সর্বশেষ আপডেট : ৯ মিনিট ৫৬ সেকেন্ড আগে
শনিবার, ১৭ ফেব্রুয়ারী, ২০১৮, খ্রীষ্টাব্দ | ৫ ফাল্গুন ১৪২৪ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

জোর করে স্ত্রীকে গর্ভপাত করালেন ইমাম

Captura-de-Tela20170708192314নিউজ ডেস্ক:: গাজীপুরের কালিয়াকৈর উপজেলার সিনাবহ এলাকায় স্ত্রীকে জোরপূর্বক গর্ভপাত করানোর অভিযোগ উঠেছে এক মসজিদের ইমামের বিরুদ্ধে। এ ঘটনায় শুক্রবার সন্ধ্যায় এক ইমামকে আটক করা হয়েছে।

আটক লুৎফর রহমান ওরফে লাল মিয়া (৫৫) কালিয়াকৈর উপজেলার সিনাবহ এলাকার মৃত পিরু মিয়া ওরফে ফিরুর ছেলে। তিনি উপজেলার বাগাম্বর এলাকার ভাঙ্গাল-জাঙ্গাল মসজিদের ইমাম। ঘটনার পর থেকে তার প্রথম স্ত্রী ও এ পক্ষের সন্তানরা পলাতক।

ভিক্টিমের স্বজনদের বরাত দিয়ে কালিয়াকৈর থানা পুলিশের সহকারী উপ-পরিদর্শক (এএসআই) মো. সুরুজ্জামান সাংবাদিকদের বলেন, লাল মিয়ার প্রথম স্ত্রী শেফালী বেগম ও দুই ছেলেসহ দুই বছর অগে ছাড়াছাড়ি হয় এবং অন্যত্র বিয়ে হয় শেফালীর।

এর দেড় বছর পর তিনি সোহেলা নামের এক নারী পোশাক শ্রমিককে বিয়ে করেন। সম্প্রতি শেফালীর সঙ্গে তার দ্বিতীয় স্বামীর ছাড়াছাড়ি হলে লাল মিয়া তার প্রথম স্ত্রীকে ফের বিয়ে করে বাড়িতে তোলেন।

এরপর থেকে স্বামী, সতীন ও সৎছেলেরা মিলে বিভিন্ন সময় দ্বিতীয় স্ত্রী সোহেলাকে নানাভাবে নির্যাতন শুরু করে। ইতোমধ্যে লাল মিয়ার দ্বিতীয় স্ত্রী সোহেলা ৪-৫ মাসের গর্ভবতী হয়। তারা সোহেলার ওই গর্ভের বাচ্চাকে কয়েকবার গর্ভে থাকা অবস্থায় বিভিন্নভাবে হত্যার চেষ্টা চালায়।

গত বৃহস্পতিবার রাতে তার স্বামী লাল মিয়া, সতীন শেফালী ও দুই সৎছেলে মিলে জোরপূর্বক দুধের সঙ্গে গর্ভপাতের ওষুধ খাওয়ায়।

এর কিছুক্ষণ পর থেকে সোহেলার পেটে ব্যথা শুরু হয়। শুক্রবার ভোরে সোহেলার গর্ভপাত ঘটে। পরে তার স্বামী লাল মিয়া কাউকে কিছু না বলে বাড়ি থেকে আধা কিলোমিটার দূরে বাঁশ ঝাড়ের ভেতরে ওই অপরিণত বাচ্চাকে মাটি দেয়।

অকাল গর্ভপাতের পর সোহেলার অবস্থার অবনতি হলে প্রতিবেশীরা তাকে কালিয়াকৈর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যায়। সেখানে তার অবস্থার আরও অবনতি হলে তাকে টাঙ্গাইলের মির্জাপুর কুমুদিনী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

খবর পেয়ে পুলিশ শুক্রবার সন্ধ্যায় ঘটনাস্থলে গিয়ে এ ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে তার স্বামী লাল মিয়াকে আটক করে। এ সময় পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে ওই গৃহবধূর সতীন ও তার ছেলেরা বাড়ি থেকে পালিয়ে যায়।

এ ব্যাপারে স্বামী লাল মিয়া জানান, তার দ্বিতীয় স্ত্রী তাকে বিশ্বাস করে না। পেটে ব্যথা হলে ডাক্তারের কাছে নিতে চাইলে যায়নি। তবে কোনো ওষুধ খাওয়ানো হয়নি, একাই গর্ভপাত হয়েছে।

লাল মিয়ার ভাতিজা মো. শাহীন মিয়া জানান, শনিবার দুপুরে সোহেলার ভাই আবুল কালাম বাদী হয়ে থানায় মামলার প্রস্তুতি নিচ্ছেন।

কালিয়াকৈর থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আব্দুল মোতালেব মিয়া জানান, এ ব্যাপারে লিখিত অভিযোগ পেলেই তা মামলাকারে নেয়া হবে।

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭, ০১৭১৭ ৬৮ ১২ ১৪ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: