সর্বশেষ আপডেট : ১২ মিনিট ১৩ সেকেন্ড আগে
বুধবার, ২০ সেপ্টেম্বর, ২০১৭, খ্রীষ্টাব্দ | ৫ আশ্বিন ১৪২৪ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

ইংলিশ মিডিয়ামে ফের খরচ বাড়বে

1496467175নিউজ ডেস্ক:: ইংলিশ মিডিয়াম স্কুলের ভ্যাট নিয়ে উচ্চ আদালতে মামলা বিচারাধীন থাকার মধ্যেই প্রস্তাবিত বাজেটে এই শিক্ষায় নতুন করে বাড়তি ভ্যাট আরোপ করা হয়েছে। বর্তমানে ইংলিশ মিডিয়াম স্কুলে সাড়ে সাত শতাংশ ভ্যাট রয়েছে। প্রস্তাবিত বাজেটে ভ্যাট বাড়িয়ে ১৫ শতাংশ করা হয়েছে। প্রস্তাবিত বাজেট অনুযায়ী ইংলিশ মিডিয়াম স্কুলে খরচ বাড়বে।

২০১৭-১৮ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটে ইংলিশ মিডিয়াম স্কুলের ভ্যাট বাড়ানোর কথা বলা হয়েছে। ভ্যাট হার একক করায় এখন থেকে এক্ষেত্রে ১৫ শতাংশ ভ্যাট আরোপ হবে। তবে ইংরেজি মাধ্যমের স্কুলের শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে সাড়ে সাত শতাংশ হারে ভ্যাট না নিতে নির্দেশনা রয়েছে সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগের। হাইকোর্টের রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর)। আপিলের নিষ্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত ভ্যাট আদায় না করার জন্য প্রধান বিচারপতি মৌখিক নির্দেশনা দিয়েছেন। এ কারণে ভ্যাট আদায় বন্ধ রয়েছে।

তবে আইনজীবীরা জানিয়েছেন, আপিলের নিষ্পত্তিতে হাইকোর্টের রায় যদি বহাল না থাকে সেক্ষেত্রে ১৫ শতাংশ ভ্যাট দিতে হবে শিক্ষার্থীদের। আর স্কুল কর্তৃপক্ষকে এই ভ্যাট প্রদানের নির্দেশ দেওয়া হলেও টিউশন ফি বাড়িয়ে শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে সম পরিমাণ অর্থ আদায় করে নেওয়া হবে। এমন শঙ্কা রয়েছে অভিভাবকদেরও।

তথ্য অনুযায়ী, ইংলিশ মিডিয়াম শিক্ষার্থীদের টিউশন ফির ওপর ২০১২ সালে ৪ দশমিক ৫ শতাংশ ভ্যাট আরোপ করে এনবিআর। ২০১৫ সালে এটি বৃদ্ধি করে সাড়ে ৭ শতাংশ হারে আরোপ করে। এক রিটের পরিপ্রেক্ষিতে গত বছরের ১২ ডিসেম্বর ভ্যাট আরোপের সিদ্ধান্তকে অবৈধ ঘোষণা করে হাইকোর্ট।

অন্যদিকে ইংলিশ মিডিয়াম স্কুলে নেওয়া সেশন ফি-কে অবৈধ ঘোষণা করায় স্কুল মিডিয়াম স্কুলগুলো শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে সেশন ফি নিচ্ছে না। তবে বছরের শুরুতে সেশন ফি না আদায় করলেও প্রতিমাসের টিউশন ফি বৃদ্ধি করা হয়েছে, যাতে সেশন ফি’র সমপরিমাণ আদায় হয়।

ইংলিশ মিডিয়াম স্কুলগুলো পরিচালনায় কোনো নির্দিষ্ট নীতিমালা না থাকায় বছর বছর তারা বাড়িয়ে চলেছে সেশন চার্জ, টিউশন ফি। এর মধ্যে আবার বাড়তি ভ্যাট প্রদান অভিভাবকদের ওপর বাড়তি চাপ। ‘রেজিস্ট্রেশন অব প্রাইভেট স্কুলস অর্ডিন্যান্স-১৯৬২’র অধীন ২০০৭ সালে ইংলিশ মিডিয়াম স্কুলগুলোর জন্য একটি নীতিমালা তৈরি করা হয়। কিন্তু ওই নীতিমালা যথাযথ ছিল না। এ কারণে নতুন করে নীতিমালা তৈরির কাজ চলছে।

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭, ০১৭১৭ ৬৮ ১২ ১৪ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: