সর্বশেষ আপডেট : ১ ঘন্টা আগে
সোমবার, ২৯ মে, ২০১৭, খ্রীষ্টাব্দ | ১৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৪ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

বাহুবলে ফাঁদ পেতে বিশ্বনাথের জাপা নেতার সাড়ে ৪ লাখ টাকা ছিনতাই

daily-sylhet-chintaiবিশ্বনাথ সংবাদদাতা:: হবিগঞ্জ জেলার বাহুবলে গাড়ি বিক্রয় করার ফাঁদ পেতে বিশ্বনাথের জাতীয় পার্টি (জাপা) নেতার ৪ লাখ ৬০ হাজার টাকা ছিনতাইয়ের অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় বিশ্বনাথ উপজেলার দুর্যাকাপন গ্রামের মৃত আছদ্দর আলী চৌধুরীর পুত্র জাপা নেতা নাজিম চৌধুরী বাদী হয়ে অজ্ঞাতনামা ৩ জনকে অভিযুক্ত করে বাহুবল থানায় লিখিত অভিযোগ দাখিল করেছেন।

লিখিত অভিযোগে উল্লেখ করা হয়েছে, নাজিম চৌধুরীর বন্ধু বিশ্বনাথ উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক পার্টির আহ্বায়ক শাহ আলা উদ্দিন এর মালিকানাধীন কিছু জায়গা বিক্রয়ের জন্য প্রচারের নিমিত্তে নিজ এলাকার বিভিন্ন স্থানে সাইনবোর্ড লাগানো হয়। সাইনবোর্ডের থেকে নম্বর নিয়ে আলা উদ্দিনের সঙ্গে আরিফ নামধারী এক ব্যক্তি জায়গা ক্রয়ের আলাপ-আলোচনা করে। এক পর্যায়ে রশিদপুরে নাজিম চৌধুরী সাথে দেখা হয় আরিফ নামধারী ওই ব্যক্তির। এরই সুবাদে তাদের পরিচয়। জায়গা বিক্রয়ের আলাপ-আলোচনা চলাকালে নাজিম চৌধুরী তার একটি গাড়ি ক্রয় করার অভিপ্রায় তার কাছে ব্যক্ত করেন।

আরিফ জানায়, বাহুবলে তার একজন বন্ধু একটি নোহা মাইক্রোবাস বিক্রয় করবে। এরপর আরিফ গাড়ি দেখাতে নাজিম চৌধুরী ও আলা উদ্দিনকে সাথে নিয়ে গত ৭ মার্চ বাহুবল থানার পুটিজুরি বাজারের ভবানীপুর নামক স্থানে গাড়ির মালিক আরিফের বন্ধু বাহুবলের ভবারীপুর গ্রামের আব্দুর বর’র সঙ্গে দেখা করেন। এ সময় গাড়িটি নাজিম চৌধুরীর পছন্দ হলে ক্রয়ের সিদ্ধান্ত হয় এবং ৯ লাখ টাকা প্রদানের বিষয়ে চূড়ান্ত কথাবার্তা হয়। পরবর্তীতে গত ৯ মার্চ ঐ গাড়িটি ক্রয়ের জন্য নগদ ৪ লাখ ৬০ হাজার টাকা সাথে নিয়ে আরিফের ব্যবহৃত গাড়িতে (প্রাইভেট কার ঢাকা মেট্রো গ-১৪-২৮৭০) করে নাজিম চৌধুরী ও আলা উদ্দিন বাহুবলের উদ্দেশ্যে যাত্রা করেন। বেলা আনুমানিক দুপুর দেড় টায় পুটিজুরি বাজারে যাওয়ার পর আরিফ জানায়,গাড়ির মালিকের মোবাইল ফোন বন্ধ রয়েছে। তাই মালিকের বাড়িতে যেতে হবে বলে কৌশলে নাজিম চৌধুরী ও আলা উদ্দিনকে একটি নির্জন স্থানে নিয়ে যায়। এ সময় চলন্ত গাড়ি বন্ধ করে আরিফ ও তার আরো ২ অজ্ঞাতনামা সহযোগী নাজিম চৌধুরীর বুকে পিস্তল ও আলা উদ্দিনের গলায় ছুরি লাগিয়ে তাদের সঙ্গে থাকা ৪ লাখ ৬০ হাজার টাকা ছিনতাই করে শেরপুরের দিকে পালিয়ে যায়।

এ ব্যাপারে বাহুবল থানার অফিসার ইন-চার্জ (ওসি) মনিরুজ্জামান অভিযোগ গ্রহণের সত্যতা স্বীকার করে বলেন, আমরা বিষয়টি তদন্ত সাপেক্ষে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করবো।

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭, ০১৭১৭ ৬৮ ১২ ১৪ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: