সর্বশেষ আপডেট : ৩২ মিনিট ৫৩ সেকেন্ড আগে
বুধবার, ২১ ফেব্রুয়ারী, ২০১৮, খ্রীষ্টাব্দ | ৯ ফাল্গুন ১৪২৪ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

নৌকা দেখলেই বানভাসী মানুষের ভীড়

unnamed (12)মৌলভীবাজার জেলা প্রতিনিধি:: ত্রাণবাহী নৌকা দেখলেই বানভাসী মানুষের ভীড় জমে যায় মৌলভীবাজারের কুলাউড়া উপজেলার হাকালুকি হাওর এলাকায়। এ চিত্র প্রতিদিনকার। চেয়ারম্যান ও মেম্বারদের তালিকা অনুযায়ী ত্রাণ বিতরণ করতে গিয়ে বানভাসী মানুষের রোষানলেও পড়ছেন ত্রাণ বিতরণকারী সরকারি কিংবা বেসরকারি কর্তৃপক্ষ। যদিও এ পর্যন্ত ৩৪০ টন চাল, নগদ ১৭ লাখ টাকা বিতরণ করা হয়েছে উপজেলার বন্যাকবলিত ৬টি ইউনিয়নে। ২৪ হাজার জন ক্ষতিগ্রস্ত ব্যক্তি পেয়েছেন সরকারি এ ত্রাণ সহায়তা। কিন্তু বানভাসী মানুষের অভাব প্রকট আকার ধারণ করেছে। কারণ, ২৮ মার্চ থেকে শুরু হওয়া ১ম দফা অকাল বন্যায় হাকালুকির সিংহভাগ বোরো ধান পানিতে পচে নষ্ট হয়ে যায়। এরপর জুলাই থেকে শুরু হওয়া ২য় দফা বন্যা আর সর্বশেষ জুন থেকে শুরু হওয়া তয় দফা বন্যায় এ অঞ্চলের বেশিরভাগ মানুষের আয়-রোজগার বন্ধ হয়ে পড়ে। এদিকে গত ১ সপ্তাহ থেকে বন্যার পানি কিছুটা কমলেও মানুষের দুর্ভোগ কমেনি। উপরন্ত দুর্ভোগের সাথে নতুন মাত্রা যোগ হয়েছে বিশুদ্ধ পানির তীব্র সংকট, ভাইরাস জ¦র, ডায়রিয়া, নিউমেনিয়াসহ পানিবাহিত রোগ-বালাই। সরেজমিনে গতকাল হাকালুকি হাওরের কুলাউড়া উপজেলা অংশের শতভাগ ক্ষতিগ্রস্ত ভুকশিমইল ইউপি’র কাড়েরা, জাবদা, চিলারকান্দি, বড়দল, কানেহাত ও ভুকশিমইল গ্রাম ঘুরে দেখা যায়, বেশিরভাগ মানুষের বাড়িতে এখনও হাঁটুপানি বিদ্যমান। রাস্তাঘাট পানিতে তলিয়ে আছে। ঘর থেকে বেরোনোর কোনো সুযোগ নেই। যাদের নৌকা রয়েছে তারা যাতায়াত করতে পারছে। আর যাদের নৌকা নেই তারা বাড়ি থেকে ত্রাণ বিতরণকারী কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করার চেষ্টা করেন, যে যেভাবে পারেন সেভাবে। কথা হয় বড়দল গ্রামের গৌরাঙ্গ, জামাল ও রিয়াজসহ কয়েকজনের সাথে।

তারা জানান, সরকার থেকে সাহায্য পেয়েছেন। তবে তা একেবারেই নগণ্য। কেউ পেয়েছেন ঈদের আগে একবার ১০ কেজি চাল। আবার কেউ পেয়েছেন ঈদের পরে ১৩ কেজি করে গম। কেউ কেউ আবার পেয়েছেন ৫০০ টাকা করে। অনেকে বেশিও পেয়েছেন। কিন্তু বোরো ধান হারানো এবং বর্তমানে বন্যার জন্য আয়-রোজগার বন্ধ মানুষের এ ত্রাণ পেয়ে অভাব লাঘব হচ্ছে না।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার চৌধুরী মো: গোলাম রাব্বি জানান, দুর্গত মানুষের চাহিদা অসীম। উপজেলায় এ পর্যন্ত ২৪ হাজার মানুষের মধ্যে ত্রাণ বিতরণ করা হয়েছে সরকারিভাবে। বেসরকারিভাবে বিভিন্ন ব্যাংক, প্রবাসী এবং ব্যক্তি উদ্যোগেও ত্রাণ বিতরণ অব্যাহত আছে। কিন্তু সরকারি হিসেবে ২১ হাজার মানুষ বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন।

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭, ০১৭১৭ ৬৮ ১২ ১৪ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: