সর্বশেষ আপডেট : ১০ মিনিট ২০ সেকেন্ড আগে
বৃহস্পতিবার, ১৯ অক্টোবর, ২০১৭, খ্রীষ্টাব্দ | ৪ কার্তিক ১৪২৪ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

হজ অপারেশনে বিমানে যুক্ত হচ্ছে আরও দুটি উড়োজাহাজ

Biman-Bangladesh20170415194824নিউজ ডেস্ক:: বাংলাদেশ বিমান বহরে যুক্ত হচ্ছে তিনশ আসনের আরও দুটি উড়োজাহাজ। মূলত বিমান বহরে তিনটি উড়োজাহাজ গ্রাউন্ডেড (বন্ধ) থাকায় এবং এ বছর হজযাত্রী পরিবহন নির্বিঘ্নে করতেই এ প্রস্তুতি নিচ্ছে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স। এয়ারলাইন্স সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান নির্বাহী এম মোসাদ্দিক আহমেদ জাগো নিউজকে বলেন, ওয়েট লিজে তিনশ আসনের দুটি বিমান আনবে বিমান বাংলাদেশ। ওয়েট লিজের শর্ত মোতাবেক এয়ারক্রাপ্ট দুটির ককপিট ও কেবিন ক্রুসহ সকল মেনটেইনেন্স সাপোর্ট দেবে লিজ দাতা প্রতিষ্ঠান।

তিনি আরও জানান, আগামী ২০ এপ্রিল (বৃহস্পতিবার) ওপেন করা হবে টেন্ডার বক্স। স্বনামধন্য এবং সর্বনিম্ন দরদাতা লিজিং কোম্পানি থেকে উড়োজাহাজ দুটি নেয়া হবে।

বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের জনসংযোগ শাখার মহাব্যবস্থাপক শাকিল মেরাজ জানান, বিমানের বড় দুটি এয়ারবাস অনেকদিন ধরে পড়ে আছে। মিশরের একটি কোম্পানির কাছে এয়ারবাস দুটি বিক্রি চূড়ান্ত হলেও এখনো সেগুলো তাদের বুঝিয়ে দেয়া হয়নি।

তিনি আরও বলেন, বহরে ওই দুটি এয়ারবাস থাকলে এ বছর বাড়তি এয়ারক্রাপ্ট লিজ নেয়া প্রয়োজন হতো না। এছাড়া মিসরের ইজিপ্ট এয়ার থেকে ড্রাই লিজে আনা বোয়িং ৭৭৭-২০০ ইআর উড়োজাহাজটি ইঞ্জিনের সমস্যার কারণে দীর্ঘদিন গ্রাইন্ডেড থাকার প্রভাব যেন হজ অপারেশনে না পড়ে; মূলত এ কারণেই এ উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।

টেন্ডারের শর্তানুযায়ী ২০১৭ সালের ৮ অক্টোবর পর্যন্ত টেন্ডারে অংশ নেয়া এয়ারক্রাপ্ট দুটির বয়স সর্বাধিক ২০ বিশ বছর হতে হবে। ২৫ জুলাই তারিখের মধ্যে উড়োজাহাজ দুটি বিমান বহরে যোগ দেবে বলে আশা করছে বিমান কর্তৃপক্ষ। এছাড়া প্রাক-হাজ সময়ে ঢাকা-জেদ্দা-ঢাকা ও ঢাকা-রিয়াদ-ঢাকা রুটে পরিচালিত করা হবে।

জানা গেছে, বর্তানে লাভে থাকলেও বিমানে লোকসানের কারণ উড়োজাহাজ সঙ্কট। বর্তমান ম্যানেজমেন্ট এ সঙ্কট কাটিয়ে উঠতে অবিরাম চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে।

বিমানের আর্থিক প্রতিবেদন অনুযায়ী, ২০০৭ সালে পাবলিক লিমিটেড কোম্পানি হওয়ার আগ পর্যন্ত বিমানের লোকসান ছিল ১ হাজার ১৮২ কোটি ৫৫ লাখ টাকা। তবে পাবলিক লিমিটেড কোম্পানি হওয়ার পর ২০০৭-০৮ অর্থবছরে ৫ কোটি ১৯ লাখ ও ২০০৮-০৯ অর্থবছরে ১৫ কোটি টাকা মুনাফা করে সংস্থাটি।

এছাড়া ২০০৯-১০ অর্থবছরে আবারও লোকসান শুরু হয়। ওই অর্থবছরে ৮০ কোটি, ২০১০-১১ অর্থবছরে ১৯১ কোটি, ২০১১-১২ অর্থবছরে ৬০০ কোটি ও ২০১২-১৩ অর্থবছরে ২১৪ কোটি টাকা লোকসান দেয় বিমান। একই সঙ্গে ২০১৩-১৪ অর্থবছরেও বিমানের লোকসান হয় ১৯৮ কোটি ৮০ লাখ টাকা। তবে গত দুই অর্থবছরে লাভ করতে সমর্থ হয়েছে বিমান।

২০১৪-১৫ অর্থবছরে ৩২৪ কোটি এবং ২০১৫-১৬ অর্থবছরে ২৭৬ কোটি টাকা মুনাফা করেছে বাংলাদেশ বিমান।

উল্লেখ্য, বিমানের বর্তমান বহরে চারটি বোয়িং ৭৭৭-৩০০ ইআর, দুটি বোয়িং ৭৭৭-২০০ ইআর, চারটি বোয়িং ৭৩৭-৮০০ ইআর ও দুটি ড্যাশ-৮ উড়োজাহাজ রয়েছে।

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭, ০১৭১৭ ৬৮ ১২ ১৪ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: