সর্বশেষ আপডেট : ২ মিনিট ২১ সেকেন্ড আগে
মঙ্গলবার, ২৩ মে, ২০১৭, খ্রীষ্টাব্দ | ৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৪ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

সুনামগঞ্জে হাওরে মরা মাছের দুর্গন্ধে জনস্বাস্থ্য হুমকির মুখে

19newspic2017__006দিরাই সংবাদদাতা ::
চৈত্র মাসের শেষ সপ্তাহে হাওরবেষ্টিত সুনামগঞ্জের সবক’টি হাওরের আধা পাকা ও কাঁচা বোরো ফসল অতিবৃষ্টি ও পাহাড়ি ঢলের কারনে অকাল বন্যায় তলিয়ে যায়। এতে বিপদে পড়েন হাওরপারের মানুষ। তলিয়ে যাওয়া হাওরের বোরো ধান কয়েক দিন পানির নিচে থাকায় জেলার সকল হাওর ও নদীর মাছ মরে ভেসে উঠছে। তলিয়ে যাওয়া ধান পঁচে অ্যমোনিয়া গ্যাস তৈরি হয়ে অক্সিজেন নষ্ট হওয়ায় হাওরের পানি দূষণের ফলে মাছ মরছে বলে মনে করছেন মৎস্য অফিস সংশ্লিষ্টরা। তবে হাওরপারের বাসিন্দারা এটি মানতে নারাজ। তাঁরা জানান, এর আগেও এভাবে অকাল বন্যায় হাওরে পানি এসেছিল; কিন্তু এভাবে মাছ মরতে দেখা যায়নি। উজানের পানিতে কোনো ধরনের রাসায়নিক বিষক্রিয়া আছে কিনা তা দ্রুত পরীক্ষা করে দেখতে সংশ্লিষ্টদের প্রতি দাবি জানিয়েছেন হাওরপারের মানুষ।

এদিকে গত ৪ দিন যাবৎ পোনা মাছ থেকে শুরু করে রুই, কাতলা, বোয়াল, গলদা চিংড়ি, পাবদাসহ দেশীয় সকল প্রজাতির মাছ মরে হাওরে ভাসতে থাকে। গত দু দিন থেকে হাওরবাসী জনসাধারণকে বিষাক্ত পানিতে ভেসে যাওয়া মাছ ধরা ও বাজারে বিক্রি না করতে পরামর্শ দিয়ে মাইকিং করে প্রচারণা চালাচ্ছে স্থানীয় প্রশাসন।

হাওরপারের বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা যায়, প্রতিটি হাওরে গ্রামের মানুষ যখন জীবন-জীবিকার একমাত্র অবলম্বন বোরো ধান হারিয়ে একেবারে নিঃস্ব, পরিবারের লোকদের জন্য একমুঠো ভাত জোগাড় করতে দিগবিদিক ছুটছেন দিশেহারা হয়ে। ঠিক তখনই হাওরের অথৈ পানিতে ভেসে উঠছে মরা মাছ। একই সাথে পচা পানির দুর্গন্ধ ছড়িয়ে পড়ছে বাতাসে। এতে হুমকির মুখে পড়েছে জনস্বাস্থ্য। ধান আর মৎস্য ভান্ডার খ্যাত হাওরপারে দুর্যোগ যেন কিছুতেই পিছু ছাড়ছে না।
অকাল বন্যায় দিরাই ও শাল্লা উপজেলার ছোটবড় ২৭টিসহ জেলার সবক’টি হাওরের কাঁচা ও আধা পাকা সোনালি ফসলের ধান গাছ সবুজ রং থাকতেই সম্পূর্ণ পানিতে নিমজ্জিত হয়ে যায়। অসময়ে ফসলহানির ঘটনায় কৃষকরা চোখে অন্ধকার দেখছেন।

হাওরবাসীরা জানান, ফসল হারানোর পর বেঁচে থাকার কিছুটা আশা ছিল হাওরের ভাসান পানিতে মাছ আহরণ করে। গত তিন দিন থেকে হাওরের পানিতে অনেক বড় বড় মাছ মরে ভেসে উঠছে। পানিতে দুর্গন্ধ। বছরের ছয় মাস মাছ শিকার করে জীবন-জীবিকা চলে হাওরবাসীর। কিন্তু এবার ধানও গেল, মাছও গেল। কৃষক ও জেলেদের বেঁচে থাকার আর কোনো অবলম্বন রইল না।

দিরাই উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. হাসিবুর রহমান বলেন, নদ-নদী ও হাওরের দূষিত পানি দৈনন্দিন কাজে ব্যবহার ও আক্রান্ত মরা মাছ জনস্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর হতে পারে। হাওরে দুর্গন্ধযুক্ত ভাসান পানি ব্যবহার ও ভেসে উঠা মরা মাছ আহরণ, খাওয়া এবং বাজারে বিক্রি করা জনস্বাস্থ্যের জন্য মারাত্মক ক্ষতির কারণ হতে পারে বলে আশঙ্কা করছে স্থানীয় প্রশাসন। সতর্কতার জন্য গত দুদিন যাবৎ বিভিন্ন উপজেলায় মাইকিং করে ব্যাপক প্রচারণা চালানো হচ্ছে বলে জানিয়েছেন সুনামগঞ্জের জেলা প্রশাসক শেখ রফিকুল ইসলাম।

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭, ০১৭১৭ ৬৮ ১২ ১৪ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: