সর্বশেষ আপডেট : ১৩ মিনিট ১৯ সেকেন্ড আগে
সোমবার, ১৮ ডিসেম্বর, ২০১৭, খ্রীষ্টাব্দ | ৪ পৌষ ১৪২৪ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

কচ্ছপের চোখের জলে প্রজাপতির জীবন

লাইফস্টাইল ডেস্ক:: ‘প্রজাপতি প্রজাপতি কোথায় পেলে ভাই  এমন রঙিন পাখা।’ প্রজাপতির কথা উঠলেই আমাদের চোখে ভাসে ফুলে ফুলে উড়ে বেড়ানো একদল সুদৃশ্য পতঙ্গের ছবি। তারা বাঁচে মূলত ফুলের মধু খেয়ে। তবে ফুলের রেণু, গাছ থেকে নিঃসৃত বিভিন্ন ধরনের রস, পাকা ফলের রস, পঁচা মাংস, মাটি ও বালুতে দ্রবণীয় তরল আকারের খনিজ পদার্থ খাবার হিসেবে গ্রহণ করে প্রজাপতি। কিন্তু পৃথিবীতে এমন কিছু প্রজাপতি আছে যারা মধু বা এসব খাবার খায় না। তারা দল বেঁধে ফুলবাগানে ঘুরেও বেড়ায় না। তারা উড়ে বেড়ায় জলাশয়ের ধারে। আর তারা কি খায় জানেন? তারা খায় কচ্ছপের চোখের জল। এদের কান্না খেয়েই বেঁচে থাকে পেরুর বর্নিল প্রজাপতির দল। এটা কিন্তু কোনো রূপকথার গল্প নয়। একদম সত্যি ঘটনা!

স্বাভাবিকভাবেই প্রশ্ন উঠতে পারে এত কিছু থাকতে এই পতঙ্গগুলো কচ্ছপের চোখের জল খায় কেন? আসলে মানুষের মত কচ্ছপের চোখের জলেও থাকে লবন। এজন্যই তো এদের কান্না এতটা প্রিয় এসব প্রজাপতিদের। আর আমাদের এই আশ্চর্য তথ্যটি জানিয়েছেন গবেষক অ্যারন পোমারেন্টজ। বছর দেড়েক আগে পেরুর তোম্বোপাতা জঙ্গলে ঘুরে বেড়ানোর সময় তিনি এ বিচিত্র প্রজাতির দেখা পান।

এখন প্রশ্ন হচ্ছে প্রজাপতিরা তো নদী বা বৃষ্টির জল-ও খেতে পারে। এসব জলেও তো লবন থাকে। তা না করে তারা শুধু কচ্ছপের চোখের জল কেন খায়?

এর উত্তর জানতে হলে আমাদের আগে পেরুর ভুপ্রকৃতি আর জলবায়ু সম্পর্কে ওয়াকিবহাল হতে হবে। পেরুর দক্ষিণ পূর্বাঞ্চলীয় এলাকাটি আসলেই দারুণ। প্রশান্ত মহাসাগরের উপকূল সংলগ্ন তোম্বোপাতা জঙ্গলটি হচ্ছে রেইনফরেস্ট। ফলে এখানে প্রচুর বৃষ্টিপাত হয় যা থেকে এই জঙ্গলের জন্ম। মহাসাগরের জলকনা থেকে জলীয় বাষ্প নিয়ে জমে মেঘ। একসময় বৃষ্টি হয়ে তা ঝড়ে পড়ে ওই জঙ্গলে। তবে এ অঞ্চলের অবিরাম বর্ষণের উৎস কিন্তু প্রশান্ত মহাসগর নয়।

গবেষক পোমারেন্টজ জানান, তোম্বাপাতা জঙ্গলের বৃষ্টিপাতের উৎস আটলান্টিক মহাসাগর। এখানকার জলীয় বাষ্প সমৃদ্ধ মেঘরাশি ব্রাজিলসহ গোটা দক্ষিণ আমেরিকা ঘুরে সবশেষে আসে পেরুর ওই অঞ্চলটিতে। কিন্তু অতখানি ঘুরাঘুরির পর যে বর্ষণ হয় তাতে খনিজ পদার্থের পরিমাণ যায় কমে। আর বৃষ্টির প্রধান উপাদান সোডিয়াম বা লবন তো বলতে গেলে থাকেই না।

তাই এই বৃষ্টি বা নদীর জল ওই অঞ্চলের লবনখেকো প্রজাপতিদের কোনো কাজে আসে না। কিন্তু প্রাণিদেহের সুস্থতার জন্য লবন অতি প্রয়োজনীয় একটি উপাদান। আর এজন্যই পেরুর প্রজাপতিরা বিকল্প পথে লবনের চাহিদা পূরণ কও থাকে। প্রজাপতিদের কচ্ছপের চোখের জল পান করার এটাই হচ্ছে আসল রহস্য।

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭, ০১৭১৭ ৬৮ ১২ ১৪ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: