সর্বশেষ আপডেট : ৮ মিনিট ১৮ সেকেন্ড আগে
শুক্রবার, ২০ অক্টোবর, ২০১৭, খ্রীষ্টাব্দ | ৫ কার্তিক ১৪২৪ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

১৮৯১ সালের ১৩ আগস্ট: মণিপুরী ইতিহাসের এক করুণ কাহিনি

Untitled-4 copyএ কে শেরাম:: ১৩ আগস্ট, মণিপুরীদের জাতীয় শোক দিবস। শোক ও দুঃখের, বিষাদিত বেদনার এই ঘটনা সম্পর্কে জানতে আমাদেরকে উল্টাতে হবে ইতিহাসের কিছু ধূসর পাতা।

১৮৯১ সালের ২২ মার্চ। স্বাধীন মণিপুর রাজ্যের রাজাদের ভ্রাতৃকলহের সুযোগে মণিপুরের অভ্যন্তরীন বিষয়ে অন্যায় হস্তক্ষেপের উদ্দেশে আসামের চীফ কমিশনার কুইন্টন বিশাল এক বাহিনী নিয়ে মণিপুরে প্রবেশ করে। কিন্তু কৌশলে মণিপুরের জাতীয় বীর যুবরাজ টিকেন্দ্রজিৎকে বন্দী করার প্রয়াস ব্যর্থ হলে ২৪ মার্চের প্রত্যুষে আকস্মিক আক্রমণ চালায় রাজপ্রাসাদে; নির্বিচারে গুলি চালিয়ে নারী শিশু নির্বিশেষে হত্যা করে অনেককে, মন্দির ভেঙে দেবমূর্তি ধ্বংস করে, লাঞ্ছিত করে নারীদের। আকস্মিক আক্রমণের হতভম্বতা কাটিয়ে দ্রুত প্রতিরোধ গড়ে তোলে মণিপুরী সৈন্যরা। পরাস্ত হয় ব্রিটিশ বাহিনী; ব্যর্থ আলোচনাশেষে বেরিয়ে যাবার পথে বিক্ষুব্ধ জনতার হাতে নিহত হয় চীফ কমিশনার কুইন্টন সহ ৫ উর্ধতন ব্রিটিশ কর্মকর্তা। দোর্দণ্ডপ্রতাপশালী ব্রিটিশ সাম্রাজ্য কেঁপে ওঠে সেই ঘটনায়। প্রতিশোধস্পৃহায় উন্মত্ত ব্রিটিশ সরকার দ্রুত বিশাল তিন বাহিনী নিয়ে আক্রমণ করে ক্ষুদ্র রাজ্য মণিপুরকে।

২৩ এপ্রিল তারিখে রাজধানী ইম্ফাল থেকে ৩২ কি.মি. দক্ষিণে খোংজোম নদীর তীরে সংঘটিত হয় তীব্রতম যুদ্ধ। অস্ত্র, কৌশল ও সৈন্যবলের কাছে পরাজিত হয় মণিপুরী বাহিনী। কিন্তু তাদের সাহসিকতা ও দেশপ্রেম প্রশংসিত হয়, এমনকি শত্রুর কাছেও। খোংজোম যুদ্ধের বীর মেজর পাউনা ব্রজবাসী দেশের স্বাধীনতার জন্যে আত্মদান করে। ২৭ এপ্রিল পতন ঘটে রাজধানী ইম্ফালের। পালিয়ে থাকা রাজা কূলচন্দ্র, যুবরাজ টিকেন্দ্রজিৎ, সেনাপতি থাঙ্গাল জেনারেলসহ রাজঅমাত্যবর্গ একে একে বন্দী হন ব্রিটিশদের হাতে। এক সংক্ষিপ্ত প্রহসনের বিচারে যুবরাজ টিকেন্দ্রজিৎ ও থাঙ্গাল জেনারেলকে ফাঁসির আদেশ দেয়া হয় এবং সকল ন্যায়নীতি উপেক্ষা করে ১৩ আগস্ট তারিখে প্রকাশ্যে জনসমক্ষে ফাঁসিকাষ্ঠে ঝুলানো হয় মণিপুরীদের জাতীয় বীর মাত্র ৩৬ বৎসর বয়সের যুবরাজ টিকেন্দ্রজিৎ এবং স্বাধীনতা রক্ষার যুদ্ধের বীর সেনাপতি বয়োবৃদ্ধ থাঙ্গাল জেনারেলকে।

খোংজোম তীর হয়ে ওঠে তীর্থভূমি। সেখানে গড়ে উঠেছে খোংজোম মেমোরিয়েল, স্থাপিত হয়েছে মেজর পাউনা ব্রজবাসীর ভাস্কর্য সহ বিভিন্ন স্থাপনা।

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭, ০১৭১৭ ৬৮ ১২ ১৪ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: