সর্বশেষ আপডেট : ৩ মিনিট ৪৯ সেকেন্ড আগে
শুক্রবার, ২০ অক্টোবর, ২০১৭, খ্রীষ্টাব্দ | ৫ কার্তিক ১৪২৪ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

চার সপ্তাহের মধ্যে ট্যানারির কাজ শেষ করতে হাইকোর্টের নির্দেশ

নিউজ ডেস্ক:: আগামী চার সপ্তাহের মধ্যে সাভারের ট্যানারি পল্লীতে কেন্দ্রীয় বর্জ্য শোধনাগারসহ (সিইটিপি) সর্বশেষ অবকাঠামো নির্মাণ কাজ শেষ করতে নির্দেশ দিয়েছেন হাইর্কোর্ট। একই সঙ্গে কঠিন বর্জ্য যাতে তরলের সঙ্গে মিশ্রিত না হয়, সে বিষয়ে প্রয়োজনীয় মনিটরিংয়ের ব্যবস্থারও নির্দেশ দিয়েছেন আদালত। ১২ নভেম্বরের মধ্যে আদালতে এ সংক্রান্ত প্রতিবেদন জমা দিতে বলা হয়েছে।

পরিবেশ আইনবিদ সমিতির (বেলা) করা এক আবেদনের শুনানি নিয়ে বৃহস্পতিবার হাইকোর্টের বিচারপতি সৈয়দ রেফাত আহমেদ ও বিচারপতি মো. সেলিমের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ এ আদেশ দেন।

আদালতে আবেদনের পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী অ্যাডভোকেট সৈয়দা রিজওয়ানা হাসান। শিল্প মন্ত্রণালয়ের পক্ষে ছিলেন আইনজীবী অ্যাডভোকেট রইস উদ্দিন এবং রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল কাজী জিনাত হক।

সৈয়দা রিজওয়ানা হাসান বলেন, হাজারী বাগের দূষণ যেন সাভারে না হয়, সে জন্য আদালতে আসা। এ বিষয়ে আদালতের আদেশে বলা হয়েছে, সিইটিপি ৪ নভেম্বর পর্যন্ত প্রতিদিন প্রতি ঘণ্টায় মনিটর করে ১২ নভেম্বরের মধ্যে প্রতিবেদন জমা দিবে । এছাড়া, তরলে কঠিন বর্জ্য যেন মিলিয়ে না যায়, সেজন্য প্রত্যেক কারখানার পাইপে বায়োস্ক্রিন লাগানোর নির্দেশ দিয়েছেন।

আইনজীবী রইস উদ্দিন বলেন, শিল্প মন্ত্রণালয় ও বিসিকের পক্ষে বেশ কিছু প্রতিবেদন আদালতে জমা দেয়া হয়েছে। এরপর আদালত পরিবেশ সম্মতভাবে কাজ চালাতে নির্দেশ দিয়েছেন। প্রাথমিকভাবে বর্জ্য পরিশোধন করতে প্রত্যেক কারখানায় বার বসাতে হবে। অসম্পন্ন কাজ চার সপ্তাহের মধ্যে সম্পন্ন করতে নির্দেশ দিয়েছেন আদালত।

তিনি আরও বলেন, বর্জ্য শোধনাগারের মনিটরিং প্রতিবেদন আদালতে দাখিল করতে বলেছেন।

এর আগে চলতি বছরের জুলাইয়ে বুড়িগঙ্গার মত ধলেশ্বরী নদীর দূষণ ঠেকাতে সাভারের ট্যানারি পল্লীর বর্জ্য পরিশোধন ব্যবস্থার বিষয়ে নির্দেশনা চেয়ে হাইকোর্টে আবেদন করে বেলা।
আবেদনে সাভারের ট্যানারি পল্লীর পরিবেশ দূষণ নিয়ন্ত্রণকারী কার্যক্রম (ক্যান্সার সৃষ্টিকারি রাসায়নিক) রিকোভারি ইউনিট, লবণাক্ত দূষণ প্রতিরোধক এবং কঠিন বর্জ্য পরিশোধকের সর্বশেষ অবস্থা জানতে চাওয়া হয়।

এক রিট আবেদনের প্রেক্ষিতে ২০০১ সালে ট্যানারি শিল্প হাজারীবাগ থেকে সরিয়ে নিতে নির্দেশ দিয়েছিলেন হাইকোর্ট। তবে দীর্ঘদিন ধরে ওই আদেশ বাস্তবায়িত না হওয়ায় অন্য এক আবেদনের প্রেক্ষিতে ২০১০ সালের ২৪ ফেব্রুয়ারির মধ্যে হাজারীবাগের ট্যানারি শিল্প অন্যত্র সরিয়ে নিতে ২০০৯ সালের ২৩ জুন ফের নির্দেশ দেন হাইকোর্ট।

সরকার পক্ষের আবেদনের প্রেক্ষিতে পরে ওই সময়সীমা কয়েক দফা বাড়িয়ে ২০১১ সালের ৩০ এপ্রিল পর্যন্ত করা হয়। কিন্তু এ সময়ের মধ্যেও স্থানান্তর না হওয়ায় আদালত অবমাননার মামলা করেন পরিবেশবাদী সংগঠন হিউম্যান রাইটস অ্যান্ড পিস ফর বাংলাদেশ।

এরপর কয়কে দফা আদেশের পর ওই আবেদনের শুনানি নিয়ে হাজারীবাগের সব ট্যানারির ইউটিলিটি সংযোগ বিচ্ছিন্ন করা হয়।

 

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭, ০১৭১৭ ৬৮ ১২ ১৪ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: