সর্বশেষ আপডেট : ১৬ মিনিট ২৩ সেকেন্ড আগে
বৃহস্পতিবার, ২১ সেপ্টেম্বর, ২০১৭, খ্রীষ্টাব্দ | ৬ আশ্বিন ১৪২৪ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

বিশ্বনাথে চাচাতো ভাই কর্তৃক প্রবাসীর সম্পত্তি দখলের অভিযোগ

unnamed (15)বিশ্বনাথে চাচাতো ভাই কর্তৃক যুক্তরাজ্য প্রবাসীর পৈত্রিক সম্পত্তি দখলের অভিযোগ পাওয়া গেছে। সম্পত্তি উদ্ধারে আদালতের স্মরণাপন্ন হওয়ায় সাক্ষী ও বাদীকে প্রাণনাশের হুমকি দেয়া হচ্ছে। বুধবার সিলেট প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলনে এমন অভিযোগ করেন বিশ্বনাথ উপজেলার টেংরা বাঘমারা গ্রামের মৃত ইরশাদ আলীর পুত্র যুক্তরাজ্য প্রবাসী মো. মাসুক মিয়া।

লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন, তার চাচাতো ভাই মৃত ইসমাইল আলীর পুত্র মনু মিয়া ও টুনু মিয়া ও সৎ ভাই লিলু মিয়া তাকে তার পৈত্রিক সম্পত্তি থেকে বঞ্চিত করতে উঠেপড়ে লেগেছে। পৈত্রিক সম্পত্তির ১০ শতক ভূমি আদালতের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে জোরপূর্বক বাসা নির্মাণ করে দখলে নিয়েছে। বর্তমানে মনু মিয়া মামলার সাক্ষীদের বিভিন্ন রকম ভয়ভীতি প্রদর্শন করায় সাক্ষী দিতে সাহস পাচ্ছে না সাক্ষীরা।

তিনি বলেন, ২০০৫ সালের শেষের দিকে তার পিতা ও চাচাদের সম্পত্তি মৌখিকভাবে বাগবাটোয়ারা হয়। পিতার একমাত্র সন্তান হিসেবে তিনি বসতভিটায় ১০ শতক এবং বাড়ির উত্তরাংশে খালি জায়গায় আরো ১০ শতক ভূমির মালিকানা পান। বাটোয়ারার পরে তার অংশের ১০ শতক ভূমির গাছপালা কর্তন করে জোরপূর্বক বাসা নির্মাণ কাজ শুরু করে মনু মিয়া। বিষয়টি পুলিশকে জানালে পুলিশ কোনো পদক্ষেপ গ্রহণ করেনি। বাধ্য হয়ে তিনি আদালতের স্মরণাপন্ন হন। আদালত ভূমিতে সব ধরণের কর্মকান্ডে নিষেধাজ্ঞা প্রদান করেন। কিন্তু আদালতের নিষেধাজ্ঞা করে মনু মিয়া কাজ চালিয়ে যাওয়ায় থানা পুলিশকে অবগত করলেও পুলিশ কোনো ব্যবস্থা নেয়নি। এরপর তিনি এলাকার মুরব্বিয়ানসহ তৎকালীন সংসদ সদস্য শফিকুর রহমান চৌধুরীর দ্বারস্থ হন। কিন্তু একাধিকবার সালিশ বৈঠকে হলেও বিষয়টির সুরাহা হয়নি। তিনি বলেন, মনু মিয়ার পিতা ইসমাইল আলী তার অপর চাচা আব্দুর রহমানের অংশের ১০ শতক ভূমি ক্রয় করেন। এ ভূমির রেজিস্ট্রি দলিলে চৌহাদ্দায় মৌখিকভাবে আপোস বাটোয়ারার বিষয়টি উল্লেখ রয়েছে।

প্রবাসী মাসুক মিয়া আরো বলেন, বিশ্বনাথ থানা ও আদালতে মামলা দায়ের করলেও পুলিশ প্রভাবিত হয়ে কাগজপত্র পর্যালোচনা না করে তার বিরুদ্ধে এক তরফা প্রতিবেদন দিয়েছে। সঠিক তথ্য না জেনে পুলিশের এ ধরনের বিভ্রান্তিকর প্রতিবেদনের কারণে তিনি ন্যায় বিচার থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন এবং আর্থিকভাবে ক্ষতির সম্মুখিন হচ্ছেন। তার মামলার সাক্ষী তার সাবেক কেয়ারটেকার আব্দুল খালিক, মছব্বির আলী ও আবুল মিয়াসহ অন্যদের মনু মিয়া গংরা বিভিন্নভাবে হুমকি ধমকি ও ভয়ভীতি প্রদর্শন করছে। যাতে তারা আদালতে এসে সাক্ষী না দিতে পারে। আব্দুল খালিক ও মক্তার আলীকে সাদা কাগজে জোরপূর্বক দস্তখত নিতে চাপ দিয়েছে মনু মিয়া। ফলে আব্দুল খালিক প্রাণভয়ে সাক্ষী দিতে আসছে না। তার চাচা আব্দুর রহমান তার মাছের ফিশারিটি দখলের চেষ্টা করছেন। তার কেয়ারটেকার মৃত আইয়ূব উল্ল্যার পুত্র মক্তার আলী ও অপর কেয়ারটেকার আব্দুল আজিজের স্ত্রী কুসুম তারাকে মনু মিয়া বিভিন্নভাবে হুমকি দিয়ে বলেছে তার সাথে থাকলে এবং সম্পত্তি দেখাশুনা না করতে হুমকি দেয়। সংবাদ সম্মেলনে তিনি পৈত্রিক ভূমি ফিরে পেতে এবং মনু মিয়াদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য সিলেট রেঞ্জের ডিআইজি, সিলেটের জেলা প্রশাসক, পুলিশ সুপারসহ সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেন। – বিজ্ঞপ্তি

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭, ০১৭১৭ ৬৮ ১২ ১৪ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: