সর্বশেষ আপডেট : ২১ মিনিট ২৩ সেকেন্ড আগে
বৃহস্পতিবার, ২১ সেপ্টেম্বর, ২০১৭, খ্রীষ্টাব্দ | ৬ আশ্বিন ১৪২৪ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

অনুমোদন পাচ্ছে আরও দু’টি সরকারি বিশ্ববিদ্যালয়: এভিয়েশন বিশ্ববিদ্যালয় চায় মৌলভীবাজারবাসী

122300_140মৌলভীবাজার প্রতিনিধি:: অনুমোদন পেতে যাচ্ছে নতুন আরও দু’টি সরকারি বিশ্ববিদ্যালয়। একটি ‘লক্ষ্মীপুর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ^বিদ্যালয়। আর অন্যটি হলো এভিয়েশন বিশ্ববিদ্যালয়’। এভিয়েশন বিশ্ববিদ্যালয়টি কোথায় স্থাপন করা হবে-এ বিষয়ে এখনও চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত হয়নি। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নতুন এই দুই সরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের বিষয়ে নীতিগত সিদ্ধান্ত দিয়েছেন বলে সংশ্লিষ্ট সূত্র জানিয়েছে।
এভিয়েশন বিশ্ববিদ্যালয়টি মৌলভীবাজার জেলার শমশেরনগর বিমানবন্দরে স্থাপন করার জোর দাবি- মৌলভীবাজারের সর্বস্তরের জনসাধারণের। এ নিয়ে এ জেলার বাসিন্দারা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ব্যাপক আলোচনা-সমালোচনা করছেন। বর্তমানে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন (ইউজিসি) খসড়া আইন তৈরির কাজ করছে বলে জানা গেছে।
সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, দেশে বিমান পাইলট, কারিগরি মেরামত ও পরিচালনায় এভিয়েশনের বিষয়ে পড়ালেখার চাহিদা ক্রমেই বাড়ছে। বিচ্ছিন্নভাবে দেশের বিভিন্ন স্থানে বেসরকারিভাবে শিক্ষার্থীদের এভিয়েশন বিষয়ে ডিগ্রি দেয়া হচ্ছে। এ বিষয়ে এখনও কোনো সরকারি উচ্চশিক্ষা প্রতিষ্ঠান গড়ে ওঠেনি। ফলে উচ্চশিক্ষার জন্য অনেক শিক্ষার্থী-ই বিদেশমুখী হয়ে থাকে। বিদেশমুখী প্রবণতা কমাতে তাই দেশে একটি সরকারি এভিয়েশন বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার।
মৌলভীবাজারে ওই বিশ^বিদ্যালয় স্থাপনের বিষয়ে সম্মতি জানিয়েছেন জাতীয় সংসদের হুইপ ও মৌলভীবাজার-১ (বড়লেখা-জুড়ী) আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ¦ শাহাব উদ্দিন, মৌলভীবাজার-৩ আসনের সংসদ সদস্য সৈয়দা সায়রা মহসিন, সাবেক চীফ হুইপ ও মৌলভীবাজার-৪ আসনের সংসদ সদস্য আব্দুস শহীদ, আব্দুল মতিন এমপি, জেলা পরিষদ প্রশাসক আজিজুর রহমান। এছাড়াও উপজেলা চেয়ারম্যানবৃন্দ, জেলা পরিষদের সদস্যবৃন্দ, ব্যবসায়ী, শিক্ষক, সমাজকর্মীসহ সর্বস্তরের মানুষ চান এভিয়েশন বিশ্ববিদ্যালয়টি যেনো শমশেরনগর বিমানবন্দরে স্থাপন করা হয়।
বিশিষ্টজনরা জানান, এখানে বিমানবাহিনীর ৬২২ একর জায়গা রয়েছে। পর্যাপ্ত জায়গা থাকায় অন্যের কাছ থেকে জায়গা অধিগ্রহণেরও প্রয়োজন হবে না। রেললাইন কিংবা সড়কপথে যোগাযোগেরও রয়েছে উন্নত ব্যবস্থা। দেশের যে কোনো প্রান্ত থেকে শিক্ষার্থীরা সহজেই শমশেরনগরে যেতে পারবে। ইতোমধ্যে সিলেট বিভাগের সিলেট শহরে মেডিকেল কলেজ, শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় ও কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়; হবিগঞ্জ জেলায় মেডিকেল কলেজ ও সুনামগঞ্জ জেলায় মেডিকেল কলেজ স্থাপন করা হয়েছে। সুনামগঞ্জে আরেকটি বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপনের কাজও প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। কিন্তু বৃহত্তর জনগোষ্ঠি অধ্যূষিত মৌলভীবাজার জেলায় কোনো মেডিকেল কলেজ কিংবা বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপন করা হয়নি। অদ্যাবধি স্থাপনের বিষয়েও কোনো সম্ভাবনা পরিলক্ষিত হয়নি।
মৌলভীবাজারবাসী চান, যেহেতু এটা বিমানবাহিনীর সাথে সংশ্লিষ্ট তাই এই পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়টি মৌলভীবাজারের শমশেরনগর বিমানবন্দরে স্থাপন করা হোক।
শিক্ষা মন্ত্রণালয় সূত্র জানায়, এভিয়েশন বিশ্ববিদ্যালয়টি ঢাকায় বা তার অদূরে স্থাপনের কথা রয়েছে। ইতোমধ্যে জমি খোঁজার কাজ শুরু হয়েছে। আইন তৈরির পরেই জমির বিষয়টি চূড়ান্ত করা হবে। খসড়াটি মন্ত্রী পরিষদের নীতিগত সিদ্ধান্ত পাবার পর তা আইন মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হবে। আইনটি চূড়ান্ত অনুমোদনের জন্য পরে সংসদে উত্থাপন করা হবে। সেখান থেকে অনুমোদনের পর বিশ্ববিদ্যালয় দু’টি স্থাপনের কার্যক্রম শুরু করা হবে।
অনুসন্ধানে জানা গেছে, ১৯৪৫ সালে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় জাপান, মিয়ানমার, মালয়েশিয়া ও ইন্দোনেশিয়ায় অভিযান চালানোর জন্য ব্রিটিশ সরকার মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলার শমশেরনগর চা বাগানের ৬২২ একর ভূমি অধিগ্রহণ করে এখানে একটি বিমানবন্দর গড়ে তোলে। ব্রিটিশ আমলে ওই বিমানবন্দরটি ‘দিলজান্দ বন্দর’ নামেই ব্যাপক পরিচিত ছিলো। বিমানবন্দরটিতে ৬ হাজার ফুট দীর্ঘ ও ৭৫ ফুট প্রশস্ত রানওয়ে রয়েছে। ১৯৭৫ সালে এখানে বিমানবাহিনীর একটি প্রশিক্ষণ ইউনিটও খোলা হয়। পরবর্তী সময়ে এখানে বিমানবাহিনীর একটি পরীক্ষণ স্কুল স্থাপন করে চালু করা হয় বার্ষিক প্রশিক্ষণ কেন্দ্র। তখন থেকেই প্রয়োজন অনুযায়ী বিমানবাহিনীর প্রশিক্ষণ বিমান ও হেলিকপ্টার ওঠানামা করছে। বর্তমানে বিমানবন্দরের অবহেলিত ও পতিত ভূমি ব্যবহার করে গড়ে তোলা হয়েছে বিশাল কৃষি খামার। এখানে বিমানবাহিনীর রিক্রুটমেন্ট অফিসও খোলা হয়েছে। সংস্কার করা হয়েছে রানওয়ের অল্পকিছু অংশ। ২০১২ সালে বিএএফ শাহীন কলেজের কার্যক্রম শুরু করা হয়। এই প্রতিষ্ঠানটি এখন জেলার সর্বোচ্চ প্রতিষ্ঠান হিসেবে স্বীকৃতিও পেয়েছে।
বিমানবন্দরটিতে প্রতিবছর বাংলাদেশ বিমানবাহিনীর জাতীয় ক্যাডেট কোর বিমান শাখার সদস্যদের অগ্নি নির্বাপণ, প্রাথমিক চিকিৎসা, রাডার নিরাপত্তা, ফায়ারিংসহ অন্যান্য প্রয়োজনীয় বিষয়ে প্রশিক্ষণ দেয়া হয়।
এভিয়েশন বিশ্ববিদ্যালয় মৌলভীবাজারের শমশেরনগরে স্থাপনের বিষয়ে সম্মতি প্রকাশ করে মৌলভীবাজার-৩ আসনের এমপি প্রয়াত সমাজকল্যাণমন্ত্রীর স্ত্রী সৈয়দা সায়রা মহসিন জানান, বিষয়টি আগে জানতাম না। এখন জেনেছি, আগামীতে সংসদে এ নিয়ে কথা বলবো।
মৌলভীবাজার-৪ আসনের সদস্য সদস্য ও সাবেক চীফ হুইপ উপাধ্যক্ষ আব্দুস শহীদ জানান, এটা শুধু মৌলভীবাজারবাসীর নয় পুরো দেশবাসীর দাবি হওয়া উচিত-বিশ^বিদ্যালয়টি যেনো শমশেরনগর বিমানবন্দর এলাকায় স্থাপন করা হয়।
মৌলভীবাজার জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান, বীর মুক্তিযোদ্ধা, সাবেক তিনবারের এমপি ও অন্যতম সংবিধান প্রণেতা আজিজুর রহমান জানান, আমি একজন সংবিধান রচয়িতা হিসেবে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে অনুরোধ জানাচ্ছি-এই এভিয়েশন বিশ্ববিদ্যালয়টি যাতে শমশেরনগর বিমানবন্দর এলাকায় স্থাপন করা হয়। এখানে পর্যাপ্ত জায়গাও রয়েছে। ফলে অন্যের কাছ থেকে জমি অধিগ্রহণের দরকার হবে না।
এ বিষয়ে মৌলভীবাজার শিক্ষা ও সামাজিক উন্নয়ন ফোরামের জেলা সভাপতি লেখক ও কলামিষ্ট আবু তাহের জানান, আমি মনে করি-এভিয়েশন বিশ্ববিদ্যালয় যেহেতু বিমানবাহিনীর সাথে সম্পর্কযুক্ত তাই শমশেরনগর বিমানবন্দরে পর্যাপ্ত জায়গা থাকায় এটা এখানে স্থাপন করা যুক্তিযুক্ত।

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭, ০১৭১৭ ৬৮ ১২ ১৪ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: