সর্বশেষ আপডেট : ৪৬ মিনিট ২৭ সেকেন্ড আগে
মঙ্গলবার, ২৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৭, খ্রীষ্টাব্দ | ১১ আশ্বিন ১৪২৪ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

পাতায়াতে বাংলাদেশের অনন্য স্বাদের রেষ্টুরেন্ট “রুচী রেষ্টুরেন্ট”

1পাতায়া সংবাদদাতা: সমুদ্রতীরের ছিমছাম শহর পাতায়া ব্যাংকক থেকে মাত্র ২০০ কিলোমিটার দূরে। মূলত রাতের আধারে জেগে ওঠা যে কয়টি শহর রয়েছে তার মধ্যে অন্যতম এটি। এশিয়ার অন্যতম হানিমুন স্পট পাতায়া। রাতের গভীরতা যত বাড়ে, আলোর ঝলকানিও সেই সঙ্গে পাল্লা দেয়। তালে তালে চলে সংগীতের মূর্ছনা। পর্যটকের ভিড় ঠেলা দায়। নাইট ক্লাব, রেস্তোরা, সমূদ্রের তীর সবকিছু একাকার। এক কথায় অন্য এক জগৎ। থাইল্যান্ডের রাজধানী ব্যাংকক থেকে মাত্র ২০০ কিলোমিটার দূরে পাতায়া। সমুদ্রতীরের এই ছিমছাম শহরটি যেন বিনোদনের স্বর্গরাজ্য। ডিস্কো, পাব, গোগো ক্লাবগুলো সমুদ্রতীরজুড়ে সাজানো। আমাদের কক্সবাজারের মতো বিশাল ঢেউ না থাকলেও বড়ই মোহনীয়। মনে হয় তীর দিয়ে শুধু হেটে বেড়াই। সমূদ্রের ভিতর আছে বিশাল বিশাল নৌযান। সেগুলোর একেকটি যেন ছোট্ট শহর।
2ছিমছাম এই সমূদ্রতীরের কোল ঘেষেই রয়েছে বাংলাদেশের অনন্য স্বাদের রেষ্টুরেন্ট রুচী রেষ্টুরেন্ট। সম্পুর্ণ হালাল খাবারের এই রেষ্টুরেন্টের কর্ণধার বাংলাদেশী ব্যবসায়ী মঈন উদ্দীন। কথা হয় পাতায়াতে বাংলাদেশী খাবারের রেষ্টুরেন্ট ব্যবসা নিয়ে। এত ব্যবসা থাকতে রেষ্টুরেন্ট ব্যবসায় আশার কারণ জানতে চাইলে তিনি বলেন, টপ টেইলার্স নামে তার একটি টেইলার্স ব্যবসা ছিলো। ঐ টেইলার্স শপে বিভিন্ন সময় বাংলাদেশী পর্যটকরা আসতো এবং হালাল খাবার তথা বাংলাদেশী খাবারের সন্ধান করতো। পর্যাপ্ত বাংলাদেমী রেষ্টুরেন্ট না থাকার কারণে এসময় নিজেই সিদ্ধান্ত নেন বাংলাদেশী রেষ্টুরেন্ট করার এবং খাবারের মান ঠিক রেখে পর্যটকদের সেবা দেয়ার। সেই থেকেই রেষ্টুরেন্ট ব্যবসার সাথে জাড়িয়ে পড়েন মঈন উদ্দীন।
১৯৯৭ সালের জুলাই মাসে জীবিকা নির্বাহ করতে থাইল্যান্ড আসেন মঈন উদ্দীন।  দেশ থেকে দূর প্রবাসে থাকলেও সব সময় দেশের কথা মনে পড়ে এবং সুযোগ পেলেই বাংলাদেশে আসেন বলে জানান মঈন উদ্দীন।
তার রেষ্টুরেন্টে বাংলাদেশী এবং থাই কর্মচারীরা কাজ করে। খাবারের স্বাদ পুরোপুরি বাংলাদেশের মতো এবং মানও উন্নতমানের। বাংলাদেশী ছাড়াও রেষ্টুরেন্টে অনেক বিদেশীরাও খেতে আসেন। হালাল রেষ্টুরেন্ট হওয়ার ফলে বাংলাদেশ, ভারত, পাকিস্তান, মালয়েশিয়া, ইন্দোনেশিয়ার পর্যটকদের সবচেয়ে গ্রহণযোগ্য রুচী রেষ্টুরেন্ট।
এক সৎ ব্যাবসায়ী হিসেবে মঈন উদ্দীনের বেশ সুনাম রয়েছে। তিনি থাই বাংলাদেশ ব্যবসায়ী কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক।
3বাংলাদেশের সিলেটী বাগানের চা পান করতে করতে কথা হয় তার সাথে। তিনি জানান, পাতায়া বেড়াতে আসা অনেক পর্যটক সঠিক দিক নিদের্শনার অভাবে প্রতারণার শিকার হয়ে থাকেন। অনেক পর্যটকদের বিপদে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে এগিয়ে আসেন মঈন উদ্দীন।
পাতায়া বেড়াতে গেলে যেকোন সহযোগিতায় তার সাথে যোগাযোগ করতে পারেন +66898332690 এই নাম্বারে।

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭, ০১৭১৭ ৬৮ ১২ ১৪ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: