সর্বশেষ আপডেট : ১২ মিনিট ৩৪ সেকেন্ড আগে
শুক্রবার, ২৩ জুন, ২০১৭, খ্রীষ্টাব্দ | ৯ আষাঢ় ১৪২৪ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

সময় বাড়ালেও লাতুর ট্রেন প্রকল্পটির কাঙ্ক্ষিত বাস্তবায়ন নিয়ে সংশয়

8 April 2017_pic 035জালাল আহমদ ::
পূর্ণতা পাচ্ছে না ‘বাংলাদেশ রেলওয়ের কুলাউড়া-শাহবাজপুর সেকশন পুনর্বাসন’ তথা লাতুর ট্রেন প্রকল্পটি। এক বছরে বাস্তবায়নের কথা থাকলেও সাড়ে ৫ বছর পেরিয়ে গেছে প্রাথমিক প্রস্তুতিতেই। এখন আবার নতুন করে আরও দুই বছর সময় বাড়ানোর প্রস্তাব করা হয়েছে। রেলপথ মন্ত্রণালয় অবশ্য নানা কারণ দেখিয়েছে। মন্ত্রণালয় বলছে, অর্থায়নের ক্ষেত্রে সিদ্ধান্ত গ্রহণে বিলম্ব, অর্থ বরাদ্দ না পাওয়া, পরামর্শক চুক্তিতে বিলম্ব এবং পরামর্শক প্রতিষ্ঠানের প্রস্তুতি ও মাঠ পর্যায়ে কাজ শুরুতে দেরি হওয়ায় এই বিলম্ব।

বাড়তি সময়ে প্রকল্প বাস্তবায়ন হবে কি-না তা নিয়ে সংশয় থাকলেও প্রকল্প পরিচালক শহিদুল ইসলাম আশাবাদ ব্যক্ত করেন বলেছেন, বর্ধিত দুই বছরেই ওই প্রকল্পটি বাস্তবায়ন হবে। তিনি জানান, শুধু প্রস্তুতিতেই সাড়ে ৫ বছর যায়নি। প্রথম পর্যায়ে সরকারি না-কি উন্নয়ন সহযোগি সংস্থার অর্থে প্রকল্পটি বাস্তবায়ন হবে তা নিয়ে দোদুল্যমানতা ছিলো। পরবর্তীতে দীর্ঘদিন পর ভারতীয় ক্রেডিট লাইনের (এলওসি) অর্থে বাস্তবায়নের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। ফলে সেখানে দীর্ঘ সময় চলে যায়। ডিজাইনের কাজ এরই মধ্যে শেষ হয়েছে। আগামী জুন-জুলাইয়ে ঠিকাদারের সঙ্গে চুক্তি সই হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। আশা করছি, দুই বছরের মধ্যেই প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করা সম্ভব হবে।

রেলপথ মন্ত্রণালয় সূত্র জানায়, প্রথম দিকে ১১৭ কোটি ৬৮ লাখ ৬১ হাজার টাকা ব্যয়ে সরকারের নিজস্ব অর্থায়নে বাস্তবায়নের জন্য প্রকল্পটি হাতে নেয়া হয়। মূল প্রকল্পটি ২০১১ সালের জুলাই থেকে ২০১২ সালের ৩১ ডিসেম্বরের মধ্যে বাস্তবায়নের জন্য জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) সভায় অনুমোদন লাভ করে। কিন্তু প্রকল্প বাস্তবায়ন নানা কারণে আটকে যায়। পরবর্তীতে ভারতীয় ঋণ প্রাপ্তির পর প্রকল্পটির প্রথম সংশোধনী প্রস্তাব ২০১৫ সালের ২৬ মে একনেকে অনুমোদন দেয়া হয়। এ সময় ব্যয় বেড়ে দাঁড়ায় ৬৭৮ কোটি ৫০ লাখ ৭৯ হাজার টাকা। সেই সঙ্গে প্রকল্পের মেয়াদ সাড়ে ৪ বছর বাড়িয়ে ২০১৭ সালের জুন পর্যন্ত করা হয়। কিন্তু এর মধ্যেও কোনো ভৌত অগ্রগতি হয়নি। ফলে নতুন করে ব্যয় বৃদ্ধি ছাড়াই আরও ২ বছর মেয়াদ বাড়িয়ে ২০১৯ সালের ৩০ জুন পর্যন্ত করার প্রস্তাব করা হয়েছে। সম্প্রতি বাংলাদেশ রেলওয়ে থেকে এ সংক্রান্ত চিঠি পাঠানো হয়েছে অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগে (ইআরডি)।

প্রকল্পটির মেয়াদ বৃদ্ধির কারণ ও যৌক্তিকতা প্রসঙ্গে বাংলাদেশ রেলওয়ের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, প্রকল্পটির শুরু থেকে অর্থাৎ ২০১১-’১২ অর্থবছর থেকে ২০১৪-’১৫ অর্থবছর পর্যন্ত প্রকল্পের অনুকূলে বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচিতে (এডিপি) কোনো অর্থ বরাদ্দ ছিলো না। পরবর্তীতে প্রকল্পটি ভারতীয় এলওসি’র অর্থে বাস্তবায়নের সিদ্ধান্ত হয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনার পর। এ ক্ষেত্রে ভারতীয় এক্সিম ব্যাংক হতে পরামর্শক প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে সম্পাদিত চুক্তিপত্রের সম্মতিপত্র পেতে আরও প্রায় ৬ মাস লেগে যায়। ফলে পরামর্শক প্রতিষ্ঠানের প্রস্তুতিসহ মাঠ পর্যায়ে কার্যক্রম ২০১৬ সালের ৩ এপ্রিল থেকে শুরু হয়। তবে ইতোমধ্যেই টোপোগ্রাফিক সার্ভে, মাটি পরীক্ষা, খসড়া নকশা প্রতিবেদন প্রণয়নসহ বেশ কিছু কাজ সম্পন্ন হয়েছে। বর্তমানে মূল নকশা প্রণয়ন প্রতিবেদন চূড়ান্ত পর্যায়ে। এছাড়া ২০১৬ সালের ৪ অক্টোবর প্রি- কোয়ালিফিকেশন দরপত্র আহ্বানের প্রেক্ষিতে ওই বছরের ১৩ নভেম্বর ৮টি প্রতিষ্ঠান থেকে প্রি- কোয়ালিফিকেশন আবেদন পাওয়া যায়। দাখিল করা প্রি-কোয়ালিফিকেশন আবেদন পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে মূল্যায়ন করা এবং পাশাপাশি নকশা প্রতিবেদন চূড়ান্ত করতে সময় লাগছে। এছাড়া মূল কনস্ট্রাকশন কাজের দরপত্র আহ্বান এবং সংস্থানকৃত নির্মাণ কাজ সমাপ্ত করতে সময়সীমা বাড়ানো প্রয়োজন। আর এজন্যই ব্যয় বৃদ্ধি ছাড়াও প্রকল্পের মেয়াদ ২ বছর বাড়ানোর প্রস্তাব করা হয়েছে।

সূত্র আরও জানায়, প্রথম বছর প্রকল্পের জন্য অর্থই বরাদ্দ দেয়া হয়নি। কিন্তু পরের অর্থবছরগুলোতে বরাদ্দ দেয়া হলেও চাহিদার তুলনায় ছিলো অনেক কম। ২০১৪-’১৫ অর্থবছরে উন্নয়ন প্রকল্প প্রস্তাব (ডিপিপি) অনুযায়ী চাহিদা ছিলো ৭৪ কোটি ৪৩ লাখ ৬০ হাজার টাকা (সরকারি ও বৈদেশিক সহায়তা মিলে)। কিন্তু এডিপিতে বরাদ্দ ছিলো মাত্র ১ লাখ টাকা। ২০১৫-’১৬ অর্থবছরে চাহিদা ছিলো ৩০২ কোটি ১ লাখ ১০ হাজার টাকা। কিন্তু বরাদ্দ দেয়া হয় ৬ কোটি ৬৭ লাখ টাকা। এর মধ্যে ব্যয় হয় প্রায় ১ কোটি ৫০ লাখ টাকা। চলতি ২০১৬-’১৭ অর্থবছরে চাহিদা ছিলো ৩০২ কোটি ৬ লাখ ৯ হাজার টাকা। এডিপিতে বরাদ্দ দেয়া হয় ৬২ কোটি ১ লাখ টাকা। এর মধ্যে ব্যয় হয় সামান্যই।

পর্যালোচনা করে দেখা গেছে, ডিপিপি অনুযায়ী ৬৭৮ কোটি ৫০ লাখ ৭৯ হাজার টাকা বরাদ্দ চাহিদার বিপরীতে এডিপিতে মোট বরাদ্দ দেয়া হয়েছে ৬৮ কোটি ৬৯ লাখ টাকা। চাহিদা ও বরাদ্দের বিস্তর এ ফারাকের কারণে সময় বাড়ালেও আগামীতে প্রকল্পটির কাক্সিক্ষত বাস্তবায়ন হবে কি-না তা নিয়ে সংশয় রয়েছে বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা। কেননা বর্ধিত ২ বছরেও যদি বরাদ্দের এ হাল হয় তাহলে প্রকল্পের সুফল প্রাপ্তি থেকে বঞ্চিত হবেন সাধারণ মানুষ।

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭, ০১৭১৭ ৬৮ ১২ ১৪ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: