সর্বশেষ আপডেট : ৩৭ মিনিট ২৭ সেকেন্ড আগে
রবিবার, ২৫ জুন, ২০১৭, খ্রীষ্টাব্দ | ১১ আষাঢ় ১৪২৪ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

লিপস্টিকের ক্ষতিকর দিক

full_650621312_1488274273লাইফ স্টাইল ডেস্ক:: ঠোঁটকে আরো আকর্ষণীয় ও মোহময়ী করতে লিপস্টিকের জুড়ি নেই। আর আধুনিক মেয়েদের ফ্যাশনের অন্যতম অনুষঙ্গ লিপস্টিক। যতই সুন্দর করে সাজুন না কেন লিপস্টিক ছাড়া চেহারা ম্লান দেখাবে। আর বাইরে যেতে চটপট তৈরি হতে শুধু লিপস্টিই যথেষ্ট।

কিন্তু ঠোঁটের শোভা বাড়ালেও, লিপস্টিকের রয়েছে কিছু পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া। কয়েকটি ক্ষতিকারক উপাদান রয়েছে লিপস্টিকে। তবে তা খুব সামান্য মাত্রার হলেও প্রতিদিন লিপস্টিক ব্যবহার করলে এই উপাদানগুলো থেকেই ঠোঁটের ত্বকে নানারকম সমস্যা দেখা দিতে পারে। তাই লিপস্টিক লাগানোর আগে ও পরে নিতে হবে একটু বাড়তি সতর্কতা। আর করতে হবে ঠোঁটের নিয়মিত যত্ন।

লিপস্টিকের ক্ষতিকর উপাদান

লিপস্টিকের গায়ে ম্যানুফ্যাকচারিং এজেন্ট হিসেবে সিসা থাকার কথা উল্লেখ না থাকলেও, বেশ কয়েকটি গবেষণা থেকে জানা গেছে, লিপস্টিকে রয়েছে সিসা। শুধু সিসাই নয়, কিছু ব্র্যান্ডের লিপস্টিকে কোবাল্ট, ক্যাডমিয়াম ও টাইটেনিয়ামের মতো ধাতুও পাওয়া গেছে। বারবার জিভ দিয়ে ঠোঁট চাটলে বা খাবারের সঙ্গে শরীরে ঢুকে পড়ে এইসব উপাদান। যা থেকে ক্ষতি হতে পারে স্বাস্থ্যের। গাঢ় রঙের শেডে সবচেয়ে বেশি মাত্রায় থাকে এসব ধাতু। তাই চেষ্টা করুন গাঢ় রঙ এড়িয়ে চলার।

আজকাল পার্টি, বিয়েতে কিংবা অফিসেও অনেকেই লং লাস্টিং শেড ব্যবহার করতে পছন্দ করেন। কোনো কোনো ব্র্যান্ডের লং লাস্টিং লিপস্টিকে কৃত্রিম স্টেবিলাইজার থাকে, যা থেকে হতে পারে ক্যানসার। গাঢ় রঙকে হালকা করার জন্য দেওয়া হয় টাইটেনিয়াম ডাই-অক্সাইডের মতো উপাদান। গ্লিটারযুক্ত লিপগ্লসেও থাকতে পারে অভ্র। এই ধাতুগুলো থেকে ঠোঁটে গোটা বেরোতে পারে, ঠোঁট চুলকাতে পারে কিংবা হয়ে যেতে পারে ঠোঁট কালো। এমনটা হলে সঙ্গে সঙ্গে বন্ধ করে দিতে হবে ওই লিপস্টিকের ব্যবহার। ধাতব উপাদান ছাড়াও লিপস্টিক ঠোঁটের স্বাভাবিক আর্দ্রতা শুষে নেয়। তাই লিপস্টিক লাগানোর আগে ঠোঁটে ভ্যাসলিন লাগিয়ে নিলে আর্দ্রতা বজায় থাকবে।

লিপস্টিক লাগানোর ক্ষেত্রে সতর্কতা

– লিপস্টিক লাগানোর আগে ঠোঁটে ভালো করে ময়েশ্চারাইজার লাগিয়ে নিলে এটি লিপস্টিকের ক্ষতিকারক প্রভাব থেকে অনেকটাই ঠোঁটকে রক্ষা করবে।

– ম্যাট এবং লং লাস্টিং লিপস্টিক যতটা সম্ভব এড়িয়ে চলতে হবে।

– খাবার সময় লিপস্টিক তুলে ফেলা উচিত।

– বাসায় ফিরেই লিপস্টিক তুলে ফেলতে হবে। তারপর ঠোঁটে ভ্যাসলিন লাগিয়ে নিতে হবে।

– ঠোঁট থেকে চামড়া উঠলে বা ঠোঁট শুকিয়ে গেলে সেই লিপস্টিক ব্যবহার বন্ধ করতে হবে।

– গাঢ় রঙের লিপস্টিক এড়িয়ে চলাই ভালো।

– লিপস্টিক লাগানোর পর ঠোঁট জিভ দিয়ে চাটা উচিত নয়।

– দিনে দুই বারের বেশি লিপস্টিক ব্যবহার না করার চেষ্টা করতে হবে। প্রতিদিন লিপস্টিক লাগানো ঠিক নয়।

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭, ০১৭১৭ ৬৮ ১২ ১৪ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: