সর্বশেষ আপডেট : ৩৪ মিনিট ৫০ সেকেন্ড আগে
সোমবার, ২৩ অক্টোবর, ২০১৭, খ্রীষ্টাব্দ | ৮ কার্তিক ১৪২৪ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

শফিককে হারিয়ে চাপে বাংলাদেশ

খেলাধুলা ডেস্ক ::
শুরুতেই দুই ওপেনার ইমরুল কায়েস এবং লিটন দাসের বিদায়ে ব্যাকফুটে চলে যায় বাংলাদেশ। সেখান থেকে শুরুর ধাক্কা সামলিয়ে ভালো প্রতিরোধ গড়ার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছিলো মুশফিক-মুমিনুল। কিন্তু হঠাৎ করেই মাহারাজের ডেলিভারিতে মুশফিকের ব্যাট-প্যাডের স্পর্শ থেকে তালুবন্দী করেন মার্কর‍্যাম। দলকে খাঁদের কিনারায় রেখে মুশফিক ফেরে ব্যক্তিগত ৪৪ রানে।

এই প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত ৩ উইকেট হারিয়ে টাইগারদের সংগ্রহ ১১০ রান। ক্রিজে আছেন মুমিনুল হক ও তামিম ইকবাল।

মরকেলের ফুলার লেন্থের বল ব্যাটের কোনায় লেগে প্রথম স্লিপে হাশিম আমলার তালুবন্দী হন লিটন দাশ। অহেতুক আগ বাড়ানো শটে ফেরার আগে নিজের ঝুলিতে মাত্র ২৫ রান যোগ করতে পেরেছিলেন এই টেস্টে ১৪৬ ওভার উইকেটকিপিং করা ওপেনার লিটন দাশ।

এর আগে ৪৯৬ রানের বড় স্কোর মাথায় রেখে প্রথম ইনিংসে ব্যাট করতে নেমেছিলেন ইমরুল কায়েস ও লিটন দাশ। শুরুতে সাবধানী খেললেও প্রোটিয়া পেসারদের হঠাৎ উঠে আসা বাউন্সারে ভোগান্তি পোহাতে হয়েছে বাংলাদেশি ব্যাটসম্যানের। ইনিংসের ষষ্ঠ ওভারে রাবাদার ধেয়ে আসা বাউন্সার সামলাতে পারেনি ইমরুল। ফলাফল, মার্কর‍্যামের হাতে তালুবন্দী হয়ে ব্যক্তিগত মাত্র ৭ রান করেই দলকে বিপদে ফেলে সাজঘরে ফিরেছেন ইমরুল কায়েস।

চা পানের বিরতিতে যাওয়ার আগেই প্রথম ইনিংস ঘোষণা করেছে দক্ষিণ আফ্রিকা। ৩ উইকেটে ৪৯৬ রানে থেমে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন অধিনায়ক ফাফ ডু প্লেসিস। ততক্ষণে ফাফ ডু প্লেসিস ব্যাট করছিলেন ২৬ রানে আর বাভুমা ৩১ রানে।

এর আগে দ্বিতীয় দিনের দ্বিতীয় সেশনে দ্বিশতক থেকে ১ রান দূরে থাকা প্রোটিয়া ওপেনার ডিন এলগার ফিরলেন ১৯৯ রানে। দক্ষিণ আফ্রিকার ইনিংসের ১৩১ তম ওভারে মুস্তাফিজের অফ স্ট্যাম্পের বাইরের শর্ট বলটি পুল করতে চেয়েছিলেন এলগার। কিন্তু শর্ট বাউন্সে সেটি সামলাতে না পারায় মিড উইকেটে মুমিনুলের হাতে তালুবন্দী হয়ে ফিরতে হলো ক্যারিয়ারের সেরা পারফরম্যান্স করা এলগারকে। তবে একটি আক্ষেপ থেকে গেল প্রোটিয়া এই ওপেনারের। আর ১ রান করতে পারলেই পেয়ে যেতেন ক্যারিয়ারের প্রথম দ্বিশতক। টেস্ট ইতিহাসে এই নিয়ে ১২বার ১৯৯ রানে আউট হলেন কোনো ব্যাটসম্যান। তবে দক্ষিণ আফ্রিকার হয়ে এটি এই প্রথম! তবে এলগার যা করেছেন সেটিও কম কিসে, বাংলাদেশকে রানের পাহাড়ে পিষ্ট করতে এলগারের ভূমিকাই তো সবচেয়ে বেশি।

এর আগে প্রোটিয়া ইনিংসের ১১৮তম ওভারে শফিউল ইসলামের অফ স্ট্যাম্পের বাইরের বল বাতাসে উড়িয়ে মেরেছিলেন ২৭তম সেঞ্চুরীয়ান হাশিম আমলা। সেটিকেই তালুবন্দী করে টাইগারদের দ্বিতীয় উইকেটের আনন্দে ভাসালেন মেহেদী হাসান মিরাজ।

হাশিম আমলার উইকেটটি নিয়ে টেস্ট ক্রিকেট ইতিহাসের ৭০০০০তম উইকেটটি নিলেন বাংলাদেশের শফিউল ইসলাম।

এর আগে উইকেটের আদ্রতা থেকে বাড়তি সুবিধা পাওয়ার আশায় টস জিতেও ফিল্ডিং নেওয়ার সিদ্ধান্তে প্রশ্নবিদ্ধ টাইগার অধিনায়ক মুশফিক। যে আশা নিয়ে প্রথমদিন বোলিং নিয়েছিল বাংলাদেশ, তার ছিটেফোটাও দেখা যায় নি বাংলাদেশের বোলিংয়ে। ধারহীন বোলিংয়ে সফলভাবে প্রথমদিন শেষ করার পর দ্বিতীয়দিনেও চলেছে প্রথমদিনের ধারা।

এলগারের দেড়শো ও আমলার টেস্ট ক্যারিয়ারের ২৭তম সেঞ্চুরির সুবাদে ৪০০ পেরিয়েছে প্রোটিয়াদের স্কোর। সময় যত যাচ্ছে দক্ষিণ আফ্রিকার স্কোরকার্ড ততই ভারী হয়েছে। এর আগে হতাশার প্রথমদিন কাটিয়ে নতুন আশা নিয়ে শুরু করেছিল বাংলাদেশ। তবে বাংলাদেশের ধারহীন বোলিংয়ে দুর্দশায় কাটছে টাইগারদের প্রথম সেশন।

আগের দিন একটি রান আউট ছাড়া বলার মত কোন প্রাপ্তি নেই বাংলাদেশের। অন্যদিকে ডিন এলগারের সেঞ্চুরী ও হাশিম আমলার অর্ধশতকে দারূন একটি দিন কেটেছে স্বাগতিকদের। মাত্র এক উইকেট হারিয়ে প্রথম দিনশেষে দক্ষিণ আফ্রিকার সংগ্রহ ছিল ২৯৮।

এর আগে পচেফস্ট্রুমে শুরুতে টস জিতে ফিল্ডিং নেওয়ার সিদ্ধান্ত নেয় বাংলাদেশ। যদিও টস জেতার সুবিধা কাজে লাগাতে পারেনি। দুই ওপেনার এলগার ও মারক্রামের ১৯৬ রানের জুটিতেই দাপট দেখায় দক্ষিণ আফ্রিকা।

২০০২ সালের পর এই সেনওয়ে পার্কের আজ দ্বিতীয় টেস্ট। ১৫ বছর আগে এ ভেন্যুর একমাত্র টেস্টে খেলেছিল দক্ষিণ আফ্রিকা-বাংলাদেশ।

দক্ষিণ আফ্রিকা এই টেস্ট সিরিজের নাম রেখেছে ‘সানফয়েল টেস্ট’। প্রথম টেস্টে চোটের কারণে দলে নেই টাইগারদের টেস্ট ওপেনার সৌম্য সরকার।

বাংলাদেশের টেস্ট দলে ফিরেছেন মাহমুদউল্লাহ। মুশফিকুর রহিমের বদলে উইকেটরক্ষক লিটন দাস। তাসকিন আহমেদ, শফিউল ইসলাম ও মোস্তাফিজুর রহমান আছেন বাংলাদেশের পেস আক্রমণে। একমাত্র স্পিনার হিসেবে আছেন মেহেদী হাসান মিরাজ।

এদিকে দক্ষিণ আফ্রিকার হয়ে টেস্টে অভিষেক হয়েছে এইডেন মারক্রাম ও অ্যান্ডিল ফেলুকোয়াইয়ো।

বাংলাদেশ একাদশ:

তামিম ইকবাল, ইমরুল কায়েস, মুমিনুল হক, মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ, মুশফিকুর রহীম, লিটন দাস, মেহেদী হাসান মিরাজ, সাব্বির রহমান, তাসকিন আহমেদ, মোস্তাফিজুর রহমান, শফিউল ইসলাম।

দক্ষিণ আফ্রিকা একাদশ:

ডিন এলগার, এইডেন মার্করাম, হাশিম আমলা, টেম্বা বাভুমা, ফাফ ডু প্লেসিস, কুইন্টন ডি কক, আন্দেলো ফেহলুকাও, কেশভ মহারাজ, কাগিসো রাবাদা, মরনে মরকেল, ডুয়ান অলিভার।

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭, ০১৭১৭ ৬৮ ১২ ১৪ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: