সর্বশেষ আপডেট : ৩ মিনিট ৩৮ সেকেন্ড আগে
রবিবার, ২০ অগাস্ট, ২০১৭, খ্রীষ্টাব্দ | ৫ ভাদ্র ১৪২৪ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

শ্রীমঙ্গলে জমেনি ঈদ বাজার, দুশ্চিন্তায় ব্যবসায়ীরা

unnamed (15)তোফায়েল আহমেদ পাপ্পু, শ্রীমঙ্গল:: ঈদ মানে হাসি। আর ঈদ মানে আনন্দ। ঈদ আসলেই সবার আগে মনে পড়ে যায় নতুন জামা কাপড়ের কথা। সকল ছুটছে সকল বয়সী মানুষের পোশাক কেনার জন্য । দাম যাই হক না কেন পরিবারের সকলের জন্য পোশাক চাই চাই।

ঈদের বাকি হাতে গুনা ক দিন। কিন্তু এরই মধ্যে শ্রীমঙ্গল শহরের বিপনী বিতানগুলোতে দেখা দিয়েছে ঈদের আমেজ। ছুটির দিনে শুক্রবার প্রায় দিনভর বিপনী বিতানগুলো ছিল ক্রেতা-দর্শনার্থীর উপচে পড়া ভিড়। তবে বিক্রেতারা জানিয়েছেন, এ ভিড় শুধুই পণ্য দেখার জন্য। মার্কেটে আগত মানুষের বেশির ভাগই পণ্য কিনছেন না। ঘুরে ঘুরে দেখছেন। পছন্দ হলে কিনে নিচ্ছেন তবে পরিমাণে তা খুবই কম। দোকানগুলোতে ঈদকে ঘিরে স্তরে স্তরে সাজানো হয়েছে নতুন নতুন বাহারি রং ও ঢংয়ের কাপড়। কেউ দর-দাম করছেন। কেউ বা পছন্দ হলে কিনে নিচ্ছেন। এছাড়া বিক্রয়-কর্মীরাও ঈদ উপলক্ষে আসা নতুন ডিজাইনের কাপড় ও গুনাগুণ জানিয়ে ক্রেতাদের কেনার আগ্রহ তৈরির করার চেষ্টা করছেন।

শুক্রবার (১৬জুন) সরেজমিনে দেখা যায় ক্রেতাদের ভীড় কম থাকায় অলস সময় আড্ডা মেরে কাটাতে হচ্ছে ব্যবসায়ীদের। তবে তারা বলছেন দু’এক দিনের মধ্যেই বিক্রি জমজমাট হতে পারে। শ্রীমঙ্গলের উল্লেখযোগ্য কয়েকটি মার্কেটের মধ্যে এম বি ল্যাজিসি, মিদাদ পিং মহল, শাপলা সুপার মার্কেট, ফসিউর রহমান মার্কেট, মিতালী ম্যানশন, নিউ মার্কেট সমূহ ছাড়াও ছোট বড় অনেক দোকানসহ অস্থায়ী দোকানগুলোতেও ক্রেতাদের উপস্থিতি তেমন লক্ষ করা যাচ্ছে না। জানা যায় রমজানের প্রথম সপ্তাহ থেকে বাজারের প্রত্যেকটি দোকানে মন্দাভাব যাচ্ছে। ফলে অধিকাংশ মার্কেটের দোকানগুলো রয়েছে ক্রেতা শুণ্য। তাই দুশ্চিন্তায় ব্যবসায়ীরা। তবে ২৫ রমজানের পরে ক্রেতাদের ভীড় বাড়তে পারে বলে আশা রাখছেন জানিয়েছেন ব্যবসায়ীরা।

ক্রেতাদের সাথে কথা বলে জানা যায় বর্তমান সময়ে কাপড়ের দাম বেশি থাকার কারণে এবছর উচ্চ ভিত্তদের খুব একটা সমস্যা না হলেও মধ্যভিত্ত পরিবারের লোকজন ঈদের নতুন কাপড় কিনতে রীতিমত হিমশিম খাচ্ছে। তবুও তার সাধ্য অনুযায়ী কেনা কাটা করবেন।
শপিং করতে আসা একজন ক্রেতা বলেন, বেসরকারী চাকরীজীবিরা বেতন বোনাস না পাওয়ায় ঈদের বাজারে এর প্রভাব পরেছে। ও ব্যবসায়ী রুবেল আহমেদ বলছেন, দাম একটু বেশি।

ব্যবসায়ীরা জানায় প্রতি বছরই ১০ থেকে ১৫ রমজানের পর ক্রেতাদের পদচারনায় মুখরিত হয়ে ওঠে শ্রীমঙ্গলের ঈদের বাজার। তাই ক্রেতাদের নজর কাড়তে অধিকাংশ দোকানে নতুন সব পন্যের পসরা সাজিয়ে বসেছে দোকানিরা। কিন্তু অন্যান্য বছরের তুলনায় এ বছর এখন পর্যন্ত ঈদের বাজার তেমন জমে উঠেনি। ক্রেতা সাধারনের সমাগম বাড়লেও তেমন একটা বিক্রি নেই বলে জানিয়েছেন শ্রীমঙ্গলের ব্যাবসায়ীরা। দাম বেশি বলে ক্রেতারা হিমশিম খাচ্ছে। তবে চাকরিজীবিরা বেতন-বোনাস হাতে পেলে ২-৩ দিনের মধ্যেই ঈদ বাজার জমে উঠবে বলেএমটাই আশা করছেন ব্যাবসায়ীরা ।

এদিকে শ্রীমঙ্গলের জুতার দোকান গুলোতে রয়েছে বাহারি ডিজাইনের জুতা। শ্রীমঙ্গল শহরের অ্যাপাচি সুজ’র প্রোপাইটর আমজাদ হোসেন বাচ্চু জানান গত বছরের চেয়ে এবছর আরো বাহারী ডিজাইনের জুতা দোকানে সাজিয়ে রেখেছেন। এবছর আরো দ্বিগুন নতুন মাল দোকানে তুলেছেন কিন্তু সে তুলনায় ক্রেতা নেই। ফলে হিমশিম খাচ্ছেন। অপর দিকে স্বর্নের দাম বেশি থাকায় তরুণীরা ঝুকছেন ইমিটেশনের দোকানে। সামাদ কসমেটিকস’র প্রোপাইটর এম এল এইচ লোকমান বলেন এবার ক্রেতা নেই অলস সময় কাটাতে হচ্ছে এবছর দোকানে দ্বিগুন ইনভেস্ট করেছেন সে তুলনায় ক্রেতা নেই। তবে আশা প্রকাশ করে বলেন, কয়েক দিনের মধ্যে ক্রেতাদের ভীড়ে ঈদ বাজার মুখরিত হয়ে উঠবে।
শ্রীমঙ্গলের স্থানীয় সংশ্লিষ্টরা মনে করছেন একদিকে মাঝে মাঝে বৃষ্টি তাছাড়া চাকুরীজীবীদের বেতন বোনাস না এখনও না হওয়ায় এবার ঈদের বাজার জমে উঠেনি। তবে ২৫ রমজানের শেষের দিকে এবারের ঈদের বাজার পুরোদমে জমে উঠবে বলে আশা ব্যক্ত করেন।

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭, ০১৭১৭ ৬৮ ১২ ১৪ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: