সর্বশেষ আপডেট : ৬ মিনিট ৮ সেকেন্ড আগে
রবিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারী, ২০১৮, খ্রীষ্টাব্দ | ১৩ ফাল্গুন ১৪২৪ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

সিলেটের বন্দরবাজারে নিরবেই চলতে শুরু করেছে টাইম টাওয়ারের ঘড়িগুলো

leadnewsmaruf3julyমারুফ হাসান ::
কোনো হাক-ডাক ছাড়াই চলতে শুরু করেছে সিলেটের বন্দরবাজারে স্থাপিত টাইম টাওয়ারের ঘড়িগুলো। বাংলাদেশ, যুক্তরাজ্য ও সৌদি আরব-এর সময় প্রদর্শনকারী ‘টাইম টাওয়ার’ প্রবাসী অধ্যুষিত সিলেটের মানুষকে সময় সেবা প্রদানের উদ্দেশ্যেই স্থাপিত।

সিলেট সিটি করপোরেশনের সৌন্দর্য বর্ধন প্রকল্পের আওতায় ২০১৪ সালের ২ জুন এটি নির্মাণের অনুমতি পায় বিজ্ঞাপনী সংস্থা আর্ট সাইন। একই বছরের জুলাই মাসে কাজ শুরু হয়। তবে স্তম্ভ নির্মাণের পর কাজ বন্ধ হয়ে যায়। দীর্ঘদিন নানা জটিলাতায় কাজ বন্ধ থাকলেও এবার রমজানের আগে মে মাসের মাঝামাঝিতে ঘড়িগুলো চালু করে দেয়া হয়।

সিলেট সিটি কর্পোরেশনের তত্ত্বাবধানে, থ্রিডি ডিজাইনার এহতেশাম শিপলুর দেয়া নকশায় তৈরি হয় টাইম টাওয়ার। ইটের উপর ইট বসিয়ে গড়ে তোলা হয় ঘড়িস্তম্ভটি। নিচ থেকে মশালের মতো উঠে যাওয়া ২১ ফুট উঁচু চৌকো এই স্তম্ভের তিন দিকে আছে তিনটে ঘড়ি। BD (বাংলাদেশ), UK (যুক্তরাজ্য) ও SAUDI (সৌদি আরব) এই তিন দেশের সময় প্রদর্শন করছে ঘড়িগুলো।

WP_20170702_12_54_14_Pro copyবিজ্ঞাপনী সংস্থা ‘আর্টসাইন প্রাইভেট লিমিটেডের’ আর্থিক পৃষ্ঠপোষকতায় ৮ লাখ টাকা ব্যয়ে টাইম টাওয়ারের নির্মাণকাজ সম্পন্ন হয়েছে। বন্দরবাজারের হাসান মার্কেট সংলগ্ন ৪৪ ফুট লম্বা ভূমিতে দৃষ্টিনন্দন স্থাপনাটি তৈরি করা হয়।
‘আর্ট সাইন’-এর বিপণন কর্মকর্তা মোহাম্মদ হাবিবুর রহমান জানান, দৃষ্টিনন্দন নগর গড়তে সিটি মেয়র আরিফুল হক চৌধুরীর নানামুখী উদ্যোগের সঙ্গে একাত্ম হয়ে সামাজিক দায়বদ্ধতা থেকে আমরা টাইম টাওয়ারটির নির্মাণ কাজ হাতে নেই। মেয়র কারাগারে থাকায় মাঝখানে কাজ বন্ধ ছিল। তিনি বলেন, টাইম টাওয়ারের আনুষ্ঠানিক যাত্রার বিষয়টি সিটি কর্পোরেশনের উপর নির্ভর করছে।

সিলেট সিটি করপোরেশনের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী সাবেক অর্থমন্ত্রী শাহ এএমএস কিবরিয়া হত্যাকাণ্ডে জড়িত থাকার অভিযোগে সাময়িকভাবে মেয়র পদ হারিয়েছিলেন। এমন জটিলতায় ঝুলে গিয়েছিল টাইম টাওয়ারের নির্মাণ কাজ। সম্প্রতি আরিফ মুক্ত হবার পর নগর উন্নয়নে বিভিন্ন কর্মসূচি হাতে নেন। তারই অংশ হিসেবে মে মাসের মাঝামাঝিতে টাইম টাওয়ারের কাজ সমাপ্ত করা হয়।

বন্দরবাজারের বিভিন্ন ব্যবসায়ী জানান, নগরের সৌন্দর্য বৃদ্ধির জন্য নানা পরিকল্পনা অবশ্যই প্রশংসাযোগ্য। ঐতিহ্যের ধারায় এ উদ্যোগকে স্বাগত জানান সিলেটবাসী। মানব সেবার জন্য সৃষ্ট প্রতিটি স্থাপনাই এক সময় রক্ষণাবেক্ষনের অভাবে হারিয়ে যায়। তারা আশা প্রকাশ করে বলেন, টাইম টাওয়ার নির্মাণের সুফল যেন সিলেটবাসী ভোগ করেন দীর্ঘকাল।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক করিম উল্লাহ মার্কেটের এক ব্যবসায়ী জানালেন, টাইম টাওয়ার সংলগ্ন আশপাশের এলাকা থেকে হকার সরিয়ে স্থানটিকে দৃষ্টি নন্দনভাবে উপস্থাপন করতে না পারলে এই স্থাপনার কোনো মূল্যই থাকবে না।

WP_20170702_12_55_03_Pro_1

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭, ০১৭১৭ ৬৮ ১২ ১৪ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: