সর্বশেষ আপডেট : ২২ সেকেন্ড আগে
বুধবার, ২৩ অগাস্ট, ২০১৭, খ্রীষ্টাব্দ | ৮ ভাদ্র ১৪২৪ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

গোয়াইনঘাট কমছে পানি, কাদঁছে কৃষক

2-1-600x450গোয়াইনঘাট সংবাদদাতা:: টানা ভারী বর্ষণ আর পাহাড়ী ঢলে গোয়াইনঘাট উপজেলা প্লাবিত হয়েছিল। ৭হাজার হেক্টর বোরো ফসলী জমি পানির নিচে তলিয়ে গেছে। পানিবন্ধী হয়ে পড়েছিলেন উপজেলার লক্ষাধিক মানুষ। বন্ধ রয়েছে দেশের অন্যতম পাথর কোয়ারী দু’টি বিছনাকান্দি ও জাফলং। ভারী বর্ষণ ও ঘুর্ণিঝড়ে এ উপজেলায় প্রায় ৮ শতাধিক বসতঘর বিধ্বস্ত হয়েছে।

পাহাড়ী ঢলে ভেসে গেছে গবাদী পশুসহ সহস্রাধিক হাঁস মুরগ। এছাড়া পুকুরে চাষকৃত মাছও বানের জলে ভেসে গেছে। এখনও পর্যন্ত বন্যার পানিতে উপজেলার অধিকাংশ এলকা নিমজ্জিত রয়েছে। এখনও পর্যন্ত সরকারী কিংবা বে-সরকারী ভাবে বন্যা কবলিতদের মাঝে কোন ধরনের ত্রাণ তৎপরতার উদ্যোগ না নেওয়ায় জনমনে ক্ষোভ দেখা দিয়েছে। এলাকার সুশীল সমাজের প্রতিনিধিরা জরুরী ভিত্তিতে গোয়াইনঘাট উপজেলাকে দূর্যোগপূর্ণ এলাকা ঘোষণা করার দাবী জানিয়েছেন।

সরজমিনে দেখা গেছে, এ বছরে গোয়াইনঘাটের ৯টি ইউনিয়নে প্রায় ৮ হাজার ৩শত ২০ হেক্টর বোরো ফসল চাষ করেছিলেন চাষীরা। প্রাকৃতিক দূর্যোগের কারণে প্রায় ৭ হাজার হেক্টর ফসলী জমি পানিতে তলিয়ে যাওয়ায় গোয়াইনঘাটের সিংহভাগ মানুষ চোখে এখন অন্ধকার দেখছেন। জাফলং ও বিছনাকান্দি পাথর কোয়ারী বন্ধ থাকায় লক্ষাধিক শ্রমিক বেকার হয়ে পড়েছেন। ্রমিকরা অনাহাওে অর্ধাহাওে দিনাতিপাত করছেন। অপরদিকে কবলিত এলকার শিক্ষা প্রতিষ্টানের চর্তুদিকে পানি থাকায় শিক্ষার্থীরা নিয়মিত বিদ্যালয়ে যেতে পারছেনা। এতে শিক্ষা কার্যক্রম ব্যাহত হচ্ছে। এদিকে চানা বর্ষনের সাথে ঝড় ও শিলা বৃষ্টি হওয়ায় ঘরবাড়ী বিধ্ধস্থ হয়েছে। তাছাড়া অনেক এলাকায় গবাদি পশু সহ হাঁস মুরগি বানের পানিতে ভাসিয়ে গেছে।

এ ব্যাপারে উপজেলা কৃষিকর্মকর্তা মোহাম্মদ আনিসুজ্জামান জানান, বন্যায় ক্ষতিগ্রস্থ কৃষক পরিবারের তালিকা তৈরি হচ্ছে। দ্রুত বন্যার পানি সরে গেলে পরবর্তী কার্যক্রম বাস্তবায়নের লক্ষ্যে আমরা প্রস্তুত রয়েছি। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ সালাহ উদ্দিন বলেন, বন্যায় কবলিত এলাকাগুলি ইতিমধ্যে পরিদর্শন করা হয়েছে। এ বন্যায় গোয়াইনঘাটে প্রায় সাড়ে ৬ হাজার হেক্টর বোরো ফসলী জমিসহ ৮ শতাধিক ঘরবাড়ী বিধ্বস্ত হয়েছে। এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে পত্র প্রদান করেছি। উপজেলা পরিষদের আব্দুল হাকিম চৌধুরী বলেছেন, দ্রুত গোয়াইনঘাট উপজেলাকে দূর্যোগপূর্ণ এলাকা ঘোষণা করে জরুরী ভিত্তিতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করতে তিনি উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে লিখিত অনুরোধ জানিয়েছেন।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে ডাক, টেলি যোগাযোগ ও সংসদীয় স্থায়ী কমিটির চেয়ারম্যান এবং সিলেট-৪ আসনের সংসদ সদস্য ইমরান আহমদ বলেছেন, গোয়াইনঘাট, জৈন্তাপুর ও কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসারদেরকে বন্যায় ক্ষতিগ্রস্থদের সঠিক তথ্য জেলা প্রশাসক বরাবরে প্রেরণ করার জন্য নির্দেশ দিয়েছেন এবং এ বিষয়ে জেলা প্রশাসককেও অবগত করেছেন। এছাড়া তিনি এবিষয়ে ত্রান ও দুর্যোগ মন্ত্রীর সাথে আলাপ করে বকলিত এলাকায় ওএমএস চালুর ব্যবস্থা করবেন বলে জানান।

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭, ০১৭১৭ ৬৮ ১২ ১৪ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: