সর্বশেষ আপডেট : ২৫ মিনিট ১৮ সেকেন্ড আগে
শনিবার, ২১ অক্টোবর, ২০১৭, খ্রীষ্টাব্দ | ৬ কার্তিক ১৪২৪ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

নতুন বিশ্বশক্তি হিসেবে আবির্ভূত হতে যাচ্ছে চীন

1494576149আন্তর্জাতিক ডেস্ক:: পাকিস্তানে বিশাল অঙ্কের বিনিয়োগ থেকে শুরু করে দক্ষিণ সুদানে শান্তিচুক্তি বাস্তবায়নে সেনা মোতায়েন, নতুন বিশ্বশক্তি হিসেবে উত্থান হচ্ছে চীনের। মার্কিন সংবাদ সংস্থা- সিএনএন’র এক বিশেষ প্রতিবেদনে এমনটাই তুলে ধরা হয়েছে।
সিএনএনের ওই প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং তার ‘এক বেল্ট, এক রোড’ নীতিতে আগামী ১৪ ও ১৫ মে অনুষ্ঠিতে এক আন্তর্জাতিক সম্মেলনে বিশ্বব্যাপী বৃহৎ অর্থনৈতিক পরিকল্পনার উদ্বোধন করতে যাচ্ছেন। এশিয়ার ২৮ টি দেশের রাষ্ট্রপ্রধান ও ৬০ টিরও অধিক রাষ্ট্রের প্রতিনিধিদের সামনে তিনি চীনের পুরোনো বাণিজ্য ঐতিহ্যের ধারক ‘সিল্ক রোড’কে পুনস্থাপিত ও কার্যক্ষম করে বিশ্বকে নতুন অর্থনৈতিক শক্তির বার্তা দিতে চাচ্ছেন। আর এটিকে চীনের বিশ্বশক্তি হিসেবে বিবর্তনের পূর্ণাঙ্গ ধাপ বলে বিবেচনা করছেন বিশ্লেষকরা।
আর এশিয়ার পরাশক্তি হিসেবে দেশটির উত্থান ও বিশ্বব্যাপী চীনের প্রভাব বিস্তার করার ক্ষেত্রে পাঁচটি ক্যাটাগরির আওতায় তার কিছুটা তুলে ধরার চেষ্টা করেছে সিএনএন। প্রতিবেদনে দেশটির অর্থনৈতিক পরিবর্তন ও সংস্কৃতি, শিক্ষা, ভ্রমণ এবং সামরিক ক্ষমতার ভারসাম্য নিয়ে আলোকপাত করা হয়েছে।
দীর্ঘদিনের মিত্র পাকিস্তানে সঙ্গে ‘এক বেল্ট, এক রোড’ উদ্যোগের অংশ হিসেবে সড়ক নেটওয়ার্ক, ফাইবার অপটিক ক্যাবল প্রকল্প, রেল লাইন, একটি গভীর সমুদ্র বন্দর, কয়লা খনি এবং সৌর খামার স্থাপনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে চীন। এর আগে, ২০১৪ সালে ইসলামাবাদ সফরে প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং পাকিস্তানে ৪৬ বিলিয়ন ডলার বিনিয়োগের পরিকল্পনা ঘোষণা করেন। এছাড়া হিমালয় থেকে শুরু হওয়া সিল্ক রোডের কল্যানে পাকিস্তানের অর্থনৈতিক বিকাশ প্রায় ২০ শতাংশ বৃদ্ধি পাবে বলে ধারণা করা হচ্ছে।
উচ্চশিক্ষার ক্ষেত্রে পৃথিবীর যেকোনো দেশের চেয়ে এগিয়ে রয়েছে চীন। ২০০৮ সালের পর থেকে প্রায় ৩ লাখ ২৯ হাজার শিক্ষার্থী শুধু আমেরিকাতেই গেছেন উচ্চশিক্ষা নিতে। তাছাড়া প্রতিবছর অসংখ্য চীনা শিক্ষার্থী পৃথিবীর বিভিন্ন দেশ থেকে শিক্ষালাভ করে আবার দেশে ফিরে এসে কাজে যোগ দিচ্ছেন।
উন্নয়ন ও স্থাপনা তৈরিতেও যথেষ্ট এগিয়ে আছে চাইনিজরা। দরিদ্রপীড়িত আফ্রিকাকে অর্থনৈতিক ও যোগাযোগ ব্যবস্থায় আধুনিক মানে পোঁছে দিতে ব্যাপক পরিকল্পনা নিয়েছে চীন। এর মধ্যে, কেনিয়ার স্বাধীনতা পরবর্তী দেশটির সবচেয়ে বড় প্রকল্পে অনুদান দিয়েছে চীন। ৩ দশমিক ৪ বিলিয়ন ডলারের চীনা অনুদানে ৪৭২ কিলোমিটার দীর্ঘ রেলপথ চালু হচ্ছে কেনিয়াতে। এছাড়া ২০০৪ থেকে ২০১৪ সালের মধ্যে আফ্রিকার বিভিন্ন দেশে যোগাযোগ ব্যবস্থা স্থাপনের জন্য ১০ বিলিয়ন ডলার অনুদান দিয়েছে চীন।
প্রতিবছর সারা বিশ্বের প্রায় ১৩৫ মিলিয়ন নাগরিক চীনে ঘুরতে আসে বলে জানা গেছে। আর এতে দেশটির প্রায় ২৬১ বিলিয়ন ডলারের আয় হয়।
সবশেষে রয়েছে চীনের বিশাল সামরিক ক্ষমতার পূর্বাভাস। মার্কিন ও রাশিয়ান সামরিক বাহিনীকে টেক্কা দিয়ে অভ্যন্তরীণ ও প্রযুক্তিগত সকল ক্ষেত্রেই চীনা সামরিক বাহিনীর নতুন সফলতার খবর আসছে প্রতিনিয়ত। কিছুদিন আগেই দেশে তৈরি নতুন একটি পারমাণবিক শক্তিশালী নৌ-তরী উদ্বোধন করেছে দেশটি। এছাড়া সেনার সংখ্যা দিয়েও পৃথিবীর প্রথম আসনে রয়েছে চীন। সিএনএন।
নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭, ০১৭১৭ ৬৮ ১২ ১৪ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: