সর্বশেষ আপডেট : ১৯ মিনিট ২৩ সেকেন্ড আগে
বুধবার, ১৮ অক্টোবর, ২০১৭, খ্রীষ্টাব্দ | ৩ কার্তিক ১৪২৪ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

কোম্পানীগঞ্জের পরিবেশ ধ্বংসকারীদের কোন ছাড় নয়

21534574_268909460269328_1875836326_o-600x442কোম্পানীগঞ্জ সংবাদদাতা:: পরিবেশ ধ্বংসকারীদের একবিন্দুও ছাড় দেয়া হবে না বলে সাফ জানিয়ে দিয়েছেন স্থানীয় সরকার বিভাগ সিলেট-এর উপ-পরিচালক (উপ-সচিব) দেবজিৎ সিংহ। তিনি এও বলেন, ‘অবৈধ মেশিন যেখানেই থাকুক, সেটা অবৈধ। সিন্দুকের ভেতর রাখা হলেও সেটা অবৈধ। কাজেই অবৈধ এই যন্ত্র যেখানে মিলবে সেখানেই হবে অভিযান।’

বৃহস্পতিবার সিলেটের কোম্পানীগঞ্জে এক মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে উপজেলা পরিষদ সভাকক্ষে পাথর কোয়ারীর আইন শৃঙ্খলা বিষয়ক এ মতবিনিময় সভার আয়োজন করা হয়।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মুহাম্মদ আবুল লাইছ এর সভাপতিত্বে সভায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন সিলেটের অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট(এডিএম) আবু সাফায়াত মুহাম্মদ শাহেদুল ইসলাম,কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা চেয়ারম্যান মোঃ আব্দুল বাছির, পরিবেশ অধিদপ্তর সিলেটের সহকারী পরিচালক পারভেজ আহমদ, বাংলাদেশ পরিবেশ আইনবিদ সমিতির (বেলা) সিলেট বিভাগীয় কমিটির সমন্বয়ক এডভোকেট শাহ সাহেদা।

মতবিনিময় সভায় মতামত ব্যক্ত করে বক্তব্য রাখেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মোঃ আলী আমজদ, সাধারণ সম্পাদক আফতাব আলী কালা মিয়া, উপজেলা বিএনপির সভাপতি হাজী মোঃ সাহাব উদ্দিন, উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের কমান্ডার ও স্টোন ক্রাশার মিল মালিক সমিতির সভাপতি ডাক্তার মোঃ আব্দুন নুর, ইসলামপুর পশ্চিম ইউপি চেয়ারম্যান শাহ মোহাম্মদ জামাল উদ্দিন, পূর্ব ইসলামপুর ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ বাবুল মিয়া, উত্তর রনিখাই ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ ফরিদ উদ্দিন, উপজেলা আওয়ামী যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হুমায়ুন কবির মছব্বির, সাংগঠনিক সম্পাদক মোঃ ইয়াকুব আলী, কোম্পানীগঞ্জ থানার ওসি (তদন্ত) দিলীপ নাথ, কোম্পানীগঞ্জ প্রেসক্লাবের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আবিদুর রহমান, বিজিবির পক্ষে ইন্সপেক্টর সহিদ, রেলওয়ে নিরাপত্তা বাহিনীর (আরএনবি) পক্ষে চীফ ইন্সপেক্টর সিরাজুল ইসলাম, উপজেলা যুবলীগের যুগ্ম আহবায়ক আব্দুর রহমান, কোম্পানীগঞ্জ মানবাধিকার কমিশনের সভাপতি হাবিবুল্লাহ জাবেদ, কোম্পানীগঞ্জ পাথর উত্তোলন ও বহনকারী ট্রেড ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক রিয়াজ উদ্দিন। এছাড়াও মতবিনিময় সভায় উপজেলার বিভিন্ন রাজনৈতিক, সামাজিক ব্যক্তিবর্গ, জনপ্রতিনিধি, সাংবাদিক ও শ্রমিক নেতাসহ বিভিন্ন পর্যায়ের লোকজন উপস্থিত ছিলেন।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে দেবজিৎ সিংহ আরো বলেন, পরিবেশ ধ্বংস করে কোনোভাবেই যেন পাথর উত্তোলন করা না হয়, এ ব্যাপারে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের নির্দেশনা রয়েছে। এ ব্যাপারে সরকার প্রধান জিরো টলারেন্স নীতি অবলম্বন করেছেন। তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা কার্যকর করতে জেলা প্রশাসন থেকে একটি কমিটি করে দেয়া হয়েছে। এ কমিটি ভোলাগঞ্জসহ পাথর কোয়ারীগুলোর সার্বিক পরিস্থিতি মনিটরিং করছে। এ বিষয়ে তিনি সকল মহলের সহযোগিতা কামনা করে বলেন, জনস্বার্থ ও পরিবেশ রক্ষায় আমাদের সহযোগিতা করুন। আপনাদের সকল ভাল কাজে জেলা প্রশাসন সহযোগিতা করে যাবে।

তিনি বলেন, পাথর তোলার যন্ত্র আর পানি সেচের যন্ত্র কিন্তু এক নয়। কাজেই আইনবিরোধী কাজে কাউকে উৎসাহ দেবেন না। নির্বাচিত জনপ্রতিধিরা আইন ও রাষ্ট্রবিরোধী কোনো কথাবার্তা বলতে পারেন না। কারণ তারাও রাষ্ট্রের অংশ। কাজেই কথাবার্তায় সতর্কতা অবলম্বন করতে হবে। তিনি বলেন, কেবল কোনো বাহিনী কিংবা প্রশাসনের পক্ষে বোমা মেশিন সম্পূর্ণরূপে বন্ধ করা সম্ভব নয়। এজন্য এলাকার সকল মহলের সহযোগিতা প্রয়োজন।

তিনি কোম্পানীগঞ্জ একটি অপার সম্ভাবনাময় এলাকা উল্লেখ করে বলেন, কোম্পানীগঞ্জ হতে পারে সিলেটের অন্যতম একটি পর্যটন কেন্দ্র। এজন্য সকল সম্ভাবনাকে কাজে লাগাতে হবে। এই এলাকার যোগাযোগ ব্যবস্থা ও হাইটেক পার্কের নির্মাণ কাজ সম্পন্ন হলে পুরো উপজেলার চিত্র পাল্টে যাবে। হাইটেক পার্কের মাধ্যমে এখানকার লোকজনই সবচেয়ে বেশি সুফল ভোগ করবে। তিনি বলেন, পরিবেশ ও সুন্দরের যেন কোনোপ্রকার ক্ষতি না হয় সেদিকে লক্ষ্য রেখে ধলাই নদীর জিরো লাইন এলাকার নাব্যতা আনতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

আবু সাফায়াত মুহাম্মদ শাহেদুল ইসলাম তার বক্তব্যে বলেন, প্রকৃতির সাথে বিরূপ আচরণ করলে প্রকৃতিও তার প্রতিশোধ নেয়। আদালত কিন্তু পাথর তুলতে নিষেধ করেনি। কিন্তু, সোনার ডিম পাড়া হাঁসের মত এলাকাটা ধ্বংস করবেন না।

সিলেট অঞ্চল ভূমিকম্পপ্রবণ এলাকা উল্লেখ করে তিনি বলে, অপরিকল্পিত উপায়ে যন্ত্রের সাহায্যে পাথর উত্তোলনের কারণে ভূগর্ভের মাটির স্তরে বাড়তি চাপ তৈরি হচ্ছে। তাতে ভয়াবহ ভূমিকম্পের সম্ভাবণা তৈরি হচ্ছে। যেকোনো সময় প্রকৃতি তার প্রতিশোধ নেবে। এখানে পর্যটনের অপার সম্ভাবনা রয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, এই সম্ভাবনাগুলো নষ্ট করবেন না। পরিবেশ রক্ষায় বোমা মেশিনের ব্যবহার বন্ধ করতে হবে। কারা মেশিন চালাচ্ছে, আর কারা সহযোগিতা করছে তাদের ব্যাপারে তথ্য দিয়ে সহযোগিতা করুন। কাউকে ছাড় দেয়া হবে না। দেশ ও জনস্বার্থে জীবনের ঝুঁকি নিতে আমরা পিছপা হব না। প্রয়োজনে রাত তিনটায় অভিযান পরিচালনা করা হবে।

মতবিনিময় সভার শুরুতে ভোলাগঞ্জ, শাহ আরফিন টিলা ও উৎমা কোয়ারীর উপর নির্মিত একটি স্থিরচিত্র প্রদর্শন ও সেটির উপর আলোচনা করেন ইউএনও মুহাম্মদ আবুল লাইছ।

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭, ০১৭১৭ ৬৮ ১২ ১৪ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: