সর্বশেষ আপডেট : ২ মিনিট ৯ সেকেন্ড আগে
রবিবার, ২৬ ফেব্রুয়ারী, ২০১৭, খ্রীষ্টাব্দ | ১৪ ফাল্গুন ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

‘ইন্টারনেট মানেই ফেসবুক নয়’

a1b7a8efc6b9e4d6032d4ba49e639f94-5877711f543ccতথ্য-প্রযুক্তি ডেস্ক ::
প্রশ্ন-উত্তর পর্বইন্টারনেট মানেই ফেসবুক নয় বলে মন্তব্য করেছেন তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি (আইসিটি) বিভাগের প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক। তিনি তার সরকারের আইসিটি বিভাগের ৩ বছর পূর্তি উপলক্ষে আয়োজিত ‘এগিয়ে যাওয়ার আরও তিন বছর’ শীর্ষক সংবাদ সম্মেলনে এই মন্তব্য করেন।

পলক বলেন, ইন্টারনেটে অনেক কিছু করার রয়েছে। আইটি আউটসোসোর্সিং করে কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করা যায়, প্রশিক্ষণ নিয়ে দক্ষতা অর্জন করা যায়, অনলাইনে ভিডিও দেখে পড়াশোনার মান উন্নত করাসহ শতেক কাজ করা সম্ভব। তবে ফেসবুক-কে খাটো করে দেখতে চান না উল্লেখ করে আইসিটি প্রতিমন্ত্রী বলেন, ফেসবুকের মাধ্যমে সামাজিক যোগাযোগ ছাড়াও কর্মসংস্থান, দক্ষতা উন্নয়নের মতো কাজ করা সম্ভব। এটি একটি প্ল্যাটফর্ম। এই প্ল্যাটফর্ম অবলম্বন করে দেশে দেড় থেকে দুই হাজার এফ-কমার্স (ফেসবুকভিত্তিক কমার্স) উদ্যোক্তা তৈরি হয়ে গেছে। টেন মিনিটস স্কুলের মতো কার্যক্রম শুরু হয়েছে সেসব দেখে শিক্ষার্থীরা তাদের দক্ষতা বৃদ্ধি করতে পারে।
বৃহস্পতিবার রাজধানীর আগারগাঁওয়ে আইসিটি টাওয়ারের সম্মেলন কক্ষে আয়োজিত এই সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন ডাক, টেলিযোগাযোগ ও আইটি মন্ত্রণালয় সংক্রান্ত সংসদীয় কমিটির সভাপতি ইমরান আহমেদ, আইসিটি বিভাগের সচিব শ্যাম সুন্দর শিকদার, ভারপ্রাপ্ত সচিব হোসনে আরা বেগম-সহ আরও অনেকে।

অনুষ্ঠানে ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মাণে সরকার গৃহীত বিভিন্ন প্রকল্প, উদ্যোগ, সফলদের কথা ইত্যাদি নিয়ে মাল্টিমিডিয়া উপস্থাপন করা হয়।

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, দেশের মোট জনসংখ্যার ১০ কোটি হলো তরুণ। যা মোট জনসংখ্যার ৭০ শতাংশ, যাদের বয়স ২৫-৩০ বছর। অন্যদিকে দেশে তৈরি পোশাক খাত থেকে রফতানি আয়ের পরিমাণ ২৮ বিলিয়ন ডলার, যে শিল্পে কাজ করে ৬০ লাখ মানুষ। দেশের বিপুল সংখ্যক তরুণদের যদি তথ্যপ্রযুক্তি প্রশিক্ষণ প্রশিক্ষণ দেওয়া যায় তাহলে তথ্যপ্রযুক্তি খাত থেকে সরকার তৈরি পোশাক খাতের চেয়েও বেশি অর্থ আয় করতে পারে বলে বক্তারা মনে করেন। এজন্য প্রশিক্ষণসহ বিভিন্ন ধরনের উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে বলে জানানো হয়।

সংবাদ সম্মেলনে পলক বলেন, এই খাতের উন্নয়নে চ্যালেঞ্জ রয়েছে। দক্ষ মানব সম্পদের অভাবই আমাদের বড় চ্যালেঞ্জ উল্লেখ করে পলক বলেন, আমাদের ট্যালেন্ট পুল প্রয়োজন। প্রতি বছর যা পাচ্ছি তার মধ্যে একটা বিশাল ফারাক আছে। এটা কমাতে হবে। দক্ষতা উন্নয়নের জন্য এরই মধ্যে দেশের ৩৬ জেলায় আইসিটি ক্যারিয়ার ক্যাম্প করা হয়েছে। ৭০ হাজার তরুণ-তরুণী নাম নিবন্ধন করেছেন।

আইসিটি বিভাগের গ্রহণ করা ‘ওয়ান স্টুডেন্ট, ওয়ান ল্যাপটপ, ওয়ান ড্রিম’ প্রজেক্ট নিয়ে বলেন, একটি বেসরকারি ব্যাংকের সহযোগিতায় আমরা গত বছর ১ হাজার ল্যাপটপ মেধাবী ও গরীব শিক্ষার্থীদের মাঝে বিতরণ করেছি। চলতি বছরও এক হাজার ল্যাপটপ শিক্ষার্থীদের হাতে তুলে দেওয়ার পরিকল্পনা রয়েছে বলে তিনি উল্লেখ করেন। গত বছর অনুষ্ঠিত বিপিও সামিটের সাফল্য সম্পর্কে তিনি বলেন, সামিটের পরে দেশে বিপিওর কাজের পরিমাণ বেড়েছে। বিপিওর সংগঠন ‘বাক্য’ সামিটের পরে এ পর্যন্ত ২২৫ জনকে চাকরি দিয়েছে। সদ্য প্রতিষ্ঠিত ন্যাশনাল হেল্পডেস্ক প্রসঙ্গে তিনি বলেন, গত ১০০ দিনে ন্যাশনাল হেল্পডেস্কে (৯৯৯) ৯ লাখের বেশি ফোন এসেছে। এরমধ্যে ১৯ হাজার ফোন ছিল সেবা পাওয়ার জন্য এবং সবাইকে সেবা দেওয়া হয়েছে বলে তিনি উল্লেখ করেন।

এছাড়া আগামী ২ বছরে তার মন্ত্রণালয়ের গৃহীত পরিকল্পনার কথাও উল্লেখ করেন তিনি। এরমধ্যে দেশে নির্মাণাধীন ১২টি হাইটেক পার্ক, ন্যাশনাল ডাটা সেন্টার, আইডিয়া প্রকল্পর বাস্তবায়ন, ই-জুডিসিয়ারি প্রকল্পর কাজ তিনি দ্রুত সম্পন্ন করতে চান।

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭, ০১৭১৭ ৬৮ ১২ ১৪ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: