সর্বশেষ আপডেট : ৫১ সেকেন্ড আগে
শুক্রবার, ২৩ জুন, ২০১৭, খ্রীষ্টাব্দ | ৯ আষাঢ় ১৪২৪ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

সিলেটে পুলিশি বাধায় মিছিল করতে পারেনি বিএনপি

21maynewspic012নিজস্ব প্রতিবেদক ::
খালেদা জিয়ার কার্যালয়ে পুলিশি তল্লাশির প্রতিবাদে রেজিস্ট্রারি মাঠ থেকে পূর্বঘোষিত মিছিল বের করতে পারেনি সিলেট জেলা ও মহানগর বিএনপি। পরে রেজিস্ট্রারি মাঠে সমাবেশ করেন নেতাকর্মীরা।
গতকাল রোববার দুপুর ১২টার দিকে সিলেট জেলা ও মহানগর বিএনপির উদ্যোগে সমাবেশ শুরু হয়। সমাবেশ চলাকালে রেজিস্ট্রারি মাঠে বিপুল সংখ্যক পুলিশ মোতায়েন ছিল। এর আগে মিছিল নিয়ে বেরোতে চাইলে অনুমতি না থাকার অজুহাতে রেজিস্ট্রারি মাঠের ফটকেই নেতাকর্মীদের আটকে দেয় পুলিশ। এসময় দুই পক্ষে উত্তপ্ত বাক্য বিনিময় ও ধাক্কাধাক্কি হয়।
মিছিলে বাধা পেয়ে সমাবেশে বক্তারা বলেন, খালেদা জিয়া ভিশন ২০৩০ ঘোষণার পর জনগণের যে সাড়া জেগেছে, তাতে সরকার ভীতসন্ত্রস্ত হয়ে পড়েছে। তাই সরকার ঈর্ষান্বিত হয়ে তল্লাশির নামে খালেদা জিয়ার অফিসে ভাঙচুর চালিয়েছে। সরকার পতনের লক্ষ্যে বিএনপি নেতাকর্মীরা যখন উজ্জীবিত হয়ে ওঠেছেন, ঠিক তখন সরকার দমনপীড়নে নতুন করে মাঠে নেমেছে। তাঁরা বিএনপি নেতাকর্মীদের মামলা-হামলা করে রাজপথ থেকে দূরে সরানোর অপচেষ্টা চালাচ্ছে। কিন্তু সরকারের এসব অপকৌশল কাজে আসবে না।
সিলেট জেলা বিএনপির সভাপতি আবুল কাহের শামীমের সভাপতিত্বে ও মহানগর শাখার সাধারণ সম্পাদক বদরুজ্জামান সেলিমের পরিচালনায় সমাবেশে বক্তব্য রাখেন খালেদা জিয়ার উপদেষ্টা খন্দকার আবদুল মুক্তাদির, বিএনপির কেন্দ্রীয় কৃষি ও ক্ষুদ্র ঋণ সম্পাদক আবদুর রাজ্জাক, মহানগর বিএনপির সভাপতি নাসিম হোসাইন, জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আলী আহমদ।
সিলেট রেজিষ্টারী মাঠে অনুষ্ঠিত বিক্ষোভ সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে বিএনপি চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা খন্দকার আব্দুল মুক্তাদির বলেন, আওয়ামীলীগের একদলীয়, স্বৈরাচারী, বাকশালী অপশাসনের রাজনীতির বিপরীতে বেগম খালেদা খালেদা জিয়ার গনতান্ত্রিক উন্নয়নমুখী রাজনীতি দেখে তারা দিশেহারা হয়ে পড়েছে। রাজনৈতিক প্রতিহিংসার বশবর্তী হয়েই তিন বারের সাবেক সফল প্রধানমন্ত্রীর রাজনৈতিক কার্যালয়ে পুলিশী তল্লাশী ও ভাংচুর চালানো হয়েছে। এসব অপরাজনীতির জন্য অবশ্যই কঠোর মুল্য দিতে হবে।
সিলেট মহানগর বিএনপি সভাপতি নাসিম হোসাইন বলেন, আওয়ামী লীগ আদর্শিক রাজনীতিতে বিশ্বাস করেনা। তারা গায়ের জোরে দেশ পরিচালনা করছে। তিনবারের সাবেক সফল প্রধানমন্ত্রীর রাজনৈতিক কার্যালয়ে পুলিশী তল্লাশীর নামে হামলা ভাংচুর কোন সভ্য সরকারের কাজ হতে পারেনা। এজন্য জনতার আদালতে ক্ষমতাসীন অবৈধ সরকারের কর্তাব্যাক্তিদের জবাবদিহী করতে হবে।
বিক্ষোভ সমাবেশে বক্তব্য রাখেন ও উপস্থিত ছিলেন জেলা বিএনপির সহসভাপতি অ্যাডভোকেট আব্দুল গাফফার, মহানগর সহসভাপতি অ্যাডভোকেট ফয়জুর রহমান জাহেদ, সহসভাপতি অ্যাডভোকেট হাবিবুর রহমান হাবিব, সহসভাপতি সালেহ আহমদ খসরু, সহসভাপতি কাউন্সিলার ফরহাদ চৌধুরী শামীম, জেলা উপদেষ্ঠা প্রকৌশলী আশফাক আহমদ আসু, বিএনপির কেন্দ্রীয় সদস্য এডভোকেট হাদিয়া চৌধুরী মুন্নি, জেলা সহসভাপতি হাজী শাহাব উদ্দিন, মহানগর সহসভাপতি জিয়াউল গনি আরেফিন জিল্লুর, জেলা সহসভাপতি জালাল উদ্দিন চেয়ারম্যান, আজির উদ্দিন চেয়ারম্যান, উপদেষ্ঠা আব্দুস সালাম বাচ্ছু, মহানগর সহসভাপতি আব্দুস সাত্তার, সহসভাপতি অধ্যাপিকা সামিয়া বেগম চৌধুরী, জেলা উপদেষ্ঠা আহমেদুর রহমান চৌধুরী মিলু, উপদেষ্ঠা ইলিয়াস আলী মেম্বার, কছির উদ্দিন চেয়ারম্যান, মহানগর সহসভাপতি ফাত্তাহ বকশী, আমির হোসেন, সৈয়দ বাবুল হোসেন, কয়সর রশিদ চৌধুরী, জেলা যুগ্ম সম্পাদক মাহবুবুর রব চৌধুরী ফয়সল, মহানগর যুগ্ম সম্পাদক এমদাদ হোসেন চৌধুরী, এডভোকেট আতিকুর রহমান সাবু, হাজী মিলাদ আহমদ, হুমায়ুন আহমদ মাসুক, জেলা কোষাধ্যাক্ষ ডা. আরিফ আহমদ রিফা, জেলা সাংগঠনিক আবুল কাশেম, শামীম আহমদ, মহানগর সাংগঠনিক মুকুল মোর্শেদ, দপ্তর সম্পাদক সৈয়দ রেজাউল করিম আলো, জেলা দপ্তর সম্পাদক এডভোকেট মো: ফখরুল হক, প্রচার সম্পাদক নিজাম উদ্দিন জায়গীরদার, শ্রমিক দলের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক সুরমান আলী, মহানগর শ্রমিক দলের সাধারন সম্পাদক ইউনূছ মিয়া, মহানগর প্রকাশনা সম্পাদক জাকির হোসেন মজুমদার, জেলা প্রকাশনা সম্পাদক এডভোকেট আল আসলাম মুমিন, মহানগর আইন বিষয়ক সম্পাদক এডভোকেট রোকশানা বেগম শাহনাজ, জেলা যুব বিষয়ক সম্পাদক লুৎফুর রহমান, মহানগর যুব বিষয়ক সম্পাদক মির্জা বেলায়েত হোসেন লিটন, মহানগর স্বেচ্চাসেবক বিষয়ক সম্পাদক হাবিব আহমদ চৌধুরী শিলু, স্বাস্থ্য বিষয়ক সম্পাদক ডা. আশরাফ আলী, পরিবার কল্যান সম্পাদক লল্লিক আহমদ চৌধুরী, জেলা তথ্য ও গবেষনা সম্পাদক জুবায়ের আহমদ খান, মহানগর তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক সুহাদ রব চৌধুরী, জেলা মহিলা বিষয়ক সম্পাদিকা কাউন্সিলার সালেহা কবির শেপি, জেলা ধর্ম সম্পাদক আল মামুন খান, মহানগর মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক সম্পাদক আক্তার হোসেন মিন্টু, জেলা ক্রিড়া বিষয়ক সম্পাদক আনোয়ার হোসেন মানিক, মহানগর মানবাধিকার বিষয়ক সম্পাদক মুফতী নেহাল উদ্দিন, আপ্যায়ন সম্পাদক আফজাল উদ্দিন, সমবায় বিষয়ক সম্পাদক মামুনুর রহমান মামুন, বিএনপি নেতা আব্দুল জব্বার তুতু, জাকির হোসেন তালুকদার, আব্দুস সাত্তার মামুন, নুরুল আলম, আব্দুল হাকিম, বজলুর রহমান ফয়েজ, হাবিবুর রহমান হাবিব, জেবুল হোসেন ফাহিম, মুরাদ হোসেন, খয়রুজ্জামান, শেখ মু. ইলিয়াস আলী, লোকমান আহমদ, আব্দুল মালেক, বোরহান উদ্দিন, আব্দুল লতিফ খান, এডভোকেট খালেদ জুবায়ের, শাহ মাহমুদ আলী, আছমা বেগম রুমি, কুহিনুর ইয়াসমিন ঝর্না, এনামুল হক মাক্কু, শাহজাহান সেলিম বুলবুল, উজ্জল রঞ্জন চন্দ, সিরাজুল ইসলাম, শরিফ উদ্দিন মেহেদী, কয়েস আহমদ সাগর, মুফতি সাদিকুর রহমান, দিদার ইবনে তাহের লস্কর, আব্দুল মালেক, অ্যাডভোকেট ইসরাফিল আলী, দেলোয়ার হোসেন জয়, আমিন উদ্দিন, আব্দুর রহিম, খোকন ইসলাম, যুবদল নেতা মঈন উদ্দিন মঞ্জু, আশরাফ বাহার, নজরুল ইসলাম, লিটন আহমদ, রুমেল শাহ, কাজী মেরাজ ও আব্দুল কুদ্দুছ।

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭, ০১৭১৭ ৬৮ ১২ ১৪ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: