সর্বশেষ আপডেট : ৮ মিনিট ২৬ সেকেন্ড আগে
সোমবার, ২০ নভেম্বর, ২০১৭, খ্রীষ্টাব্দ | ৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৪ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

বড়লেখায় টিলাধ্বস: দশ গ্রামের মানুষের যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন

unnamed (5)মৌলভীবাজার প্রতিনিধি:: মৌলভীবাজারের বড়লেখা উপজেলার দক্ষিণ শাহবাজপুর ইউনিয়নে ভারী বর্ষণে টিলাধ্বসে দু’টি রাস্তা বন্ধ হয়ে গেছে। এ কারণে গত এক সপ্তাহ থেকে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন অবস্থায় রয়েছেন সীমান্তবর্তী বোবারথল এলাকার ১০ গ্রামের প্রায় ১০ হাজার মানুষ। রাস্তা দু’টির ৬০-৬৫টি স্থানে টিলার মাটি ধ্বসে পড়েছে। এতে যান চলাচলও বন্ধ হয়ে গেছে। নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য ক্রয় ও এলাকায় উৎপাদিত কৃষিপণ্য বাজারজাত করা সম্ভব হচ্ছে না। গত ১৭ জুন রাতে প্রবল বর্ষণ ও পাহাড়ি ঢলে এই ধ্বসের ঘটনা ঘটে বলে এলাকাবাসী জানিয়েছেন। নির্বিচারে টিলাকাটা ও বৃক্ষ নিধনের ফলে এই এলাকায় এবার টিলার মাটি ধ্বসে পড়েছে।unnamed (13)

এলাকাবাসী সূত্র জানায়, দক্ষিণ শাহবাজপুর ইউনিয়নের ছোটলেখা বাজার-বোবারথল ১১ নম্বর সড়ক এবং উত্তর ডিমাই-অরথকি-গান্ধাই ভায়া বোবারথল রাস্তার বিভিন্ন স্থানে টিলার মাটিধ্বসে রাস্তার উপর মাটির স্তুপ জমে আছে। এতে এ সড়ক দু’টি দিয়ে চলাচলকারী যানবাহন বন্ধ হয়ে গেছে। এই এলাকার বাহন বলতে একমাত্র জীপ গাড়ি-ই এই কাঁচা সড়ক দু’টিতে চলাচল করে। লোকজন পাহাড় ডিঙিয়ে চলাচলের চেষ্টা করলেও নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য নিয়ে যাওয়া-আসা করা সম্ভব হচ্ছে না।

এই এলাকায় উৎপাদিত কাঁঠাল, লেবু, জারা লেবু, কলা ও পান বড়লেখা উপজেলা সদরের হাজীগঞ্জ বাজারে নিয়ে বিক্রি করতে পারছেন না এসব এলাকার লোকজন। এই পণ্যগুলোই এলাকাবাসীর একমাত্র আয়ের উৎস। গ্রামগুলো থেকে ছোটলেখা বাজার এবং উত্তর ডিমাই এলাকার দূরত্ব প্রায় ৮ কিলোমিটার। উপজেলা সদরের দূরত্ব প্রায় ১৫ কিলোমিটার। গত ১৭ জুন রাতে প্রবল বর্ষণে টিলাসমূহের মাটিধ্বসে অরথকি, গগনটিলা, দক্ষিণ গান্ধাই, মধ্য গান্ধাই, পশ্চিম গান্ধাই, বোবারথলসহ সড়ক দু’টির ৬০-৬৫টি স্থানে মাটিধ্বসে পড়েছে। এতে সড়ক যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে মধ্য গান্ধাই, দক্ষিণ গান্ধাই, পশ্চিম গান্ধাই, ফেকুছড়া, মধ্য ফেকুছড়া, ইসলামপুর, ষাটঘরি, উত্তর ষাটঘরি, করইছড়া এবং গান্ধাই পানপুঞ্জি গ্রামের বাসিন্দাদের।

এই গ্রামগুলোতে আদিবাসীসহ প্রায় ১০ হাজার মানুষ বসবাস করেন। গত ১ সপ্তাহ ধরে এই গ্রামগুলোর মানুষ উপজেলা সদরের সাথে সড়কপথে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন অবস্থায় রয়েছেন।
ভুক্তভোগী এলাকাবাসী জানান, বৃষ্টি বন্ধ হলেও এই রাস্তা স্বাভাবিক হতে কমপক্ষে এক মাস সময় লাগবে। রাস্তার বিভিন্ন স্থানে কাঠের সেতু ছিলো। এগুলো ভেঙে গেছে। লোকজন কাঁধভারে চালসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিস এলাকায় নিয়ে যাচ্ছেন। এছাড়া এলাকার উৎপাদিত পণ্য বিক্রি করতে না পারায় একেকজন কৃষকের লাখ থেকে দেড়লাখ টাকার ক্ষতি হচ্ছে। ফলে পরিবার-পরিজন নিয়েও চলা কষ্টসাধ্য হয়ে পড়েছে তাদের।

দক্ষিণ গান্ধাই গ্রামের মিজানুর রহমান জানান, টিলাধ্বসে রাস্তা বন্ধ হওয়ার কারণে পরিবার নিয়ে খুব কষ্টে আছি। গাড়ি চলাচলও বন্ধ। এলাকায় জীপ গাড়ি দিয়ে আমরা পণ্য আনা-নেওয়া করি। ৪টি জীপ গাড়ি দুই রাস্তায় প্রতিদিন চলতো। রাস্তা বন্ধ হওয়ায় কোনো কিছু আনা-নেওয়া করা যাচ্ছে না। এছাড়া গতকাল শনিবারও ফের বৃষ্টিপাত হওয়ায় রাস্তার বেহাল দশা হয়েছে।
উত্তর ষাটঘরি গ্রামের আতিকুল ইসলাম ও খায়রুল আলম জানান, এলাকার যোগাযোগ ব্যবস্থা একেবারে বিপর্যস্ত। হেঁটে যাওয়াও কঠিন। আধঘণ্টার রাস্তা যেতে এখন দু’ঘণ্টারও বেশি সময় লাগে। আমাদের কষ্ট দেখার যেনো কেউ নেই।

দক্ষিণ শাহবাজপুর ইউপি’র ৬নং ওয়ার্ডের সদস্য তাজ উদ্দিন জানান, এলাকায় যাওয়ার প্রধান দু’টি রাস্তা মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। রাস্তার অর্ধশতাধিক স্থানে টিলার মাটি ধ্বসে পড়েছে। এলাকার মানুষ যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন অবস্থায় রয়েছেন গত সপ্তাহ থেকে।
দক্ষিণ শাহবাজপুর ইউপি চেয়ারম্যান সাহাব উদ্দিন জানান, দু’টি রাস্তাই বন্ধ হয়ে গেছে। মাটি ও গাছপালা পড়েছে রাস্তার ওপর। চলাচলের জন্য রাস্তা মেরামত করতেও অন্তত একমাস লাগবে। গাড়ি চলার ব্যবস্থা হতে অন্তত তিন মাস লাগবে। হুইপ ও ইউএনও মহোদয়কে বিষয়টি বলেছি।

এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার এসএম আবদুল্লাহ আল মামুন জানান, খাড়া পাহাড়ের ভেতর দিয়ে রাস্তা। রাস্তার ওপর দিকে ভেঙে গেছে। এখানে রাস্তা করার জন্য বিশ্বব্যাংকের অর্থায়নে একটি প্রকল্প গ্রহণের উদ্যোগ নেয়া হচ্ছে।

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭, ০১৭১৭ ৬৮ ১২ ১৪ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: