সর্বশেষ আপডেট : ৭ মিনিট ২৮ সেকেন্ড আগে
শুক্রবার, ২১ জুলাই, ২০১৭, খ্রীষ্টাব্দ | ৬ শ্রাবণ ১৪২৪ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

ধান-চালেই অন্যরকম স্বপ্ন দেখেন আইভরি কোস্টের কোনে

full_554819192_1484193217আন্তর্জাতিক ডেস্ক:: আফ্রিকার পশ্চিম উপকূলে আইভরি কোস্ট৷ ছিল ফরাসি উপনিবেশ, কিন্তু সেখানেও ধানচাষ হয়, মানুষজন ভাত খান৷ আইভরি কোস্টের সেই বিশেষ চাল সারা বিশ্বে রপ্তানি করার স্বপ্ন দেখছেন এক আইভরিয়ান বিজনেসম্যান৷

আইভরি কোস্টের উত্তরে কাতিওলা৷ সেখানে ফসল কাটার মৌসুম চলে চার মাস ধরে৷ এখানকার চাষিরা চিরকালই ধান চাষ করে এসেছেন, তা থেকেই কোনোমতে দিন গুজরান হয়েছে৷ এবার কিন্তু তা বদলাতে চলেছে৷

কোনে নিয়ানলংগঁ তার ‘নিউ রাইস’ কোম্পানি খুলে আইভরি কোস্টের বাজারে সেই চাল বিক্রি করছেন৷ একটি গ্রাম সমবায়ের সঙ্গে একত্রে কাজ করছেন কোনে৷ সব দিক ভেবে কাজ করেন তিনি: ”সকলেই ফসল বাড়ানোর কথা বলছে৷ কিন্তু ওরা চালের মানের কথা ভুলে যাচ্ছে৷ এখানকার লোক নিজেদের প্রয়োজন মেটাতে ধান চাষ করে৷ কিন্তু বাজারে যে চাল পৌঁছায়, তা খরিদ্দারদের মনের মতো নয়৷”

দীর্ঘমেয়াদি সূত্রে কোনে এখানে অরগ্যানিক ফার্মিং চালু করতে চান৷ কিন্তু গোড়ায় তিনি চাষিদের উচ্চমানের বীজ কেনার জন্য কম সুদে ধার দিচ্ছেন৷ ধানচাষি ইব্রাহিম কুলিবালির মতে, ”বীজ ধান কেনার ব্যাপারটা ভালো, বিশেষ করে যদি ধার শোধ হয়ে গিয়ে থাকে৷ শেষমেষ নিজের প্রয়োজন মেটাতে কিছু বাড়তি রোজগারও হয়৷”

চাল বাছাটাই হলো সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ কাজ৷ আইভরি কোস্টের চালে অনেক সময় কাঁকর অথবা বালি থাকে৷ কোনে নিয়ানলংগঁ পুরো ফসলটা নিয়ে যান কাছের একটা রাইস মিলে, ছাঁটাইয়ের জন্য৷ একটি চীনা যন্ত্রে চাল ছাঁটা হয় নিখুঁতভাবে৷ সেই চাল স্বয়ংক্রিয়ভাবে বাছাই করে কোয়ালিটি অনুযায়ী প্যাক করা হয়৷ কাজেই মিহি চাল, হোলমিল চাল বা আধভাঙা রিসতো বা রিসত্তো চাল, গ্রাহকরা কী কিনবেন, সেটা তারা নিজেরাই বেছে নিতে পারেন৷

জিয়ে-ইয়াইয়া কুলিবালি, কাতিও-আকপা রাইস মিলের পরিচালক জানালেন, ”লোকে খোলা চাল কিনতে চায় না৷ বাজারে খোলা চাল বিক্রি হয় কিন্তু কেউ জানে না, সে চাল কোথা থেকে আসছে৷ একটা ব্র্যান্ড চাই, ডিস্ট্রিবিউশন নেটওয়ার্ক থাকা চাই, তবেই লোকে কিনবে৷ যারা একবার স্থানীয় চাল খেয়েছে, তারা বার বার সেই চাল কিনবে৷”

আইভরি কোস্টের আর্থিক ও অর্থনৈতিক রাজধানী আবিদজানে নিউ রাইস কোম্পানির সব পণ্য প্যাক করা হয়৷ কোনে নিয়ানলংগঁ কিন্তু কৃষি বা খাদ্য প্রযুক্তি নিয়ে পড়াশুনো করেননি৷ তিনি শুধু মার্কেটিং বোঝেন৷ আফ্রিকায় কৃষিপণ্য বিক্রি করে ভালো পয়সা করা যায় বলে তার বিশ্বাস৷ নিউ রাইস এখন সুপারমার্কেটে কিনতে পাওয়া যায়, এমনকি ফেরিওলারা রাস্তায় ফেরি করে৷

‘নিউ রাইস’-এর প্রতিষ্ঠাতা কোনে নিয়ানলংগঁ বলেন, ‘‘আমাদের স্বপ্ন হলো, আমরা একদিন ‘মেড ইন আইভরি কোস্ট’ লেবেল দিয়ে এই চাল রপ্তানি করব৷ আর সেটা শুধু কোয়ালিটি দিয়ে করা সম্ভব৷”

স্বদেশে নিউ রাইসের যে চাহিদা, তা মেটানোই এ পর্যন্ত সম্ভব হয়ে ওঠেনি৷ পরের সাপ্লাই আসা অবধি সকলকে অপেক্ষা করতে হচ্ছে৷ কোনে নিয়ানলংগঁ শীঘ্রই আর একটি গ্রামের সঙ্গে সহযোগিতা শুরু করবেন৷

সূত্র: ডয়চে ভেলে

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭, ০১৭১৭ ৬৮ ১২ ১৪ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: