সর্বশেষ আপডেট : ৪ মিনিট ২৪ সেকেন্ড আগে
রবিবার, ২৩ জুলাই, ২০১৭, খ্রীষ্টাব্দ | ৮ শ্রাবণ ১৪২৪ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

রাজনগরে ৪ ইউনিয়নের ৫০ হাজার মানুষ পানিবন্দী

1. daily sylhet 0-9মৌলভীবাজার জেলা প্রতিনিধি:: মৌলভীবাজারের রাজনগরে কুশিয়ারা নদী ও কাউয়াদীঘি হাওরে পানি বৃদ্ধিও কারণে ৪টি ইউনিয়নের ৪০টিরও অধিক গ্রামের অন্তত ৫০ হাজার মানুষ পানিবন্দী অবস্থায় রয়েছেন। পানি উঠে যাওয়ার কারণে কার্যত বন্ধ রয়েছে ৮টিরও প্রাথমিক বিদ্যালয়। কামালপুর ও বকশিপুর প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ৩০টি পরিবার আশ্রয় নিয়েছে। এছাড়াও বাস যোগাযোগ বন্ধ রয়েছে মৌলভীবাজার-রাজনগর-বালাগঞ্জ সড়কে। অতিরিক্ত পানির কারণে গবাদিপশু নিয়েও বিপাকে পড়েছেন পানিবন্দী মানুষজন।

সরেজমিনে বন্যাক্রান্ত বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা যায়, প্রবল বৃষ্টি ও উজান থেকে নেমে আসা পানিতে কুশিয়ারা নদী ও কাউয়াদীঘি হাওরে অস্বাভাবিকভাবে পানি বৃদ্ধি পেয়েছে। ফলে কুশিয়ারা নদী ও কাউয়াদীঘি হাওরতীরের ফতেহপুর, উত্তরভাগ, মুন্সিবাজার, পাঁচগাঁও ইউনিয়নসহ ৪০টিরও অধিক গ্রামের মানুষ পানিবন্দী হয়ে পড়েছেন। হাওরতীরের গ্রামগুলোর মানুষ একেবারেই যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছেন। গবাদিপশু নিয়ে বিপাকে পড়েছেন এসব গ্রামের কৃষকেরা। দেখা দিয়েছে গো-খাদ্য সংকটও। এছাড়াও হাওরের পানিতে তলিয়ে গেছে মৌলভীবাজার-রাজনগর-বালাগঞ্জ সড়কের বেশ কিছু এলাকা। এতে ফতেহপুর ইউনিয়ন ও বালাগঞ্জ এলাকার সঙ্গে বাস যোগাযোগ বন্ধ রয়েছে। ঝুঁকি নিয়ে কিছু যানে যাতায়াত করছেন যাত্রীরা।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, কুশিয়ারা নদী ও কাউয়াদীঘি হাওরে পানি বৃদ্ধির কারণে ফতেহপুর, উত্তরভাগ, মুন্সিবাজার ও পাঁচগাঁও ইউনিয়নের কাশিমপুর, শাহপুর, আব্দুল্লাহপুর, জাহিদপুর, শাহপুর, বেড়কুড়ি, হামিদপুর, বিলবাড়ি, শাহবাজপুর, মুনিয়ারপাড়, বেতাহুঞ্জা, গোবিন্দপুর, ফতেহপুর, বাঘমারা, বাঘেরবাড়ি, কামালপুর, মেদিনিমহল, সুনাটিকি, মিয়ারকন্দি, আমীরপুর, ধুলিজুড়া, কেউলাসহ ৩০টিরও বেশি গ্রামের মানুষ পানিবন্দী অবস্থায় আছেন। এসব এলাকার মানুষজন আত্মীয়-স্বজন ও বিভিন্ন বাঁধে আশ্রয় নিয়েছেন। গোবাদি পশুগুলো উজানের আত্মীয়-স্বজনের বাড়িতে নিয়ে তুলেছেন। এছাড়াও ফতেহপুর, উত্তরভাগ ইউনিয়ন, উত্তর অন্তেহরি, দক্ষিণ, জাহিদপুর, কাশিমপুর, আব্দুল্লাহপুর, শাহপুর, বেড়কুড়ি, ফতেহপুর, সুনামপুর, চালবন্দ, বাদেনারায়ণপুর, শাহবাজপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে পানি উঠে গেছে। গত শনিবার বিদ্যালয় খোলার দিন থাকলেও পানির কারণে ছাত্রছাত্রীরা এসব প্রতিষ্ঠানে যেতে পারেনি। বিদ্যালয় ভবনের দু’তলা ও বিভিন্ন বাড়িতে পাঠদানের ব্যবস্থা চলছে বলে জানালেন শিক্ষা কর্মকর্তা জাফর আল সাদেক। অন্যান্য এলাকায় পাঠদান কার্যত বন্ধই রয়েছে। এছাড়াও মুন্সিবাজার, পাঁচগাঁও ও উত্তরভাগ ইউনিয়নের বিভিন্ন বিদ্যালয়ের আশেপাশে পানি প্রবেশ করেছে।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার শরিফুল ইসলাম জানান, পিআইও বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখেছেন। কামালপুর ও বকশিপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ৩০টির মতো পরিবার আশ্রয় নিয়েছে। জেলা প্রশাসক মহোদয়ের দেয়া জিআর চাল ও নগদ টাকা বিতরণ করা হবে। এছাড়াও আশ্রয় কেন্দ্রগুলোতে শুকনো খাবার ও একবেলা খিচুড়ি দেয়ার ব্যবস্থা করা হচ্ছে।

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭, ০১৭১৭ ৬৮ ১২ ১৪ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: