সর্বশেষ আপডেট : ১ মিনিট ১ সেকেন্ড আগে
মঙ্গলবার, ২৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৭, খ্রীষ্টাব্দ | ১১ আশ্বিন ১৪২৪ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

গোয়াইনঘাটে স্কুল ছাত্র ও তার নিরীহ পিতাকে মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানীর অভিযোগ

2.-daily-sylhet-666-2রফিক সরকার, গোয়াইনঘাট:: সিলেটের গোয়াইনঘাটে স্থানীয় একটি বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণীর এক ছাত্র ও তার নিরীহ পিতাকে মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানীর অভিযোগ পাওয়া গেছে। মিথ্যা মামলার বোঝা মাথায় নিয়ে বাবা সন্তান মিলে এখন তারা পালিয়ে বেড়াচ্ছেন।

জানা যায় উপজেলার মোহাম্মদপুর এলাকায় ইলেকট্রেশিয়ান রাজু আহমেদের কলোনীতে গোলাপগঞ্জ থানার বাঘা আলগোছপুর গ্রামের মনফর আলীর পুত্র ফটিক মিয়া ও একই থানার পরগনা বাজারের এখলাছপুর বিরামারা গ্রামের হাবিবুর রহমানের পুত্র আব্দুল্লাহ পরস্পর আতœীয় হিসেবে উভয়েই তারা স্ত্রী সন্তান নিয়ে একই কলোনিতে ভাড়াটিয়া হিসেবে বসবাস করে আসছেন। গত ২১ জুন বুধবার সন্ধ্যায় আব্দুল্লাহ ও ফটিক মিয়ার স্ত্রী রিনা বেগমের সাথে তুচ্ছ বিষয় নিয়ে কথাকাটাকাটির এক পর্যায়ে উভয়ের মাঝে হাতাহাতির সৃষ্টি হয়। এরই এক পর্যায়ে আব্দুল্লাহর এলোপাতারি লাথির আঘাতে ফটিক মিয়ার স্ত্রী ৪ মাসের অন্তঃস্বত্তা রীনা বেগম আহত হয়। আহত অবস্থায় রীনা বেগমকে হাসপাতালে নিলে সেখানে তার গর্ভপাত ঘটে। এঘটনায় রীনা বেগমের ভাবী তানজিনা আক্তার বাদী হয়ে আদালতে একটি মামলা দায়ের করেন। মামলায় কলোনীর মালিক রাজু আহমেদ ও তার তার পুত্র স্থানীয় আমির মিয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের দশম শেণীর ছাত্র সাগর আহমেদ এবং আব্দুল্লাহ মিয়াকে আসামী করা হয়েছে। এই মামলার এজাহার নমীয় আসামী ও ঘটনার মূল হোতা আব্দুল্লাহ ইতিমধ্যে পুলিশের হাতে আটকও হয়েছেন।

কিন্তু দুঃখ জনক হলো ঝগড়ার সময় রাজু ও তার ছেলে সাগর ঘটনাস্থলে ছিলেন না। অথচ মামলায় রাজু ও তার ছেলেকে ১ ও ২ নং আসামী করা হয়েছে। আর এই মিথ্যা মামলার বুঝা মাথায় নিয়ে পিতা পুত্র দুজনেই এখন পালিয়ে বেড়াচ্ছেন।
এব্যাপারে রাজুর স্ত্রী কাউসার বেগম জানান ঘটনার সাথে জড়িত না থাকার পরও দুঃস্কৃতিকারী একটি মহলের ইন্দনে আমার স্বামী ও সন্তানকে মিথ্যা মামলায় ফাঁসিয়ে হয়রানী করছে। সামনে আমার ছেলের এসএসসি পরীক্ষা আর এমন সময় মিথ্যাা মামলায় পরে ছেলেও তার বাবা দুজনেই এখন পালিয়ে বেড়াচ্ছে। ছেলের ভবিষ্যতের কথা চিন্তা করে সঠিক তদন্তের মাধ্যমে তার স্বামী ও সন্তানকে মিথ্যা মামলা থেকে অব্যাহতি দেওয়ার জন্য পুলিশ ও সংশ্লিষ্ট আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর উর্ধ্বতন কৃর্তপক্ষের কাছে জোড় আবেদন জানিয়েছেন তিনি।

এব্যাপারে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এস আই আনোয়ার হোসেন জানান এঘটনায় মামলার এজাহার নামীয় একজনকে আটক করা হয়েছে। তবে তদন্তের মাধ্যমে যদি কেউ নির্দোষ প্রমাণিত হয় সে মোতাবেক আদালতে প্রতিবেদন দেওয়া হবে।

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭, ০১৭১৭ ৬৮ ১২ ১৪ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: