সর্বশেষ আপডেট : ৯ ঘন্টা আগে
মঙ্গলবার, ২৭ জুন, ২০১৭, খ্রীষ্টাব্দ | ১৩ আষাঢ় ১৪২৪ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

দোয়ারাবাজারে লক্ষাধিক মানুষ পানিবন্দি : ঘূর্ণিঝড়ে লন্ডভন্ড ২০ বাড়িঘর

v`wতাজুল ইসলাম, দোয়ারাবাজার:: অব্যাহত ভারি বর্ষণ ও উজান থেকে নেমে আসা আকস্মিক পাহাড়ি ঢলে শনিবার সকাল থেকে সৃষ্ট বন্যায় দোয়ারাবাজারে পানিবন্দি হয়ে পড়েছেন লক্ষাধিক মানুষ। তলিয়ে গেছে সহস্রাধিক হেক্টর আউশ, মুরালী ফসল, আমনের বীজতলা ও রবিশস্য। ঢলের তোড়ে ভেসে গেছে অর্ধশতাধিক পুকুরের কোটি টাকার মাছ।

এদিকে শনিবার ভোর ৪টার দিকে প্রলয়ংকরী ঘূর্ণিঝড়ের ছোবলে উপজেলার সুরমা ইউনিয়নের গিরিশনগর গ্রামের সরাফত আলী, গোলাপ মিয়া, অল্পত আলী, সুহেল মিয়া, কাসু মিয়া, সাহারা খাতুন, মুক্তার হোসেন, মুক্তিযোদ্ধা শাহাব উদ্দিন, বরকতনগর গ্রামের সুনাহর আলী, আব্দুল কাদির, বাটুল মিয়া, ফরিদ উদ্দিন, বাতির মিয়া ও দিলওয়ারা বেগম সহ ২০টি বাড়ির টিনের চালাসহ ঘরদরজা উড়িয়ে নিয়েছে। এ যেন মরার উপর খরার ঘা। এময় বরকতনগর গ্রামের সুনাহর আলী, তার স্ত্রী রংভানু, আব্দুল কাদির, জসিম উদ্দিন, হেলেনা বেগম, শিশু বাতির ও আঁখিসহ অন্তত ১০জন গুরুতর আহত হয়েছেন। বিধ্বস্ত বাড়িঘরের লোকজন এখন খোলা আকাশের নিচে মানবেতর জীবনযাপন করছেন।

সুরমা ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান শাহজাহান মাস্টার জানান, গিরিশনগর, মামনপুর, টিলাগাঁও, শিমুলতলা, কাওয়ারগড়, রাজনগর, খৈয়াজুরি, ইসলামপুর, শান্তিপুর, মহ্বতপুর, মহ্বতপুর বাজার, বগুলাবাজার ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আরিফুল ইসলাম জুয়েল জানান, ক্যাম্পেরঘাট, আলমখালী, পেশকারগাঁও, বগুলাবাজার, নোয়াডর, বাগাহনা, কাঠালতলী, ইদুকোনা, আন্দাইরগাঁও, সোনাচড়া, বালিচড়া, রামনগর, ধর্মপুর, তেরাকুড়ি, কান্দাগাঁও, নরসিংপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান নূর উদ্দিন আহমদ জানান, শামারগাঁও, তেরাপুর, শ্রীপুর, বিচঙ্গেরগাঁও, বালিউরা বাজার, নেতরছই, উত্তর নেতরছই, রঘারপাড়, খুরমারগাঁও, নরসিংপুর, সিরাজপুর, বীরেন্দ্রনগর, সোনাপুর, সারফিনপাড়া, রহিমেরপাড়া, দৌলতপুর, মন্তাজনগর, নছরনগর, ঘিলাছড়া, নরসিংপুর বাজার, বাংলাবাজার ইউনিয়নের বাঁশতলা, কলোনি, ঝুমগাঁও, কলাউরা, জাহাঙ্গীরগাঁও, ঘিলাতলি, বড়খাল, মৌলারপাড়, ছনুগাঁও, দোয়ারা সদর ইউনয়নের টেবলাই, পরমেশ্বরীপুর, চাঁনপুর, বড়বন্দ, বীরসিংসহ উপজেলার শতাধিক গ্রাম প্লাবিত হওয়াতে জনজীবন বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে।

বগুলাবাজার ইউনিয়নের চিলাই নদীর বেড়িবাঁধের চার স্থানে ভেঙে যাওয়ায় এবং সুরমা ইউনিয়ননের মরা খাসিয়ামারা নদীর বেড়িবাঁধের পুরনো ভাঙা দিয়ে পাহাড়ি ঢলের পানি দ্রুত ছড়িয়ে পড়ায় এ রিপোর্ট লিখা পর্যন্ত বন্যার পানি হু হু করে দ্রুত বৃদ্ধি পাচ্ছে। উপজেলা নির্বাহী অফিসার তারেক মোহাম্মদ জাকারিয়া, উপজেলা চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ ইদ্রিস আলী বীরপ্রতীক, সহকারী কমিশনার (ভূমি) প্রশান্ত কুমার বিশ্বাস, ওসি এনামুল হক উপদ্রুত এলাকা পরিদর্শনে রয়েছেন।

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭, ০১৭১৭ ৬৮ ১২ ১৪ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: