সর্বশেষ আপডেট : ৭ মিনিট ২১ সেকেন্ড আগে
সোমবার, ২৮ মে, ২০১৮, খ্রীষ্টাব্দ | ১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

সরকারী সহায়তার চেক ইউএনও অফিস থেকে পিআইও অফিসে পৌছতে সময় লাগল ১৮দিন!

01.-daily-sylhet-Chhatak-news2ছাতক প্রতিনিধি:: শম্ভুক গতিকেও হার মানিয়েছে ছাতকের ইউএনও অফিস থেকে পিআইও অফিস পর্যন্ত মৎস্যজীবীদের নামে বরাদ্ধকৃত সরকারী সহায়তার একটি চেক পৌঁছাতে সময় লেগেছে ১৮ দিন। দু’অফিসের মাঝখানের দুরত্বও প্রায় ১৮ ফুট। ইউএনও অফিস থেকে এ ১৮ফুট পথ অতিক্রম করে পিআইও অফিসে চেকটি পৌছতে সময় লেগেছে ১৮দিন। ঘটনাটি অবিশ্বাস্য হলেও সত্য-যা গ্রিনিস বুকে স্থান পাওয়ার যোগ্য বলে অনেকেই মন্তব্য করেছেন। বিরল এ ঘটনা নিয়ে অফিস পাড়ায়ও চলছে কানাঘোষা ও তোলপাড়। হত-দরিদ্রদের সরকারী সহায়তা নিয়ে সংশি¬ষ্টদের এমন অবহেলা অমার্জনীয় অপরাধ বলেও মন্তব্য করেছেন অনেকেই। বর্তমান সরকার ফসলহারা কৃষক গরিব-দুঃখী ও জেলে পরিবারের পাশে থেকে সর্বোচ্চ সহায়তা প্রদান করে তাদের মূখে মূখে হাসি ফুটাতে অসংখ্য ভাতাসহ বিভিন্ন খাদ্য সহায়তা দিয়ে যাচ্ছে। গরিব-অসহায়দের সাহায়্যের ভাড়ালে ইঁদুরের হানা থেমে নেই। উপজেলার দক্ষিণ খুরমা ইউনিয়নের ৩৮ জেলে পরিবারের মাঝে প্রতি পরিবার ৩০ কেজি চাল ও নগদ ৫শ’টাকা করে সরকারী বরাদ্ধ দেয়া হয়েছে। গত রোববার উপকারভোগীদের ৫শ’টকা ছাড়াই শুধু ৩০ কেজি করে চাল দিয়েই তাদের বিদায় করা হয়। তবে পিআইও অফিসের একটি দায়িত্বশীল সূত্র জানায়, ইউএনও অফিস থেকে তারা চেকটি পেয়েছেন ৬ জুলাই বৃস্পতিবার বিকেলে।

এখন সাধারণ মানুষের প্রশ্ন হচ্ছে, নির্বাহী অফিসারের কার্যালয় থেকে পিআইও অফিসের দূরত্ব ১৮ফুট থাকলেও চেক পৌছাতে সময় গেছে ১৮দিন। ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল মছব্বির জানান, ২২জুন উপজেলা নির্বাহী অফিসার স্বাক্ষরিত একটি চেক পিআইও অফিস থেকে ৯জুলাই বিকেলে তিনি গ্রহন করেছেন। এর আগে তাকে চালের বরাদ্ধপত্র দিলেও টাকার কথা বরাদ্ধপত্রে লিখা না থাকায় তিনি সম-পরিমান চাল মৎস্যজীবীদেও মাঝে বিতরণ করেছেন। ইউনিয়নের ট্যাগ কর্মকত, উপজেলা জনস্বাস্থ্য প্রকৌশলী সৈকত রায় জানান, ৯ জুলাই ইউনিয়নে জেলেদের মধ্যে চাল বিতরনের সময় তাঁকে জানানো হয়নি। প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা শহিদুজ্জামান বলেছেন মোবাইল ফোনে নয়,স্ব-শরীরে অফিসে এসে যেকোন তথ্য নিতে পারবেন। উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ নাছির উল¬াহ খান এব্যাপারে জানান, বরাদ্ধের টাকার চেকে অনেক আগেই স্বাক্ষর দেয়া হয়েছে। এদিকে কালারুকা ইউনিয়নেও মৎস্যজীবীদের বরাদ্ধের টাকা দেয়া হয়নি। এব্যাপারে ইউপি চেয়ারম্যান অদুদ আলম জানান তিনি শুধু ৪৮জন মৎস্যজীবীদের মাঝে চাল বিতরণ করেছেন। পিআইও অফিস থেকে জানানো হয়েছে তাদের বরাদ্ধের টাকা পরে দেয়া হবে।




এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭, ০১৭১৭ ৬৮ ১২ ১৪ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: