সর্বশেষ আপডেট : ৪ মিনিট ২৫ সেকেন্ড আগে
মঙ্গলবার, ১৭ অক্টোবর, ২০১৭, খ্রীষ্টাব্দ | ২ কার্তিক ১৪২৪ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

৬০ বছরে ক্যাম্প ন্যু

স্পোর্টস ডেস্ক:: ১৯৫৭ সালের ২৪ সেপ্টেম্বর আনুষ্ঠানিকভাবে যাত্রা শুরু করেছিল বিশ্বের অন্যতম সেরা ক্লাব বার্সেলোনার স্টেডিয়াম ক্যাম্প ন্যু। স্টেডিয়ামের উদ্বোধনী প্রীতি খেলায় লেজিয়া ওয়ারসওকে ৪-২ গোলে হারিয়েছিল বার্সেলোনা। গতকাল (রোববার) ছিল ক্লাবটির ৬০তম বছরে পদার্পণ। এ উপলক্ষ্যে ক্লাবটির অফিশিয়াল ওয়েবসাইটে বেশ কিছু ফিচার প্রকাশ করা হয়। টুইটারের মাধ্যমে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন ক্লাবটির বর্তমান ও সাবেক খেলোয়াড়রা।

বার্সেলোনার ঘরের মাঠ হিসেবে ব্যবহৃত এ স্টেডিয়ামের দর্শক ধারণ ক্ষমতা ৯৯ হাজার ৩৫৪। এটি ইউরোপের বৃহত্তম এবং বিশ্বের ত্রয়োদশ বৃহত্তম স্টেডিয়াম। এই স্টেডিয়ামে অসংখ্য আন্তর্জাতিক খেলা অনুষ্ঠিত হয়েছে। যার মধ্য রয়েছে দুইটি চ্যাম্পিয়ন্স লিগের ফাইনাল। এ ছাড়া ১৯৯২ গ্রীষ্মকালীন অলিম্পিকের ফুটবলও এই স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত হয়।

ক্যাম্প ন্যু-এর নির্মাণ কাজ শুরু হয় ১৯৫৪ সালের ২৮ মার্চ। পরিকল্পনা অনুযায়ী এস্তাদি দেল এফসি বার্সেলোনা নাম দেয়ার কথা থাকলেও অধিক জনপ্রিয় ক্যাম্প ন্যু নামই ব্যবহার করা হয়। ১৯৫০ সালে বার্সেলোনা চুক্তি করে কুবালার সাথে, যাকে বার্সেলোনার ইতিহাসে অন্যতম সেরা খেলোয়াড় বলা হয়। তিনি একটি বড় স্টেডিয়াম নির্মাণের জন্য প্রেরণা প্রদান করেন।

camp-(2)

বার্সেলোনার গভর্নর ফিলাইপ একিডো কলুঙ্গা এর ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন করেন। সে সময় প্রায় ৬০ হাজার বার্সা সমর্থক সেখানে উপস্থিত ছিলেন। নির্মাণ কাজ সম্পন্ন হতে সময় লাগে তিন বছর এবং মোট ব্যয় হয় ২২৮ মিলিয়ন স্পেনীয় পেসেতা। যা ছিল মূল বাজেটের ৩৩৬ শতাংশ।

১৯৮২ সালের ১২ মে স্টেডিয়ামে প্রথম গুরুত্বপূর্ণ খেলা অনুষ্ঠিত হয়। উইনার্স কাপের ফাইনালে মুখোমুখি হয় বার্সেলোনা এবং স্ট্যান্ডার্ড লিগে। প্রায় ৮০ হাজার দর্শকের সামনে ২-১ ব্যবধানে জয় পায় বার্সেলোনা।

camp-(2)

১৯৮২ সালে ক্যাম্প ন্যু বিশ্বকাপে ব্যবহৃত স্টেডিয়ামগুলোর মধ্যে অন্যতম। ১৩ জুন এই স্টেডিয়ামে বিশ্বকাপের উদ্বোধনী অনুষ্ঠান আয়োজিত হয়। অনুষ্ঠানের পর বিশ্বকাপের প্রথম খেলায় মুখোমুখি হয় ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়ন আর্জেন্টিনা এবং বেলজিয়াম। খেলায় বেলজিয়াম ১-০ ব্যবধানে জয় পায়।

বিভিন্ন সময়ে স্টেডিয়ামের ধারণক্ষমতা ব্যপকভাবে ভিন্নতা পেয়েছে। উদ্বোধনের সময় এর ধারণক্ষমতা ১ লক্ষ ৬ হজার ১৪৬ থাকলেও ১৯৮২ বিশ্বকাপের পূর্বে তা সম্প্রসারণ করা হয়, যার ধারণক্ষমতা দাঁড়ায় ১ লক্ষ ২১ হাজার ৭৪৯।

বার্সেলোনা ছাড়াও কাম্প ন্যু কাতালান জাতীয় দলের মাঠ হিসেবেও ব্যবহৃত হয়েছে। কাম্প ন্যুতে তাদের সর্বশেষ খেলা ছিল আর্জেন্টিনার বিপক্ষে। ২০০৯ সালের ২২ ডিসেম্বর, ওই প্রীতি খেলায় কাতালোনিয়া ৪-২ ব্যবধানে জয় লাভ করে।

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭, ০১৭১৭ ৬৮ ১২ ১৪ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: