সর্বশেষ আপডেট : ১ ঘন্টা আগে
রবিবার, ১৭ ডিসেম্বর, ২০১৭, খ্রীষ্টাব্দ | ৩ পৌষ ১৪২৪ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

পুলিশ সূপার বরাবরে অভিযোগ : ছাতকে হত্যা মামলার আসামিদের বাড়িঘর ভাংচুর ও লুঠপাট

বিশেষ প্রতিনিধি (ছাতক) ::
ছাতকে একটি হত্যা মামলার আসামিদের বাড়িঘর ভাংচুর, লুঠপাটসহ তাদেরকে গ্রাম ছাড়া করেছে মামলার বাদি পক্ষের লোকজন। গত ২১আগষ্ট সুনামগঞ্জ পুলিশ সূপার বরাবরে নোয়ারাই ইউপির মির্জাপুর গ্রামের মৃত মুক্তিযোদ্ধা তোতা মিয়ার স্ত্রী কালাবি বেগম এ অভিযোগ করেন।

গত ১৮আগষ্ট একই গ্রামের লিয়াকত আলীর বাড়ির রাস্তায় তার নেতৃত্বে কবির উদ্দিন, আনকার মিয়া, নূরুল আমিন, সুনা মিয়া, আরজদ আলী, আইনুল, ওয়ারিছ আলী, জহিরুল হক, নূরুল হক (ফকির), ছমির আলী, আল আমিন, রুপতার আলীসহ ১৩ব্যক্তি তার উপর সন্ত্রাসী হামলা করেছে বলে অভিযোগে উল্লেখ করা হয়।

জানা যায়, ২০১৬সালের ২৭এপ্রিল তার আত্মীয় প্রতিবেশি রমজান আলীর বাড়ির পাশের পতিত জমিতে সালিশ বৈঠকে রমজান আলী ও লিয়াকত আলীর পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষে ওয়ারিছ আলীর পুত্র জসিম উদ্দিন নিহত হয়। এঘটনায় নিহতের পিতা বাদি হয়ে একটি মামলা (নং জিআর ১০০/২০১৬ইং) দায়ের করেন। এসংঘর্ষের ঘটনায় কালাবি ওরফে বতনী বাদি হয়ে প্রতিপক্ষ ওয়ারিছ আলীসহ ২৭জনের বিরুদ্ধে থানায় ভাংচুর ও লুঠপাটের মামলা (নং জিআর ১১৮/২০১৬ইং) দায়ের করেন। পরে থানায় প্রভাব খাটিয়ে ৭জনের নাম বাদ দিয়ে ২০জনের নামে চার্জশীট দেয়া হয়।

এদিকে ওয়ারিছ আলীর মামলায় তাদের পক্ষের অনেকে পলাতক ও হাজতে থাকায় লিয়াকত আলীসহ তার সযোগিরা বেপরোয়া হয়ে আসামিদের যাবতিয় সম্পদে হরিলুঠ শুরু করে। তারা রমজান আলী, ইদন আলী, ইদ্রিছ আলী, মদরিছ আলী, নিজাম, মাইন উদ্দিনসহ অন্যান্যদের পাকা ও কাঁচা বসতঘর ভাংচুর, ধান, চাল, দরজা, জানালা, মালামাল, গাছপালা, টিউবওয়েল, চালের টিনসহ যাবতিয় মামলামাল লুঠ ও বসত ঘর ভেঙ্গে সম্পূর্ণ ব্যবহার অনুপযোগি করে তোলা হয়।

এছাড়া ইদন আলী ১৪মাস কারাভোগের পর বেরিয়ে বাড়ি যাবার পথে লক্ষীবাউর বাজারে পৌছলে লিয়াকত আলীর নেতৃত্বে তার উপর সন্ত্রাসী হামলা করলে ৭জনের বিরুদ্ধে থানায় একটি মামলা (নং নন এফআইআর ১০১/২০১৭ইং দঃবিঃ ৩২৩/৫০৬) দায়ের করেন। এদিকে পুলিশ সূপারের কাছে দেয়া আবেদনে গত ১৮সেপ্টেম্বর এসআই রাজেন্দ্র দাস ঘটনাস্থল সরেজমিন তদন্ত করেছেন।

এখনও লিয়াকত আলীসহ তার সহযোগিদের ভয়ে অসংখ্য পরিবার বাড়ি ছেড়ে অন্যত্র বসবাস করছেন। তাদের মালিকানা কৃষি ভূমি ও বসতবাড়ি এখন সন্ত্রাসী লিয়াকতসহ অন্যান্যরা ভোগ করছে। তারা এখন গ্রামে একচ্ছত্র আধিপত্য বিস্তার করে রেখেছে। ফলে মুক্তিযোদ্ধার স্ত্রী কালাবি বেগম সন্তান ও আত্মীয়-স্বজনদের নিয়ে চরম নিরাপত্তাহীনতায় ভূগছেন। এব্যাপারে এসআই রাজেন্দ্র দাস ফোনে তথ্য দিতে অপারগতা প্রকাশ করে রাতে থানায় চা- খাওয়ার দাওয়াত দিয়ে ফোন কেটে দেন।

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭, ০১৭১৭ ৬৮ ১২ ১৪ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: