সর্বশেষ আপডেট : ২৭ মিনিট ৩৪ সেকেন্ড আগে
মঙ্গলবার, ২২ মে, ২০১৮, খ্রীষ্টাব্দ | ৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

গ্যাস সিলিন্ডার ভয়ঙ্কর!

1499019014নিউজ ডেস্ক:: সেহরির খাবার গরম করতে গিয়ে গত ১০ জুন সাতক্ষীরার আশাশুনি উপজেলার পিরোজপুর গ্রামের গৃহবধূ টুম্পা খাতুন এলপি গ্যাসের সিলিন্ডার বিস্ফোরণে দগ্ধ হন। শরীরের ৭০ শতাংশ দগ্ধ হয়ে এক সপ্তাহ তীব্র যন্ত্রণাভোগের পর ১৬ জুন তিনি মারা যান। চট্টগ্রামের পতেঙ্গা এলাকায় ৪ মার্চ রাতে গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরিত হয়ে এক বছরের কন্যাশিশু ঐশী নিহত ও তার বাবা পোশাক শ্রমিক রাজু মারাত্মকভাবে দগ্ধ হন। রাজধানীর যাত্রাবাড়ীর মীরহাজীরবাগে একই ধরনের দুর্ঘটনার শিকার হয়ে গত ১৫ জানুয়ারি মারা যান ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী ওয়াহিদ উল্লাহ।

মেয়াদোত্তীর্ণ কিংবা নিম্নমানের সিলিন্ডার (এলপিজি কিংবা সিএনজি) বিস্ফোরণে এমন দুর্ঘটনা ঢাকাসহ সারাদেশে এখন নিয়মিত বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে। বাসা-বাড়ি ও গাড়িতে গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরণে মৃত্যু থামছে না। অসচেতনভাবে মেয়াদোত্তীর্ণ সিলিন্ডার থাকা বাসা অথবা গাড়িগুলো বয়ে বেড়াচ্ছে ‘মৃত্যুবোমা’। ফায়ার সার্ভিস, ঢাকা মেডিক্যাল কলেজের বার্ন ইউনিট এবং কয়েকটি জেলার স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, গত মে ও জুন মাসে বিভিন্ন জেলায় অন্তত ৬০ জন দগ্ধ হয়েছেন। গত এক বছরে এ ধরনের দুর্ঘটনার শিকার হয়ে ঢামেক বার্ন ইউনিটে চিকিত্সা নিয়েছেন অন্তত ৫০ জন। এর মধ্যে মারা গেছেন ১২ জন। বিপুল পরিমাণ সম্পদের ক্ষতিও ঘটে। সারাদেশে সিলিন্ডার বিস্ফোরণ বা দুর্ঘটনা সম্পর্কিত সুনির্দিষ্ট ও সামগ্রিক তথ্যভাণ্ডার নেই। তাই সিলিন্ডার বিস্ফোরণজনিত হতাহত ও সম্পদ ক্ষতির প্রকৃত পরিমাণ কয়েক গুণ বেশি হবে বলে ধারণা করছেন সংশ্লিষ্টরা।

বিস্ফোরক অধিদপ্তর সূত্র জানায়, দেশে আবাসিক, শিল্প ও বাণিজ্যিক ব্যবহারে প্রায় ৯০ লাখ এলপিজি (তরলীকৃত প্রাকৃতিক গ্যাস) সিলিন্ডার রয়েছে। যানবাহনে ব্যবহূত সিএনজি (সংকুচিত প্রাকৃতিক গ্যাস) সিলিন্ডার আছে প্রায় চার লাখ। রি-টেস্টের মাধ্যমে এখন পর্যন্ত বাতিল হয়েছে প্রায় ৩০ হাজার এলপিজি ও ২০০ থেকে ৩০০ সিএনজি সিলিন্ডার। রূপান্তরিত প্রাকৃতিক গ্যাস কোম্পানির (আরপিজিসিএল) এক ব্যবস্থাপক জানান, বাজারে নিম্নমানের ও পুরনো সিলিন্ডার ছড়িয়ে পড়েছে। এটি বিপজ্জনক। কিছুটা কম দামে পাওয়া যায় বলে অনেক গ্রাহক এমন নিম্নমানের সিলিন্ডারের প্রতি আগ্রহী হচ্ছেন। আবার অনেক ক্রেতা নিরাপত্তা সিল না দেখেই নিম্নমানের সিলিন্ডার বেশি দামে কিনছেন। কিন্তু ব্যবহার শুরুর দু-এক বছর পর এসব সিলিন্ডার বিস্ফোরণের আশঙ্কা আছে।

সিলিন্ডার বিস্ফোরণ ও দুর্ঘটনা সম্পর্কে প্রধান বিস্ফোরক পরিদর্শক মো. শামসুল আলম বলেন, নিয়ম মেনে রক্ষণাবেক্ষণ করা হলে ও যাচাই-বাছাই সাপেক্ষে প্রতিটি সিলিন্ডার ৪০ বছর পর্যন্ত ব্যবহার করা যেতে পারে। কিন্তু দেশে সিলিন্ডারগুলো পরিবহন পর্যায়ে বিশেষ করে ডিলার পর্যায়ে ক্ষতিগ্রস্ত হয়। তাই এগুলোর স্বাভাবিক আয়ু কমে যায়। তিনি জানান, ১০ বছর পরপর বিস্ফোরক অধিদপ্তরের তত্ত্বাবধানে সিলিন্ডার রি-টেস্ট (পরীক্ষণ) করাতে হয়। রি-টেস্টে উত্তীর্ণ হলে প্রতিটি সিলিন্ডার পরবর্তী ১০ বছর পর্যন্ত ব্যবহারের অনুমোদন পায় উত্পাদন ও বিতরণ কোম্পানিগুলো। শামসুল আলম জানান, গ্রাহক পর্যায়ে সিলিন্ডার নিয়ন্ত্রণ বা তদারকি অধিদপ্তরের পক্ষে সম্ভব নয়। কোম্পানিগুলোর স্টোর পর্যন্ত এ মান নিয়ন্ত্রণ করা যায়। ডিলার কিংবা গ্রাহক পর্যায়ে ক্ষতিগ্রস্ত সিলিন্ডারগুলো যখন রিফিল করা হয় তখন কোম্পানিগুলো নিজস্ব তদারকিতে এগুলোকে পরীক্ষা করে ব্যবস্থা গ্রহণ করতে পারে। আর ডিলার ও গ্রাহকদের মধ্যে সচেতনতা তৈরিতে প্রচার-প্রচারণা বাড়াতে হবে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো বলছে, মধ্যবর্তী ১০ বছরে অনেক সিলিন্ডার ব্যাপকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়। ফিলিং স্টেশন, স্টোর কিংবা ডিলার পর্যায়ে অনেক সময় এগুলো এড়িয়ে যাওয়ার নজির রয়েছে। ফলে গ্রাহক পর্যায়ে ত্রুটিপূর্ণ, মেয়াদোত্তীর্ণ বা ক্ষতিগ্রস্ত সিলিন্ডার চলে যায়। আর ওইগুলো থেকেই ভয়াবহ দুর্ঘটনার সূত্রপাত হয়। গত বছর সিলিন্ডার বিস্ফোরণের সবচেয়ে বড় ঘটনা ঘটে বগুড়ায়। বগুড়ায় বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম কর্পোরেশনের (বিপিসি) ডিপোতে ৩০০ সিলিন্ডার বিস্ফোরিত হয়।

দেশে সিংহভাগ এলপি গ্যাস উত্পাদন ও বাজারজাত করছে বেসরকারি কোম্পানি বসুন্ধরা, ওমেরা ও বিএম এনার্জি। সরকারি সংস্থা বিপিসিও বিপুলসংখ্যক সিলিন্ডার বাজারজাত করছে। গত বছর আগস্টে বিপিসির এক ডিপোতে পুরনো ও ঝুঁকিপূর্ণ সিলিন্ডার বিস্ফোরণের পর এ নিয়ে নিরাপত্তার বিষয়টি বেশি আলোচিত হয়। তখন পরীক্ষার পর বিপিসির প্রায় ২০ হাজার সিলিন্ডার বাতিল ঘোষণা করা হয়।

সারাদেশে মেয়াদোত্তীর্ণ কিংবা ঝুঁকিপূর্ণ সিএনজি সিলিন্ডার নিয়ে প্রায় দেড় লাখ যানবাহন চলাচল করছে। প্রতি পাঁচ বছর পর গাড়িতে বসানো সিলিন্ডার পরীক্ষা করে বিস্ফোরক অধিদফতরে রিপোর্ট জমা দেয়ার কথা থাকলেও তা মানা হচ্ছে না। মাত্র ১০ থেকে ১৫ হাজার গাড়ি নিয়মিত এ পরীক্ষার রিপোর্ট জমা দেয়।

রূপান্তরিত প্রাকৃতিক গ্যাস কোম্পানির (আরপিজিসিএল) হিসাব অনুযায়ী, সারাদেশে প্রায় আড়াই লাখ সিএনজিচালিত যানবাহন রয়েছে। এর মধ্যে পাঁচ বছরের বেশি সময় অতিক্রম করা গাড়ির সংখ্যা দেড় লাখেরও বেশি। এগুলোর ৮০ ভাগই রি-টেস্ট করা হয়নি। ফলে সিলিন্ডার বিস্ফোরণে গাড়ি দুর্ঘটনা বা হতাহতের সংখ্যা যেমনি বাড়ছে তেমনি এই ঝুঁকিও মারাত্মক রূপ নিচ্ছে। গত দুই বছরে এ ধরনের শতাধিক বিস্ফোরণের তথ্য পাওয়া গেছে। এ প্রসঙ্গে প্রধান বিস্ফোরক পরিদর্শক শামসুল আলম বলেন, সিএনজি নিরাপত্তার আন্তর্জাতিক মান নির্দেশনা অনুযায়ী প্রতিটি গ্যাস সিলিন্ডার পাঁচ বছর পর পর রি-টেস্টের বিধান রয়েছে। কিন্তু অধিকাংশ গাড়ির মালিক-চালক তা না মেনে মরণঝুঁকি বয়ে বেড়াচ্ছেন।

তবে এ রি-টেস্ট সুবিধাও দেশে পর্যাপ্ত নয়। সারাদেশে মাত্র ১৫টি রি-টেস্ট সেন্টার রয়েছে। কয়েকজন গাড়ির মালিক জানান, অনেক গাড়ির মালিক চাইলেও সময়মত রি-টেস্ট করাতে পারেন না। সেন্টারের সংখ্যা বাড়ানো হলে রি-টেস্টের সংখ্যা বৃদ্ধির পাশাপাশি সিলিন্ডার বিস্ফোরণের ঝুঁকিও কমবে।




এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭, ০১৭১৭ ৬৮ ১২ ১৪ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: