সর্বশেষ আপডেট : ৩ ঘন্টা আগে
বুধবার, ২৩ অগাস্ট, ২০১৭, খ্রীষ্টাব্দ | ৮ ভাদ্র ১৪২৪ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

হামলার দুঃখ পাশে রেখে ইউরোপা লিগ জয় করল ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড

1495713968 স্পোর্টস ডেস্ক:: পল পগবা ও হেনরিক মাখিটারিয়ানের দুই অর্ধের দুই গোলে আয়াক্স আমস্টারডামকে ২-০ গোলে পরাজিত করে ইউরোপা লিগের শিরোপা জিতেছে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড। আর এর মাধ্যমে চ্যাম্পিয়নস লিগে খেলাও নিশ্চিত হলো রেড ডেভিলসদের।ম্যাচ শুরুর আগে দুই দলসহ সংশ্লিষ্ট সকলেই ম্যানচেস্টারের কনসার্টে সম্প্রতি সন্ত্রাসী হামলায় ২২জনের মৃত্যুতে এক মিনিট নিরবতা পালন করেন। ফাইনালের আবহকে ছাপিয়ে স্টোকহোমের ফ্রেন্ডস এরিনা স্টেডিয়ামে ইংলিশ সমর্থকরা এই ঘটনায় ছিলেন দারুনভাবে মর্মাহত। সারা স্টেডিয়াম জুড়ে ‘ম্যানচেস্টার ও ‘আমরা কখনই মরবোনা’ এই ব্যানারগুলো ছিল যেন তারই মূর্ত প্রতীক।
১৮ মিনিটেই ফ্রেঞ্চ সুপারস্টার পগবার গোলে এগিয়ে যায় ইউনাইটেড। এই ফ্রেঞ্চম্যানের ডিফ্লেকটেড শট আয়াক্সস গোলরক্ষক আন্দ্রে ওনানার আটকানোর সাধ্য ছিল না। এরপর দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতে কর্ণার থেকে মাখিটারিয়ান ফ্লিক করে যে গোল দিয়েছেন তাতে শুধু ইউনাইটেডের জয়ই নিশ্চিত হয়নি দারুন এই গোলের কারনে অনেকদিন তাকে মনে রাখবে সমর্থকরা। এই একটিমাত্র ইউরোপীয়ান শিরোপাই এতদিন পর্যন্ত ইউনাইটেডের কাছে অধরা ছিল।
ম্যাচ শেষে আবেগতাড়িত পগবা বলেছেন, আমরা জানি পুরো বিশ্বই আজ ম্যানচেস্টারের ঘটনায় দু:খিত। আমাদেরও সেই শোক কাটিয়ে ম্যাচের দিকে মনোযোগী হওয়াটা জরুরী ছিল। ম্যানচেস্টার- আমরা তাদের জন্যই এই শিরোপা জিতেছি। আমরা ইংল্যান্ডের জন্য খেলেছি, আমরা ম্যানচেস্টারের জন্য খেলেছি এবং ঐ ঘটনায় যারা নিহত হয়েছে আমরা তাদের জন্য খেলেছি। আমার জানতাম একটি গোল এই মৌসুমে আরেকটি শিরোপা জয়ের ভিত গড়ে দিবে। আমরা এটা করে দেখিয়েছি। আমরা সত্যিই গর্বিত। সবাই হয়ত বলবে আমাদের মৌসুমটা বাজে কেটেছে। কিন্তু এই শিরোপাটা আমাদের কাছে বিশাল অর্জন, এখন আমরা এটার গর্বিত মালিক। আমরা তিনটি শিরোপা জিতেছি, তাই এখন সময় উপভোগের।
ওল্ড ট্র্যাফোর্ডে হোসে মরিনহোর অধীনে প্রথম মৌসুমে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড লীগ কাপ ও কমিউনিটি শিল্ডের শিরোপাও জিতেছে। প্রিমিয়ার লীগে ষষ্ঠ স্থানে থেকে মৌসুম শেষ করার কারনে চ্যাম্পিয়নস লীগে খেলার জন্য ইউরোপা লীগের শিরোপাটা প্রয়োজন ছিল। ইউনাইটেড বস মরিনহো বলেছেন, লীগে চতুর্থ, তৃতীয় অথবা দ্বিতীয় স্থানে থেকে আমরা চ্যাম্পিয়নস লীগে খেলতে চেয়েছিলাম। কিন্তু যখন তা হয়নি তখন এই শিরোপাটা প্রয়োজন ছিল। সে কারনেই শিরোপাটা আমাদের কাছে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠে। ইউনাইটেড এখন বিশ্বের প্রতিটি শিরোপা অর্জন করার কৃতিত্ব দেখালো। প্রথম থেকেই আমরা এর জন্য লড়াই করেছি।
১৯৬৮ সালে ইউরোপীয়ান কাপ ফাইনালে জয়ী দলের আদলে কাল ইউনাইটেড নীল জার্সি গায়ে মাঠে নেমেছিল। প্রথম মিনিটে থেকেই তারা আক্রমনাত্মক কৌশলে খেলা শুরু করে। ফ্রেঞ্চ মিডফিল্ডার পগবার বেশ কয়েকটি প্রচেষ্টা ব্যর্থ হয়। তার সাথে অবশ্য স্ট্রাইকার মার্কোস রাশফোর্ডও আক্রমনে ছিলেন। মাত্র ১৬ বছর বয়সে জুভেন্টাস থেকে প্রথম ম্যানচেস্টারে যোগ দিয়েছিলেন পগবা। সেই সময় থেকেই ইউনাইটেডের দারুন ভক্ত এই ফ্রেঞ্চম্যান অবশ্য মাঝে আবারো জুভেন্টাসে ফিরে গিয়েছিলেন। কিন্ত গত মৌসুমে রেকর্ড চুক্তিতে আবারো পুরনো দলে ফিরে এসে নিজেকে একের পর এক প্রমান করেছেন। তারই ধারাবাহিকতায় দলকে প্রথম এগিয়ে দেন ২৪ বছর বয়সী এই মিডফিল্ডার। অবশ্য এই গোলে আয়াক্সের ডিফেন্ডার ডেভিনসন সানচেজের ডিফ্লেকশনও দায়ী। এই গোলে মরিনহো কোচিং স্টাফ ডাগ আউটে উদযপান করলেও পর্তুগীজ কোচ ছিলেন একেবারেই শান্ত।
ইউনাইটেডের শক্তিশালী লাইন আপের বিপরীতে আয়াক্স ইউরোপা ফাইনালের ইতিহাসে সবচেয়ে তরুন দল নিয়ে মাঠে নেমেছিল। সেমিফাইনালের প্রথম লেগে এই দল নিয়ে অলিম্পিক লিওনেইসের বিপক্ষে ৪-১ গোলে জয় তুলে নেয়ায় এর ওপরই আস্থা রেখেছিলেন কোচ পিটার বোজ। কিন্তু মারোনে ফেলাইনি, এ্যান্ডার হেরেরা, রাশফোর্ডদের অভিজ্ঞতার সামনে আয়াক্স পেরে উঠেনি। মধ্যমাঠের পুরো নিয়ন্ত্রনই ছিল ইউনাইটেডের কাছে। সেই ধারাবাহিকতায় ৪৮ মিনিটে একটি সেট পিস আক্রমন থেকে মাখিটারিয়ান গোল করে ইউনাইটেডের জয় নিশ্চিত করেন। বাসস।
নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭, ০১৭১৭ ৬৮ ১২ ১৪ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: