সর্বশেষ আপডেট : ৫ মিনিট ৩ সেকেন্ড আগে
সোমবার, ২১ মে, ২০১৮, খ্রীষ্টাব্দ | ৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

চলচ্চিত্রের এই সংকটে রাজনীতি জিন্দাবাদ

Shakib-L20170706162655 যখন আপনি খেতে বসে একসঙ্গে অনেক পদের মুখরোচক খাবার দেখতে পাবেন তখন কোনটা রেখে কোনটা আগে খাবেন পরিস্থিতিতে পড়বেন। আবার একটা মানুষের অনেক ভালো গুণ থাকলেও তার প্রশংসা করতে গিয়ে কোনটা রেখে কোনটা করবেন পরিস্থিতি হয়। তেমনি অবস্থা হয়েছে বুলবুল বিশ্বাসের ‌‘রাজনীতি’ চলচ্চিত্র দেখার পর সেটি নিয়ে লিখতে গিয়ে।

সাংবাদিকের দৃষ্টি নিয়ে সমালোচনা করা যায়। প্রশংসা খুব একটা আসে না। তাই ছবির বিশ্লেষণের জন্য দর্শক হয়ে দর্শক সারিতে বসে ছবি উপভোগ করতে হয়। সেই দৃষ্টিকোণ থেকে বলাই যায়, চমৎকার একটি গল্প, মন ভরানো সংলাপ, ঝকঝকে নির্মাণ, শিল্পীদের মার্জিত উপস্থাপন, শিল্পীদের মজবুত অভিনয়, টানটান উত্তেজনা, গানের মন ভরানো দৃশ্যায়ন, কমেডি, পারিবারিক আবহ, পুরান ঢাকার ঐতিহ্য রক্ষার বার্তা, উচ্চশিক্ষিত তরুণের দেশপ্রেম ভাবনা, ছবির এডিটিং, লাইট, সেট ডিজাইন, সাউন্ড কোয়ালিটি- মুগ্ধতা দিয়ে গেল ছবিটি দেখতে দেখতে।

আফসোসের বিষয়, গেল রোজার ঈদে মুক্তি পাওয়া ছবিটি খুব বেশি হল পায়নি। যে কারণে বহুদিন পর ভালো একটি ছবি দেখা থেকে বঞ্চিত হয়েছেন দেশের বেশিরভাগ অঞ্চলের দর্শকেরাই। তবে যারা দেখেছেন তারা ছবিটির প্রশংসায় পঞ্চমুখ। কেউ কেউ দেখছেন বারবার, কেউ আবার প্রতিবেশী, বন্ধুদের বলছেন ছবিটি দেখতে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও দর্শকরা হয়ে উঠেছেন এই ছবিটির মার্কেটার। আর একটি ছবির প্রচারকারী যখন দর্শক হয়ে যায় সেই ছবিটি সবদিক থেকেই সাফল্যের দিকে ধাবিত হয়। ‘আয়নাবাজি’ ছবিটি তারই প্রমাণ। হল পাওয়ার রাজনীতির শিকার হয়েও তাই ‘রাজনীতি’ ছবিটি সাফল্যের পথেই হাঁটছে। নির্মাতা জানিয়েছেন, আসছে সপ্তাহে রাজধানী ঢাকাসহ দেশের বড় শহরগুলোর আরও প্রায় ৩০-৪০টি হলে মুক্তি পেতে যাচ্ছে শাকিব-অপু জুটির এখন পর্যন্ত মুক্তি পাওয়া সর্বশেষ ছবিটি।

তরুণ নির্মাতা বুলবুল বিশ্বাসের বিগ বাজেটের এ ছবিটির মূল অভিনেতা হিসেবে তিনজনের নাম বলতে হবে। তারা হলেন আনিসুর রহমান মিলন, অপু বিশ্বাস ও শাকিব খান। তবে এ ছবিটির সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য দিকটি হলো এটি নায়ক-নায়িকা বা দু-একজন শিল্পীনির্ভর নয়। এখানে অল্প কিছু দৃশ্যে হাজির হওয়া চিকন আলী ও কমল পাটেকারও গুরুত্ব পেয়েছেন। তাদের চরিত্রগুলোও দর্শককে প্রভাবিত করবে খুব সহজেই। বাংলা চলচ্চিত্রে এমনটা খুব বেশি দেখা যায় না। একটা সময় হুমায়ূন আহমেদ তার সিনেমাগুলোতে সব চরিত্রই গুরুত্বের সঙ্গে উপস্থাপন করতেন। বহুদিন পর তারই আরেকটি নমুনা দেখা গেল রাজনীতিতে। অভিবাদন নির্মাতা বুলবুল বিশ্বাসকে।

এছাড়াও এ ছবির অভিনয়কে সমৃদ্ধ করেছেন আলীরাজ, সাবেরী আলম, সাদেক বাচ্চু, অমিত হাসান, শিবাসানু, ডিজে সোহেল, রেবেকা, লাবণ্য লিসারা। প্রত্যেকেই নিজেদের চরিত্রগুলোকে ফুটিয়ে তুলতে সর্বোচ্চ চেষ্টা করেছেন।

তবে সংলাপের দিক থেকে পুরো ছবিতে শাকিল চরিত্রে বাজিমাত করেছেন আনিসুর রহমান মিলন, যা দেখে বারবার হাততালি দিয়েছেন দর্শক। এ ছবির জন্য মিলনের ঘরে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার উঠলেও অবাক হওয়ার কিছু থাকবে না। শুরু থেকে শেষ অব্দি অনবদ্য ছিলেন তিনি। আর অভিজ্ঞতার আলোকে নিজের অভিনয়কে আরও দাপুটে করে তুলেছেন এই ছবিতে শাকিব খান। আর বিশেষভাবে বলার মতো বিষয় হলো, ছবিতে অপু বিশ্বাসের গ্ল্যামার, মার্জিত উপস্থাপন, আকর্ষণীয় ও আবেদনময়ী রূপ মুগ্ধ করেছে।

ছবির গল্পটি শুরু হয় খুব সিম্পল একটি বিষয় নিয়ে। বিদেশে তথ্য প্রযুক্তি নিয়ে পড়াশোনা শেষ করা যুবক শাকিব খান। যার চরিত্রের নাম অয়ন। সাউথ আফ্রিকার কেপটাউনে তার একটি চাকরি হয় মাইক্রোসফট কোম্পানিতে। কিন্তু তিনি সিদ্ধান্ত নেন নিজের অর্জিত শিক্ষাকে তিনি দেশের উন্নয়নে কাজে লাগাবেন। তাই পরিবারের অসম্মতি সত্ত্বেও তিনি ঢাকায় ফিরে আসেন এবং ঘটনাক্রমে জড়িয়ে পড়েন ‘রাজনীতি’তে। সেই ঘটনার পেছনে দৃশ্যত হাত থাকে আনিসুর রহমান মিলনের। প্রথমে প্রেম নিয়ে সংঘাত। প্রেমিকের হাতে প্রেমিকা অর্ষার (অপু বিশ্বাস) ফুফাতো ভাই খুন। নেমে আসে দ্বন্দ্ব। প্রেম ও পরিবারে। হুমকির মুখে পড়ে ঐতিহ্যবাহী একটি রাজনৈতিক পরিবার। যারা সরকার দলের শক্তি।

কূটচালে জয়ের পথে এগিয়ে যেতে থাকে বিরোধী দলের নেতা চান সর্দার (সাদেক বাচ্চু) ও তার পরিবার। মেয়ে অর্ষাকে টোপ বানিয়ে তিনি ঘরে ভেড়াতে চান আজন্ম শত্রু হাজি হাবিবুল্লাহর (আলীরাজ) পুত্র আনিসুর রহমান মিলনকে। ভুল বোঝাবুঝির জেরে পুত্রের হাতে পিতা খুন। প্রতিশোধের আগুনে ঠান্ডা মাথায় শাকিবের দক্ষ রাজনীতি। একজনের প্রেম, অন্যজনের রাজকন্যা দিয়ে রাজ্য জয়ের নেশায় বাধে যুদ্ধ। মৃত্যুর মুখে অর্ষা চরিত্রের অপু বিশ্বাস। জমে ওঠে ক্লাইমেক্স।

তবে সব জটই খুলে যায়। শেষাংশে ভুল ভাঙে দর্শকের। চোখের দেখা মিথ্যা বলে প্রমাণিত হয়। রোমাঞ্চকর কিছু দৃশ্য পেরিয়েই সুন্দর মীমাংসার দিকে এগিয়ে যায় শাকিব-অপু ও মিলনের ‘রাজনীতি’। মন্দ চালে লোভের রাজনীতিতে পরাস্ত হন শিবাসানু। বিশ্বাসঘাতকায় বিলীন হলেও কিছুটা মানবিকতা নিজের মধ্যে টিকে থাকায় মন্দ হতে গিয়েও দর্শকের চোখে করুণা পায় কমলের মৃত্যু। আর বিশ্বস্ত মানুষ জব্বার চরিত্রের অমিত হাসান পতিত হন বিশ্বাস ভঙ্গের করুণ পরিণতির সমুদ্রে। বেঁচে থাকে ভালোবাসা, ভ্রাতৃত্ব, বন্ধুত্ব আর প্রেম। ‘রাজনীতি’ বেঁচে থাকে মানুষের কল্যাণে।

ছোটপর্দার অভিনয়শিল্পীরা বড় পর্দায় এসে খুব একটা নিজেকে মেলে ধরতে পারেন না এমন অভিযোগ পুরনো। আর যদি হয় কমার্শিয়াল মশলাদার ছবি তবে তো আর কথাই নেই। কিন্তু অদ্ভুত রকমের পারফর্ম দেখিয়েছেন সাবেরী আলম। একদিকে তিনি হাজির হয়েছেন পুত্রপাগল কোমল মাতৃত্ব নিয়ে অন্যদিকে তাকেই দর্শক দেখতে পাবে দেশের বৃহৎ রাজনৈতিক দলের দুর্দিনে বলিষ্ঠ ভূমিকা নিতে, কঠিন সিদ্ধান্তের ঘোষণায়। ভালো লেগে যায় এই অভিনেত্রীর চরিত্রটি। বেশ কিছু দৃশ্যে অপু বিশ্বাসের প্রতিবেশী বৌদি আরতি চরিত্রে হাজির হয়ে ননদ-বৌদির চিরাচরিত কিছু আনন্দ-খুনসুটি নিয়ে বেশ ভালো অভিনয় করেছেন লাবন্য লিসা।

ছোট চরিত্রে ডিজে সোহেলের অভিনয় মনে থাকবে দর্শকের। হাস্যরসে ভরা সংলাপে তিনি ছিলেন বেশ সাবলীল। তবে তার মায়ের চরিত্রে রেবেকাকে আরও প্রাণবন্ত পেলে ভালো লাগত। শিবাসানু বরাবরই ভয়ংকর এক্সপ্রেশন নিয়ে এই ছবিতেও দুর্দান্ত ছিলেন। হাততালি পাওয়ার মতো অভিনয় ছিল আলীরাজ, সাদেক বাচ্চু ও অমিত হাসানের।

তবে ছবিটির খুঁতের তালিকাও মন্দ নয়। ছবি দেখতে দেখতে মনে হবে দুটি রাজনৈতিক দলের মধ্যে একটি নির্বাচন অনুষ্ঠিত হতে পারে। কিন্তু সেদিকটা এড়িয়ে গেছেন পরিচালক। ফলে ‘রাজনীতি’ নাম নিয়ে ছবিটির কিছুটা দুর্বলতা থেকে গেছে। শেষটা হয়ে গেছে যেন একটু তাড়াহুড়ো করেই, অনেক কিছু পাশ কাটিয়ে। ছবিতে খুবই বেমানান লাগছিল শাকিব খানের চুলের কাটিং। একটা সময় চুলের সুন্দর একটা কাট দেখা গেলেও সেটা কন্টিনিউ হয়নি।

এত বড় বাজেটের ছবি, কিন্তু হতাশ করেছে তার গান। হাবিব ওয়াহিদের সুর-সংগীতে অপু বিশ্বাসের ঠোঁটে খেয়ার গাওয়া ‘ও আকাশ বলে দে না রে’ গানটি কিছুটা শ্রুতিমধুর হলেও বাকি গানগুলোর প্রশংসা করা যায় না। আর ছবির মশলা বাড়ানোর আইটেম সঙটিও তেমন জুৎসই লাগেনি। বলা চলে এই ছবির মেজাজ ও মানের সঙ্গে মানানসই লাগেনি। তবে বিপাশা কবিরকে নির্মাতা উপস্থাপন করেছেন গর্জিয়াস লুকে। বিপাশার পারফর্মও গতানুগতিকতার বাইরে ছিলো। তবে গানের শ্রুতি মাধুর্যের অভাবে ম্লান হয়ে রইলো আয়োজনটি।

এমনি করে খুঁজতে গেলে হয়তো নানা মতের দর্শকের দৃষ্টিতে আরও কিছু ত্রুটি ধরা পড়বে ‘রাজনীতি’র। কিন্তু চলচ্চিত্রের বর্তমান বাজারে সম্পূর্ণই বাংলাদেশি ছবি হিসেবে ‘রাজনীতি’র প্রশংসা করা যায় চোখ বন্ধ রেখে। এখানে নকলের ছড়াছড়ি নেই, প্রচারণার চাকচিক্য বা মিথ্যে আশ্বাসের বুলিও ছিলো না কর্তৃপক্ষের। তাই দর্শক বিনোদন দেখতে গিয়ে উচ্চাশার সঙ্গে প্রাপ্তির অনুপাতে হতাশাগ্রস্ত হবেন না।

এমন ছবির সংখ্যা বাড়লে যৌথ প্রযোজনা নিয়ে সংঘাতে জড়িয়েছে ইন্ডাস্ট্রি তা থেকে খুব সহজেই উত্তরণ হবে। ভিনদেশি কারো সাহায্য বা অর্থলগ্নি ছাড়া নিজেরাই আমরা দর্শক হলে আনার মতো শক্তিটা খুঁজে পাবো। হল মালিকরাও আগ্রহী হবেন এই ব্যবসায় নিয়মিত ও সিরিয়াস হতে।

তাই পরিচালক বুলবুল বিশ্বাসের প্রতি আহ্বান থাকবে নক্ষত্র হয়ে ঝলকানি না দেখিয়ে, চলচ্চিত্রের মানুষ হিসেবে তিনি নিয়মিত হবেন। প্রথম ছবিতেই যে বাজিমাত তিনি করেছেন, যে আশা তিনি জাগিয়েছেন তার প্রতি সুবিচার করবেন। ধন্যবাদ রইলো এই ছবির প্রযোজক আশফাক আহমেদ ও তার প্রতিষ্ঠান অ্যারো মোশন আর্টসের প্রতি, এই মন্দার বাজারে বিশাল বাজেটে ছবি নির্মাণের সাহস দেখানো হয়েছে। নির্মাতাকে স্বাধীণভাবে কাজের সুযোগ দেয়ায়।

সর্বোপরি জয় হোক ঢাকাই চলচ্চিত্রের। জয় হোক দেশীয় একক প্রযোজনায় মৌলিকত্ব নিয়ে নতুন নির্মাণ ভাবনার। হলে হলে দর্শকের মুখে উচ্চারিত হোক ‘রাজনীতি’ জিন্দাবাদ।




নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭, ০১৭১৭ ৬৮ ১২ ১৪ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: