সর্বশেষ আপডেট : ১৯ মিনিট ৩৩ সেকেন্ড আগে
মঙ্গলবার, ১৭ অক্টোবর, ২০১৭, খ্রীষ্টাব্দ | ২ কার্তিক ১৪২৪ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

রাজশাহীতে বিয়ে করলেন রাউধার বাবা

image-36136নিউজ ডেস্ক:: মেয়ে রাউধার মৃত্যুর কারণ খুঁজতে এসে রাজশাহীতে বিয়ের পিঁড়িতে বসলেন মালদ্বীপের বাসিন্দা ডা. মোহাম্মদ আতিফ। বৃহস্পতিবার বিকালে রাজশাহীর আদালতে নোটারি পাবলিকের মাধ্যমে তিনি বিয়ে করেন।

ডা. আতিফের নতুন স্ত্রীর নাম কনকলতা খাতুন (৩০)। তিনি জেলার পবা উপজেলার নওহাটা পিল্লাপাড়া এলাকার মো. বদিউজ্জামানের মেয়ে। ডা. আতিফের ঠিকানা সংক্রান্ত জটিলতা থাকায় বিয়ের রেজিস্ট্রি এখনও হয়নি। তবে ধর্মীয় রীতি অনুযায়ী বিয়ে সম্পন্ন হয়েছে।

ডা. আতিফের একটি সূত্র জানায়, অনেকটা গোপনীয়তার সঙ্গে ডা. আতিফ বিয়ে করেছেন। আদালতে বিয়ের কাজ সম্পন্ন করে ডা. আতিফ নগরীর লক্ষ্মীপুর এলাকায় তার স্ত্রীর ভাড়া বাড়িতে ওঠেন। এখন থেকে তিনি সেখানেই থাকবেন। ডা. আতিফের নতুন স্ত্রী কনকলতা তার বোন রত্নার সঙ্গে থাকেন।

সূত্র জানায়, বিয়ের সময় ডা. আতিফের ঠিকানায় ক্রটির বিষয়টি ধরা পড়ে। সে কারণে তাকে রবিবার আবার আদালতে যেতে হবে। বিয়েতে ডা. আতিফের মালদ্বীপের ঠিকানা দেয়া হয়েছে বুলুকিয়া মেজো/১, মালদ্বীপ। নগরীর উপরভদ্রাকে রাজশাহীর ঠিকানা হিসেবে উল্লেখ করা হয়েছে।

বিয়ের বিষয়ে কথা বলতে বৃহস্পতিবার রাতে ডা. আতিফের মোবাইলে একাধিকবার ফোন করা হয়। তবে তিনি ধরেনি। বিয়ের বিষয়ে তার স্ত্রী কনকলতা ও তার পরিবারের সদস্যদের কেউই মুখ খুলতে রাজি হননি। কনকলতারও এর আগে বিয়ে হয়েছিল। তার আগের স্বামীও পেশায় চিকিৎসক ছিলেন বলে জানা গেছে।

গত ২৯ মার্চ রাজশাহীর ইসলামি ব্যাংক মেডিকেল কলেজের ছাত্রী হোস্টেলের ২০৯ নম্বর কক্ষ থেকে ডা. আতিফের মেয়ে রাউধা আতিফের (২৩) লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। ওই দিন রাতে নগরের শাহ মখদুম থানায় কলেজ কর্তৃপক্ষ একটি অপমৃত্যুর মামলা করে।

পরে রাউধার বাবা আদালতে হত্যা মামলা করেন। পুনঃময়নাতদন্তের জন্য রাউধার লাশটি উঠানোও হয়। বর্তমানে মামলাটি তদন্ত করছে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ। রাউধা মালদ্বীপের একজন উঠতি মডেল ছিলেন। ডাক্তারি পড়তে তিনি এসেছিলে রাজশাহী। রাউধা মারা যাওয়ার খবর পেয়ে পরদিন রাজশাহীতে আসেন তার বাবা ডা. মোহাম্মদ আতিফ।

জানা গেছে, রাউধার মা আমিনাথ মুহাররিমার সঙ্গে ডা. আতিফের দাম্পত্য কলহ ছিল। এ কারণে গত কয়েক বছর ধরে তিনি থাকতেন ভারতে। আর তার স্ত্রী আমিনাথ থাকতেন মালদ্বীপে। মেয়ের মৃত্যুর পর আমিনাথসহ পরিবারের নয় জন সদস্য রাজশাহী এসেছিলেন। কিছু দিন পর তারা দেশে ফিরলেও রাজশাহীতে অবস্থান করছিলেন ডা. আতিফ।

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭, ০১৭১৭ ৬৮ ১২ ১৪ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: