সর্বশেষ আপডেট : ৩ মিনিট ৫০ সেকেন্ড আগে
বৃহস্পতিবার, ২৩ মার্চ, ২০১৭, খ্রীষ্টাব্দ | ৯ চৈত্র ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

‘ক্যাচ মিস তো ম্যাচ মিস’

full_856443594_1485169745খেলাধুলা ডেস্ক:: ছোট বেলায় গ্রামের মাঠে খেলতে গিয়ে প্রথম শুনেছিলাম কথাটি। এক বড় ভাই দারুন সহজ একটা ক্যাচ মিস করেছিলো। দলের অধিনায়ক তেতে উঠে বললেন এভাবে কি ম্যাচ জেতা যায়? ক্যাচ মিস মানেই তো ম্যাচ মিস। সেই থেকেই কথাটা কানে গেথে আছে। বাংলাদেশের ক্রিকেটে গ্রাম থেকে শহর সব জায়গায় বেশি প্রচলিত প্রাবাদের একটি এই প্রবাদ। এই প্রবাদ খানা আরো একবার সত্যি হয়ে ধরা দিলো বাংলাদেশের নিউজিল্যান্ড সফরে।

এই সফরে ৮টি ম্যাচ খেলে সব কটিতেই হেরেছে বাংলাদেশ। ৩টি ওয়ানডে, ৩টি টি-টোয়েন্টি ও ২টি টেস্ট। এই লম্বা সফরে কোন ম্যাচেই বাংলাদেশ দল জয়ের মুখ দেখেনি। এর কারণ হিসেবে অনেক কিছুই সামনে চলে আসে। তার মধ্যে বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানদের অসহায়ত্ব একটি।

ওয়েলিংটন টেস্টের দ্বিতীয় ইনিংস সবাইকে একটু অবাক করেছিল। প্রথম ইনিংসে ৫৯৫ রান করা দল কীভাবে দ্বিতীয় ইনিংসে ওভাবে ধসে পড়ে!

ক্রাইস্টচার্চে সেই অবাক ভাবটা আর নেই। ধসে পড়াটাই যেন স্বাভাবিক। নিউজিল্যান্ড প্রথম ইনিংসে ৬৫ রানের লিড নেওয়ার পর বাংলাদেশের একটার পর একটা উইকেট হারাল। প্রেসবক্সে চলছে ওভার আর সময়ের হিসেব। ইনিংসের ৪০তম ওভারে নাজমুল হোসেনের বোল্ড হওয়ার সময় দিনের খেলা বাকি আরও ৩৪ ওভারের মতো। এই সময়ের মধ্যে বাংলাদেশকে দ্বিতীয় ইনিংসে অলআউট করে নিউজিল্যান্ড কি পারবে আজই খেলা শেষ করে দিতে? লিড তো তখন বাংলাদেশের মাত্র ৪১! ১০৬ রানে ৭ উইকেট পড়ে গেছে। শেষ তিন উইকেটে আর কতটুকুই–বা যাওয়া সম্ভব।

বাংলাদেশ শেষ পর্যন্ত অলআউট ১৭৩ রানে। নিউজিল্যান্ডের জন্য লক্ষ্য দাঁড়াল মাত্র ১০৯ রানের। হাতে এক দিনেরও বেশি সময় এবং ১০ উইকেট। নিউজিল্যান্ড অবশ্য মাত্র ১ উইকেট হারিয়েই তুলে নিল জয়, সেটা চতুর্থ দিনেই। ওয়ানডে, টি-টোয়েন্টি, টেস্ট—সব মিলিয়ে ব্যবধান ৮-০!

ব্যাটসম্যানদের অসহায়ত্বকে দুরে ঠেলে আরো একটি বিষয় মাথাচাড়া দিয়ে উঠেছে এই টেস্টে। দৃষ্টিকটু ক্যাচ ছাড়ার মিছিল।

দলের সব ফিল্ডাররাই এই সফরে ক্যাস মিসের মিছিলে যোগ দিয়েছিলেন। সহজ সহজ সব ক্যাচ হাতের তালুকে ফাঁকি দিয়ে মাটিতে লুটিয়ে পড়ছিলো। এই সফরে বাংলাদেশের সবচেয়ে বেশি ক্যাচ মিস হয়েছে স্লিপে। অনেক পরিবর্তনের মধ্য দিয়েও এই সমস্যার সমাধান করতে পারেননি বাংলাদেশর ফিল্ডাররা।

অর্ধেক সুযোগগুলো বাদ দিয়ে হিসেব করলেও পুরো নিউজিল্যান্ড সফরে মোট ২০টি ক্যাচ ফেলেছে বাংলাদেশ দল, এর ছয়টিই ক্রাইস্টচার্চ টেস্টের প্রথম ইনিংসে। সহজ সহজ সব ক্যাচ। হাতে যেন সবার মাখন মাখা! আজকের কথাই ধরুন। তাসকিন আহমেদের বলে গালিতে নিল ওয়েগনার ক্যাচ দিয়েছিলেন। নাজমুল হোসেনের হাত ফসকাল। এর আগে কামরুল ইসলামের বলে সেকেন্ড স্লিপে আউটের সুযোগ দিয়ে টিম সাউদিও বেঁচে যান মেহেদী হাসানের হাত থেকে।

এ ক্ষেত্রে তাসকিন আহমেদ সবচেয়ে বেশি অভাগা। তবে তাসকিন আহমেদের একটি ব্যাপার দারুণ। মাঠের ভেতরে-বাইরে প্রায় সময়ই মুখ হাসি হাসি। এমনকি তার বলে ক্যাচ হাতছাড়া হলেও হাসেন। সেই হাসি নিয়মিতই দেখা যায়। কারণ তার বলে নিয়ম করে ক্যাচ মিস হয়। নিজের দুঃখেও তাসকিন হাসতে পারেন, কিন্তু দল তো হাসে না। এত ক্যাচ হাতছাড়া করা দল হাসতে পারে না!

একটি ক্যাচ হাতছাড়া মানে শুধু একজন ব্যাটসম্যানকে জীবন দেওয়াই নয়, নিজেদের জীবনও কেড়ে নেওয়া। শুষে যায় জীবনীশক্তি, কেড়ে নেয় প্রাণচাঞ্চল্য, বাজে প্রভাব পড়ে শরীরী ভাষায়। বোলারও একসময় হতাশ হয়ে পড়ে, বোলিং হয় এলোমেলো। এই সব স্রোত গিয়ে মেশে পরাজয়ের মোহনায়।

সবশেষে কি বলা যায় বাংলাদেশ ভুল করে। সেটা মেনে নেয়। কিন্তু সেই ভুল থেকে শেখে না বাংলাদেশের খেলোয়াড়রা।

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭, ০১৭১৭ ৬৮ ১২ ১৪ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: