সর্বশেষ আপডেট : ২৪ মিনিট ৩ সেকেন্ড আগে
শুক্রবার, ২০ অক্টোবর, ২০১৭, খ্রীষ্টাব্দ | ৫ কার্তিক ১৪২৪ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

এখন সিডির দোকান চোখেই পড়ে না: কুমার বিশ্বজিৎ

1505709045বিনোদন ডেস্ক:: সঙ্গীতশিল্পী কুমার বিশ্বজিৎ। অসংখ্য জনপ্রিয় গানের নন্দিত শিল্পী তিনি। এখনও গান করছেন নিয়মিত। কিছুদিন আগেও তার নতুন গান প্রকাশিত হয়েছে। এছাড়া আগামী ২১ সেপ্টেম্বর তিনি শো করতে যাচ্ছেন আমেরিকায়। এসব বিষয়সহ সঙ্গীতাঙ্গনের নানাদিক নিয়ে তিনি কথা বললেন ।

কেমন আছেন?

ভালো আছি।

আপনার বর্তমান ব্যস্ততা প্রসঙ্গে বলুন—

বর্তমানে বিভিন্ন শো নিয়ে ব্যস্ত সময় পার করছি। কিছুদিন আগে দুটো গান প্রকাশিত হয়। গানগুলোর মিউজিক ভিডিও নির্মিত হয়েছে। তার মধ্যে একটি প্রকাশিত হয়েছে ধ্রুব মিউজিক স্টেশন থেকে। এছাড়া আমি, সাবিনা ইয়াসমিন ও রুনা লায়লা আপা ২১ তারিখে আমেরিকা যাবো। সেখানে শো করবো। সব মিলিয়ে ভালোই ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছি।

আপনার পুরোনো গানগুলোর শ্রোতা এখনও আছে। পাশাপাশি বর্তমানে যে গানগুলো করছেন সেগুলোতে কেমন গ্রহণযোগ্যতা পাচ্ছেন?

সাম্প্রতিক সময়ে আমার যে গানগুলো বের হয়েছে সেগুলোর মাধ্যমেও তো আমি বেশ সাড়া পাচ্ছি। এগুলোও তো মানুষের মুখে মুখে। আমি মানুষের জন্য গান করি। মানুষকে ভালোবেসে গান করি। তারা আমাকে সেই ভালোবাসার মর্যাদা দিচ্ছে। দর্শকদের কাছে আমি কৃতজ্ঞ, আমার গানগুলো গ্রহণ করার জন্য।

বর্তমান অডিও বাজার মিউজিক ভিডিওর ওপর নির্ভরশীল হয়ে উঠেছে। এখন বাজারে সিডি পাওয়া যায় না বললেই চলে। এর কারণ কি এবং বিষয়টি কতটুকু মঙ্গলজনক?

দিন পাল্টেছে। এখন সবকিছুতেই একটা ওয়ার্ল্ড ওয়াইড চিন্তা-ভাবনা চলে এসেছে। মিউজিক ভিডিও একটি গানকে বিশ্বব্যাপী পরিচিতি দিতে পারে। এই যুগে এসে যদি ইউটিউব বা অনলাইন নির্ভর না হই তাহলে আমরা তো পিছিয়ে পড়বো। একটি মিউজিক ভিডিও যদি ইউটিউবে দেওয়া হয় তখন যে কেউ যেকোনো মুহূর্তে সেটি শুনতে পারে। মুহূর্তের মধ্যেই ছড়িয়ে পড়ে লাখ লাখ মানুষের কাছে। কিন্তু অন্য ক্ষেত্রে সেটি সম্ভব নয়। যার ফলে ইউটিউব এবং মিউজিক ভিডিও হচ্ছে আমাদের সময়ের দাবি। এই মাধ্যমগুলোতে যে বেশি পিছিয়ে পড়বে তার জনপ্রিয়তা ততোটাই কমবে।

এক সময়ের অডিও বাজার বেশ রমরমা ছিল। এখন তেমনটা নেই। এ প্রসঙ্গে কী বলবেন?

আগে মানুষ সিডি কিনতো। সিডির অনেক দোকান ছিল। কিন্তু এখন তো সিডি দোকান চোখেই পড়ে না। এর কারণ হচ্ছে মানুষ এখন সবকিছু ঘরে বসেই পাচ্ছে। এখনও অডিও বাজার রমরমা। ইউটিউবে গানগুলো লাখ লাখ ভিউ হচ্ছে। এর মানে মানুষ গান শুনছে, শুধু বাজারের ধরনটাই পাল্টেছে।

অভিনয়শিল্পীদের নানা সংগঠন আছে। কিন্তু সঙ্গীতশিল্পীদের নিয়ে কোনো সংগঠনই নেই। যদিও এর আগে অনেকবার চেষ্টা করেও ব্যর্থ। এ প্রসঙ্গে কী বলবেন?

সঙ্গীতশিল্পীদের সংগঠন জীবনেও হবে না, কারণ আমাদের সঙ্গীতশিল্পীদের মধ্যে ঐক্যজোটের অভাব। বলা যায়, কেউ চায় না যে আরেকজন নেতৃত্ব দিক। মানে নিজেও নেতৃত্ব দিতে চায় না, আরেকজনকেও দিতে দেবে না। সবাই সবার মতো করে ব্যস্ত। একটি নাটক করতে যেমন অনেক আর্টিস্টের প্রয়োজন হয়, একটি গান করতে কিন্তু সেটার কোনো প্রয়োজন হয় না। সবাই যে যার মতো কাজ করতে পারে। তাই কেউ সংগঠন করতে চায় না। কিন্তু উদ্যোগ নিলেও কেউ এগিয়ে আসতে চায় না।

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭, ০১৭১৭ ৬৮ ১২ ১৪ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: