সর্বশেষ আপডেট : ৬ সেকেন্ড আগে
বৃহস্পতিবার, ২৭ জুলাই, ২০১৭, খ্রীষ্টাব্দ | ১২ শ্রাবণ ১৪২৪ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

হাজার হাজার মানুষ পানিবন্দি, খাবার পানির তীব্র সংকট

1. daily sylhet 0-9নিজস্ব সংবাদদাতা:: হাকালুকি হাওরের পানি বৃদ্ধির ফলে কুলাউড়া উপজেলার ৪টি ইউনিয়ন বন্যা কবলিত হয়ে পড়েছে। ইউনিয়নগুলি হচ্ছে, ভুকশিমইল, ভাটেরা, কাদিপুর ও জয়চন্ডি। এসব ইউনিয়নের হাজার হাজার মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েছেন। চলাচলের একমাত্র মাধ্যম নৌকা না থাকায় জীবনের ঝুঁকি নিয়ে ভেলায় চড়ে খাবার পানি সংগ্রহ করতে হচ্ছে। বন্যার জলে ভেসে আসা কচুরিপানাই এখন গবাদি পশুর বেঁচে থাকার একমাত্র অবলম্বন।

ভুকশিমইল ইউনিয়নের সবগুলি গ্রামই বন্যা কবলিত। ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ আজিজুর রহমান জানান, তার ইউনিয়নের ২২ গ্রামের সব বাড়িতে পানি ঢুকেছে। মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত গ্রামগুলি হচ্ছে, সাদিপুর, কুরবানপুর, নাছিরপুর, জালালপুর, বরড়ল, কারেড়া, কানেহাত, চিলারকান্দি, কালেশার, জাব্দা, মুক্তাজিপুর, শশারকান্দি, মদনগৌরি, গৌড়করন ও মনসুরগঞ্জ। এই সকল গ্রামের অধিকাংশ পানিবন্দি পরিবারের ছেলে মেয়েদের অন্যত্র পাঠিয়ে দেয়া হয়েছে। কেউ কেউ জীবনের ঝুঁকি নিয়ে হাকালুকি হাওরের প্রচণ্ড ঢেউ এর আঘাত সহ্য করে ঘর পাহারা দিচ্ছে। অধিকাংশ মানুষের খাবারের কোনো ব্যবস্থা নেই, শুকনো খাবারই তাদের বেঁচে থাকার একমাত্র উপায়। তিনি জানান, এলাকার মোট ১৬টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান দীর্ঘদিনের জন্য বন্ধ হয়ে গেছে। সবগুলি বিদ্যালয়ের ক্লাসরুমে পানি উঠেছে। ইউনিয়নে ৩টি আশ্রয় কেন্দ্র খোলা হয়েছে। ভাটেরা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সৈয়দ এ. কে. এম নজরুল ইসলাম জানান, তার ইউনিয়নে ১৫ গ্রামের প্রায় ৭ শতাধিক পরিবার বন্যা কবলিত হয়েছে। ২০০৪ সালের পর এইবারের মত বন্যা অতীতে আর দেখা যায় নাই। এই সব গ্রামের লোকজন দারুণ কষ্টের মধ্যে দিন যাপন করছে। এই ইউনিয়নটি হাকালুকি হাওরের তীরে হওয়ায় সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে বাড়িঘর। গ্রামগুলির প্রাথমিক বিদ্যালয় গতকাল খুললেও শিক্ষার্থীরা বিদ্যালয়ে যেতে পারছে না। বোরো ধান নষ্ট হওয়ার পর গ্রামবাসী ধারদেনা করে আউস ধান লাগিয়েছিল। হাকালুকি হাওরের ঢেউ এবং কচুরিপানায় সে ধানের আশা চাষিরা ছেড়ে দিয়েছে।1498943521

কাদিপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুস সালাম জানান, তার ইউনিয়নের ১৬টি গ্রামের প্রায় ৬৫০০ পরিবার বন্যা কবলিত হয়ে অনাহারে অর্ধহারে দিন যাপন করছেন। গ্রামগুলিতে যে সব বাড়ির মাটির দেয়াল রয়েছে তা ধসে পড়ছে। কাজের অভাব দেখা দিয়েছে। অনেকগুলো প্রাথমিক বিদ্যালয়ে আশ্রয় শিবির খোলা হয়েছে। কুলাউড়া-গুপ্তগ্রাম ভায়া ছকাপন পাকা সড়কের উপর দিয়ে ৪ ফুট পানি প্রবাহিত হচ্ছে।

জয়চন্ডি ইউনিয়নের ইউপি সদস্য লোকমান মিয়া চেয়ারম্যান কমর উদ্দিন কমরুর বরাত দিয়ে জানান, তার ইউনিয়নের ১৯টি গ্রামের ৫৬০০ পরিবার বন্যা কবলিত হয়ে পড়েছে। বন্যার পানি বৃদ্ধি অব্যাহত আছে।

কুলাউড়া পৌর সদরের নিম্নাঞ্চল জলমগ্ন হয়ে পড়েছে। পৌরসভার রাবেয়া আদর্শ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পাঠদান বন্ধ রাখা হয়েছে। কুলাউড়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার চৌধুরী মোঃ গোলাম রাব্বি জানান, উপজেলার বন্যা কবলিত এলাকায় ৮টি আশ্রয় শিবির খোলা হয়েছে।

বালাগঞ্জ-ওসমানীনগরে ৩

লক্ষাধিক মানুষ পানিবন্দি

ওসমানীনগর  সংবাদদাতা জানান, টানা বৃষ্টিপাত ও উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলে প্রতিদিনই সিলেটের বালাগঞ্জ-ওসমানীনগর উপজেলার নতুন নতুন এলাকা প্লাবিত হচ্ছে। গত এক সপ্তাহে দুই উপজেলায় পানিবন্দি মানুষের সংখ্যা প্রায় তিন লক্ষাধিকের উপরে দাঁড়িয়েছে বলে জানা গেছে। ইতোমধ্যে দুই উপজেলার ১৮৪টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মধ্যে দেড় শতাধিক প্রাথমিক বিদ্যালয় বন্যা প্লাবিত হওয়ায় উপজেলার প্রায় ৫১ হাজার শিক্ষার্থীর মধ্যে ৪০ হাজার শিক্ষার্থীর পাঠ দান বন্ধ হয়ে গেছে।

ওসমানীনগরের উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মনিরুজ্জামান বলেন, ইতোমধ্যে উপেজলার অধিকাংশ এলাকা বন্যা প্লাবিত। উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে মনিটরিং সেল গঠন করে সবদিকে নজর রাখা হচ্ছে। বন্যাপ্লাবিত বিদ্যালয়গুলোতে শিক্ষার্থীদের যাতে ক্ষতি না হয় সে জন্য প্রয়োজনে বিদ্যালয় ছুটি ঘোষণা করার জন্য উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তাকে বলেছি। বালাগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা প্রদীপ সিংহ বলেন, বালাগঞ্জ উপজেলার অধিকাংশ প্রশাসনিক ভবনসহ গোটা উপজেলাই এখন বন্যাপ্লাবিত।

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭, ০১৭১৭ ৬৮ ১২ ১৪ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: