সর্বশেষ আপডেট : ১১ মিনিট ২৮ সেকেন্ড আগে
শুক্রবার, ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৭, খ্রীষ্টাব্দ | ১ পৌষ ১৪২৪ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

দিল্লীতে বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত ব্রিটিশ ‘জঙ্গি’ আটক

আন্তর্জাতিক ডেস্ক:: ভারতের দিল্লীতে বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত এক ব্রিটিশ যুবককে আল কায়েদা জঙ্গি সন্দেহে গ্রেফতার করা হয়েছে। দিল্লী পুলিশ জানিয়েছে, শামিউর রহমান ওরফে সুমন হক নামে লন্ডনের একটি সচ্ছল পরিবারের এই যুবককে জেরা করে তারা জেনেছে, সে আগে সিরিয়াতে আল নূসরা ফ্রন্টের হয়ে লড়েছে এবং ২০১৪ সালে জঙ্গি কার্যকলাপের জন্য সে বাংলাদেশেও গ্রেফতার হয়েছিল। জামিন পেয়ে ভারতে পালিয়ে আসার পর তিনি ভারতে রোহিঙ্গাদের জঙ্গি রিক্রুট হিসেবে নিয়োগ করার চেষ্টা চালাচ্ছিল।
২৭ বছর বয়সী শামিউর রহমানকে দিল্লি পুলিশের স্পেশাল সেল রবিবার সন্ধ্যায় আটক করে রাজধানীর পূর্বপ্রান্তে শক্করপুর বাসস্ট্যান্ড থেকে। পুলিশ বলছে, তার কাছ থেকে একটি কার্তুজসহ ৯ মিলিমিটার পিস্তল, ল্যাপটপ, বাংলাদেশি সিমকার্ডসহ মোবাইল ফোন আর বেশকয়েক হাজার মার্কিন ডলার আর ভারত ও বাংলাদেশের টাকা উদ্ধার করা হয়েছে। টানা চব্বিশ ঘণ্টা ধরে ওই যুবককে জিজ্ঞাসাবাদ করার পর দিল্লি পুলিশ জানায়, সে একজন আল কায়েদা জঙ্গি এবং ভারতে নতুন সদস্য রিক্রুট করা আর জঙ্গি ঘাঁটি তৈরি করার লক্ষ্য নিয়েই সে এদেশে এসেছিল।
ডেপুটি কমিশনার (স্পেশাল সেল) প্রমোদ কুশওয়াহা জানান, প্রথমে তার কাছ থেকে বিহারের কিষেণগঞ্জের একটি ভোটার কার্ড মেলে যাতে তার নাম লেখা ছিল সুমন হক। কিন্তু পরে আমরা জানতে পারি তার আসল নাম শামিউর রহমান। ইংল্যান্ডে জন্মগ্রহণকারী সে একজন বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত ব্রিটিশ নাগরিক। আল নূসরা ফ্রন্টের হয়ে সে সিরিয়াতে যুদ্ধ করেছে, আর ২০১৪ সালে বাংলাদেশের চট্টগ্রামে জঙ্গি কার্যকলাপ চালানোর অভিযোগে দুইজন সঙ্গীসহ সে গ্রেফতার হয়। এ বছরের এপ্রিলে জামিন পাওয়ার পর তাকে ভারত পাঠানো হয়। এদেশে মিজোরাম, মণিপুরের মতো রাজ্যে রোহিঙ্গা মুসলিম যুবকদের নিয়ে জঙ্গি ঘাঁটি তৈরি করে তাদের মিয়ানমারে লড়াই করতে পাঠানোই ছিল তার ম্যান্ডেট।
শামিউর রহমানকে জেরা করে দিল্লি পুলিশ বলছে, লন্ডনে তার পরিবারের অনেকেই ব্যাংকিং খাতে উঁচু পদে কর্মরত। তবে সে নিজে কলেজের গণ্ডি পেরোয়নি। পুলিশ জানায়, বেপরোয়া ড্রাইভিংয়ের জন্য ব্রিটেনে জেলে যেতে হয়েছিল তাকে, সেখানেই জনৈক আল কায়দা জঙ্গি তাকে উদ্বুদ্ধ করে। পরে আল কায়েদায় যোগ দিয়ে সে অস্ত্র প্রশিক্ষণ নেয়, সিরিয়াতে প্রেসিডেন্ট আসাদের বাহিনীর বিরুদ্ধে দীর্ঘদিন যুদ্ধ করে এবং এরপর তাকে পাঠানো হয় ভারতীয় উপমহাদেশে নির্দিষ্ট দায়িত্ব দিয়ে।
দিল্লি পুলিশের কর্মকর্তারা আরও জানান, ধৃত শামিউর রহমান বাংলাদেশে যখন প্রথম গ্রেফতার হয়, তার আগেই সে ডজন-খানেকেরও বেশি লোককে জঙ্গিবাদের পথে টেনে এনেছিল বলে দাবি করেছে। প্রমোদ কুশওয়াহা বলেন, এই ব্যক্তির যা প্রোফাইল, নিজে তিন মাস সব রকম অস্ত্র চালনা ও বিস্ফোরক ব্যবহারের প্রশিক্ষণ নিয়েছে, সিরিয়াতে গিয়ে যুদ্ধ করেছে এবং বাংলাদেশ-ভারতেও জঙ্গি তৎপরতা চালাচ্ছে তাতে আমরা তাকে বড় ‘ক্যাচ’ হিসেবেই মনে করছি।
পুলিশ আরো বলেছে, গত কয়েক মাস ভারতে থাকাকালে শামিউর রহমান পশ্চিমবঙ্গে ও বাংলাদেশেও তার কন্টাক্টদের সঙ্গে নিয়মিত যোগাযোগ রেখে চলেছিল। তার ব্যাপারে বিস্তারিত জানতে দিল্লিতে ব্রিটিশ ও বাংলাদেশের হাইকমিশনের সঙ্গেও তারা যোগাযোগ করছেন। দ্য হিন্দু।
নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭, ০১৭১৭ ৬৮ ১২ ১৪ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: