াতির ঘটনায় দুই আইনজীবিসহ ৩ জনকে আমরা সংশ্লিষ্ট আদালতের নাজিরের দায়েরকৃত প্রতারনার মামলায় গ্রেফতার করে সোমবার বিকেলে তাদেরকে আদালতে প্রেরন করেছি। এ ঘটনায় আরো কেউ জড়িত আছে কিনা সেটাও আমরা তদন্ত করছি। সদর মডেল থানা ওসি (নিরস্ত্র) আতিকুর রহমান মামলাটি তদন্ত করবেন বলে জানিয়েছেন ওসি শহীদুল্লাহ। এদিকে সোমবার বিকেলে গ্রেফতারকৃতদেরকে আমল গ্রহনকারী জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে হাজির করা হলে চীপ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট তাদেরকে জেলহাজতে প্রেরনের নির্দেশ দেন বলে জানান,জেলা আইনজীবি সমিতির সাধারন সম্পাদক এডভোকেট আব্দুল হক।

 

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭, ০১৭১৭ ৬৮ ১২ ১৪ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: