সর্বশেষ আপডেট : ১ ঘন্টা আগে
শনিবার, ২২ জুলাই, ২০১৭, খ্রীষ্টাব্দ | ৭ শ্রাবণ ১৪২৪ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

সড়কে পানি বৃদ্ধি,বাস চলাচল বন্ধ : দুর্গত এলাকায় শুকনো খাবার ও বিশুদ্ধ পানির সংকট

1. daily sylhet 0-24মৌলভীবাজার জেলা প্রতিনিধি:: মৌলভীবাজারের বড়লেখায় বন্যা পরিস্থিতির চরম অবনতি ঘটেছে। মৌলভীবাজার-বড়লেখা আঞ্চলিক মহাসড়কে ঝুঁকি নিয়ে গত ৩ সপ্তাহ ধরে ২-৪টি যানবাহন চলাচল করলেও সড়কে পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় গত বৃহস্পতিবার বিকেল থেকে বাস চলাচল বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। গত ৩ সপ্তাহ ধরে উপজেলার ৫টি ইউনিয়নের প্রায় ৩০ হাজার মানুষ পানিবন্দী অবস্থায় রয়েছেন। ঘরবাড়ি পানিতে নিমজ্জিত হয়ে রান্নাবান্না করার মতো শুকনো কোনো জায়গা না থাকায় লোকজন সীমাহীন দুর্ভোগ পোহাচ্ছেন। আশ্রয় কেন্দ্রে আশ্রয় নেয়া গৃহহীন মানুষগুলো এখনও সরকারি ত্রাণ সহায়তা পায়নি। দুর্গত এলাকায় শুকনো খাবার ও বিশুদ্ধ পানির তীব্র সংকট দেখা দিয়েছে। এমনকি বিভিন্ন পানিবাহিত রোগের প্রাদুর্ভাব দেখা দিয়েছে।

সরেজমিনে উপজেলার তালিমপুর ও বর্ণি ইউনিয়নের প্রত্যেকটি গ্রামের শতভাগ ঘরবাড়ির আঙিনা, বসতঘর ২-৬ ফুট পর্যন্ত বন্যার পানিতে নিমজ্জিত থাকতে দেখা গেছে। রাস্তাঘাট তলিয়ে থাকায় বাজার-হাট করাও তাদের পক্ষে সম্ভব হচ্ছে না। হাজার হাজার পানিবন্দী মানুষ অবর্ণনীয় দুর্ভোগ পোহাচ্ছেন। বন্যাদুর্গত এলাকায় এখনও সরকারি ত্রাণ সহায়তা দেয়া হয়নি বলে লোকজন অভিযোগ করেছেন। রান্না করার মতো কোনো শুকনো জায়গাও অবশিষ্ট নেই। এর মধ্যে শুকনো খাবার ও বিশুদ্ধ পানির তীব্র সংকট দেখা দিয়েছে। প্রায় প্রতিদিনই হালকা ও মাঝারি বৃষ্টিপাত হচ্ছে। এতে হাওরে পানির চাপ ক্রমেই বাড়ছে।unnamed (3)

সুজানগর ইউনিয়নে ছিদ্দেক আলী বন্যা আশ্রয় কেন্দ্রে অবস্থানরত ভোলারকান্দি গ্রামের মনোয়ারা বেগম, লাকি বেগম জানান, গত কয়েকদিন থেকে এই স্কুলে আশ্রয়ে আছি। গত বৃহস্পতিবার রাতে তুফানে আমার বাড়ির ঘর ও টিন উড়িয়ে নিয়ে যায় হাওরে। বর্তমানে এখানে খাবার ও পানির সমস্যায় আছি। আশ্রয় কেন্দ্রে এখন পর্যন্ত হুইপ সাহেব নগদ ৫০০ টাকা, লুঙ্গি, সেমাই, চিনি ও তেল এবং পিআইও কর্তৃক নগদ ৫০০ টাকা আর ইউএনও সাহেবের কিছু চিড়া ও মুড়ি ছাড়া এখন পর্যন্ত সরকারি কোনো সাহায্য পাইনি। খুবই কষ্টে আছি আমরা।

এদিকে উপজেলার মাধ্যমিক পর্যায়ের ১০টি, প্রাথমিক পর্যায়ের ৩৬টি ও মাদ্রাসা পর্যায়ে ৭টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে বন্যার পানি প্রবেশ করেছে। কোনো কোনো প্রতিষ্ঠানের মাঠ ছাড়াও শ্রেণীকক্ষ ও অফিসরুম তলিয়ে গেছে। গতকাল শনিবার (০১ জুলাই) ঈদের বন্ধ শেষে প্রতিষ্ঠানগুলো খুলেছে। ৬ জুলাই থেকে অর্ধবার্ষিক ও প্রাক-নির্বাচনী পরীক্ষার তারিখ নির্ধারিত রয়েছে। কিন্তু বন্যা পরিস্থিতির অবনতিতে স্থানীয় কর্তৃপক্ষ প্রতিষ্ঠানগুলো অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ ও পরীক্ষা স্থগিত ঘোষণার চিন্তা-ভাবনা করছে। শিক্ষার্থীরাও রয়েছে উদ্বিগ্ন। বিশেষ করে হাওর এলাকার শিক্ষার্থীদের উদ্বেগ একটু বেশিই।
তালিমপুর ইউপি চেয়ারম্যান বিদ্যুত কান্তি দাস জানান, এ ইউনিয়নের সবক’টি গ্রামের ঘরবাড়ি বন্যায় তলিয়ে গেছে। কিছুদিন বন্যা পরিস্থিতি অপরিবর্তিত থাকলেও বৃহস্পতিবার ভোরের বৃষ্টিতে পানি বাড়তে থাকে। হাজার হাজার মানুষ পানিবন্দী রয়েছেন। রান্না করে খাওয়ার মতো কোনো জায়গা শুকনো নেই। দুর্গত মানুষের মধ্যে হাহাকার চলছে। এখনও আশানুরূপ সরকারি সাহায্য-সহযোগিতা মিলেনি।
বড়লেখা বাস-মিনিবাস মালিক সমিতির সভাপতি ফয়জুল ইসলাম বড়লেখা-মৌলভীবাজার সড়কে বাস সার্ভিস বন্ধের সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, ঈদের পরদিন থেকে আমরা জেলা চাঁদনীঘাট মালিক সমিতির সভাপতি আলহাজ¦ আনছার আলীর সাথে যোগাযোগ করে এ সিদ্ধান্ত নিয়েছি। রাস্তার বিভিন্ন জায়গায় ভাঙা ও পানি বৃদ্ধি পেয়েছে। গাড়ি উল্টে যায়। এ পর্যায়ে ঝুঁকি নিয়ে বাস চালানো সম্ভব নয়। যে কোনো সময় দুর্ঘটনা ঘটতে পারে। দু’একটি বাস নিজ দায়িত্বে সার্ভিস চালু রেখেছে।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার এসএম আবদুল্লাহ আল মামুন জানান, প্রতিদিন বৃষ্টির কারণে হাওরে পানি বাড়ছে আর বসতি এলাকা নিমজ্জিত হচ্ছে। এ পর্যন্ত ৩টি বন্যা আশ্রয় কেন্দ্রে মোট ১১৫টি দুর্গত পরিবার আশ্রয় নিয়েছে। আশ্রয় কেন্দ্রগুলো পরির্দশন করেছি। দুর্গতদের জন্য ৩৯ মেট্রিক টন জিআর চাল ও জিআর ক্যাশ ৯৫ হাজার টাকা বরাদ্দ পাওয়া গেছে। এগুলো দ্রুত বিতরণের ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে। এছাড়া আরও বরাদ্দ প্রাপ্তির জন্য আবেদন করা হয়েছে।

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭, ০১৭১৭ ৬৮ ১২ ১৪ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: