সর্বশেষ আপডেট : ৭ মিনিট ৫৩ সেকেন্ড আগে
বৃহস্পতিবার, ২২ জুন, ২০১৭, খ্রীষ্টাব্দ | ৮ আষাঢ় ১৪২৪ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

‘স্বাধীনতার পর ১৩ হাজার কোটি কালো টাকা সাদা হয়েছে’

1496984674নিউজ ডেস্ক:: অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত সংসদকে জানিয়েছেন, স্বাধীনতার পর থেকে এখন পর্যন্ত ১৩ হাজার ৩৭২ কোটি কালো টাকা সাদা করার সুযোগ দেওয়া হয়েছে। এ থেকে সরকারের রাজস্ব আয় হয়েছে ১ হাজার ৪৫৪ কোটি টাকা। সবচেয়ে বেশি পরিমাণ কালো টাকা সাদা হয়েছে ২০০৭-২০০৯ সালে দেশে জরুরি অবস্থাকালে সেনাসমর্থিত সরকারের সময়ে, যার পরিমাণ ৯ হাজার ৬৮২ কোটি ৯৯ লাখ টাকা। বৃহস্পতিবার সংসদে টেবিলে উপস্থাপিত প্রশ্নোত্তরে সরকারদলীয় সদস্য এম. আবদুল লতিফের এক প্রশ্নের জবাবে অর্থমন্ত্রী এ তথ্য জানান।

অর্থমন্ত্রীর দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, ১৯৭১-৭৫ সময়ে ২ কোটি ২৫ লাখ, ১৯৭৬-১৯৮০ সালে ৫০ কোটি ৭৬ লাখ, ১৯৮১-১৯৯০ পর্যন্ত সময়ে ৪৫ কোটি ৮৯ লাখ, ১৯৯১-১৯৯৬ সালে ১৫০ কোটি ৭৯ লাখ, ১৯৯৭-২০০০ সালে ৯৫০ কোটি ৪১ লাখ, ২০০১-২০০৬ সালে ৮২৭ কোটি ৭৪ লাখ, ২০০৭-২০০৯ সালে (সেনাসমর্থিত তত্ত্বাবধায়ক সরকার) ৯ হাজার ৬৮২ কোটি ৯৯ লাখ, ২০০৯-১৩ সময়ে ১ হাজার ৮০৫ কোটি টাকা এবং ২০১৩ থেকে এখন পর্যন্ত ৮৫৬ কোটি ৩০ লাখ টাকা সাদা করার সুযোগ দেওয়া হয়।

সরকারি দলের সদস্য এ কে এম রহমতুল্লাহর প্রশ্নের জবাবে মুহিত জানান, বিদ্যমান আয়কর আইন অনুযায়ী বাণিজ্যিকভাবে সব কিন্ডারগার্টেন, কেজি স্কুল বা মাদ্রাসাগুলোর অর্জিত আয় করযোগ্য। অন্যান্য করযোগ্য প্রতিষ্ঠানের মতো এসব প্রতিষ্ঠানের কর পরিগণনা করে রাজস্ব আদায় করা হচ্ছে। এছাড়া করযোগ্য আয় রয়েছে এরকম নতুন কিন্ডারগার্টেন, কেজি স্কুল বা মাদ্রাসাগুলো শনাক্তকরণের মাধ্যমে করনেটে অন্তর্ভুক্ত করার উদ্দেশে নিয়মিত জরিপকাজ অব্যাহত রয়েছে।

রেমিট্যান্স কমেছে

সংরক্ষিত মহিলা আসনের সদস্য পিনু খানের প্রশ্নের জবাবে অর্থমন্ত্রী জানান, ২০১৬-১৭ অর্থবছরে (জুলাই-এপ্রিল) ব্যাংকিং চ্যানেলে ৮১ হাজার ১০৮ কোটি টাকা রেমিট্যান্স এসেছে, যা আগের অর্থবছরের একই সময়ের তুলনায় ১৪ হাজার ৭৩৫ টাকা কম। ২০১৭-১৮ অর্থবছরে রেমিট্যান্স আহরণের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ১ লাখ ৪ হাজার কোটি টাকা।

এম. আব্দুল লতিফের প্রশ্নের জবাবে আবুল মাল আবদুল মুহিত সংসদকে জানান, ২০১৬ সালের ৩০ জুন পর্যন্ত সরকারি খাতের বাণিজ্যিক ও বিশেষায়িত ব্যাংকগুলোর লোকসানি শাখা ছিল ১ হাজার ৪০টি। মোট শাখা ৫ হাজার ১২৭টি। চলতি বছরের জুন পর্যন্ত দেশে আয়কর উপযোগী (টিআইএনধারী) ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানের সংখ্যা ২৯ লাখ ৩ হাজার ৫৯৪। ২০১৬-১৭ অর্থবছরে প্রায় ১৫ লাখ ৫২ হাজার ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠান আয়কর দিয়েছে।

মোবাইল ফোনের গ্রাহক ১৩ কোটি ৩১ লাখ : তারানা হালিম

সরকার দলীয় সদস্য আলী আজমের এক প্রশ্নের জবাবে ডাক ও টেলিযোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম সংসদকে জানান, চলতি বছরের এপ্রিল পর্যন্ত দেশে মোবাইল ফোনের গ্রাহক সংখ্যা ১৩ কোটি ৩১ লাখ ১৪ হাজার ২০৬। এরমধ্যে রবি+এয়ারটেলের গ্রাহক ৩ কোটি ৭৫ লাখ ২৮ হাজার ৫৬৩, বাংলালিংকের ৩ কোটি ১৩ লাখ ৪৮ হাজার ৮৪৯, গ্রামীণ ফোনের ৬ কোটি ৪ লাখ ৬ হাজার ২৭১ এবং টেলিটকের গ্রাহক ৩৮ লাখ ৩০ হাজার ৫২৩ জন।

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭, ০১৭১৭ ৬৮ ১২ ১৪ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: