সর্বশেষ আপডেট : ৪ মিনিট ৩০ সেকেন্ড আগে
বৃহস্পতিবার, ২৩ মার্চ, ২০১৭, খ্রীষ্টাব্দ | ৯ চৈত্র ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

ফিফার বর্ষসেরা খেলোয়াড় রোনালদোই

r-big20170110012748খেলাধুলা ডেস্ক ::
কিছুদিন আগে জিতেছেন ব্যালন ডি’অর। ফিফা বর্ষসেরা খেতাব অর্জনের তালিকায় মেসির চেয়ে রোনালদোই ছিলেন এগিয়ে। শেষ পর্যন্ত তার ব্যতয় হয়নি। ব্যালন ডি’অরের পর ফিফার বর্ষসেরার খেতাবও জিতেছেন রিয়াল মাদ্রিদের পর্তুগিজ উইঙ্গার ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো। সোমবার জুরিখের আলো ঝলমলে রাতে বর্ষসেরার স্মারক ‘দ্য বেস্ট’ পেয়ে বেশ খুশিই ছিলেন তিনি।

সংক্ষিপ্ত তালিকায় রোনালদোর সঙ্গে ছিলেন মেসি ও গ্রিজম্যান। কোপা দেল রের ম্যাচের কারণে জুরিখে উপস্থিত ছিলেন না মেসি। অন্যদিকে ব্যালন ডি’অর অনুষ্ঠানে ক্লাব বিশ্বকাপের কারণে উপস্থিত থাকতে না পারলেও বর্ষসেরার খেতাব ‘দ্য বেস্ট’ হাসি মুখেই গ্রহণ করেছেন সিআরসেভেন।

জাতীয় দল তো বটেই ক্লাব পর্যায়েও গেল বছরটা রোনালদোর সাফল্য ছিল চোখে পড়ার মতো। প্রথমবারের মতো পর্তুগালের হয়ে ইউরো জয়ী ক্যাপ্টেন, রিয়াল মাদ্রিদের হয়ে ইউরোপিয়ান ক্লাব শ্রেষ্ঠত্বের লড়াইয়ের স্মারক চ্যাম্পিয়ন্স লিগের ট্রফি জয়।

২০১৬ সালটা আসলে রোনালদোরই ছিল। পর্তুগালের হয়ে ইউরো শিরোপা, রিয়ালের হয়ে চ্যাম্পিয়ন্স লিগ জয়। এ বছরে অর্ধশতকের বেশি গোল করেছেন রোনালদো। রিয়ালকে চ্যাম্পিয়নস লিগ জেতাতে গত মৌসুমে ১২ ম্যাচ খেলে ১৬ গোলের রেকর্ড ছিল তার।

ইউরোতে মাত্র ৩ গোল। কিন্তু ফাইনাল ম্যাচের মাঝে চোট নিয়ে মাঠ ছাড়লেও কোচ ফের্নান্দো সান্তোসের সহকারী হিসেবে টাচলাইনে ছিলেন অনন্য। পর্তুগিজ তারকা দেশকে প্রথমবার এনে দেন কোনও বড় শিরোপা। অবশ্য লা লিগা ও কোপা ডেল রে না জেতাটা তার জন্য বড় আক্ষেপ হতে পারে।

অন্যদিকে মেসি লিগ ও কাপ দুটোই জিতেছিলেন। গোলের রেকর্ডও ভালো ছিল। কিন্তু একটি জায়গায় রোনালদোর চেয়ে পিছিয়ে থাকতে হয় তাকে। পর্তুগিজ ফরোয়ার্ড যেখানে ইউরো জিতেছেন, সেখানে মেসি আর্জেন্টিনাকে ফাইনালে তুলে আরেকবার ব্যর্থ হয়েছেন। কোপা আমেরিকা জিততে পারেননি তিনি।

অবশ্য রোনালদোর সঙ্গে ক্লাব লড়াইয়ে বেশ এগিয়ে ছিলেন মেসি। রিয়ালের তারকা এ বছর ৪২টি ক্লাব ম্যাচ খেলে করেছেন ৩৮ গোল, যেখানে বার্সার জার্সিতে ৫০ ম্যাচ খেলে ৫০ গোল আর্জেন্টাইন ফরোয়ার্ডের। কিন্তু দেশের হয়ে রোনালদোর (১৩) চেয়ে ৫ গোল পিছিয়ে মেসি (৮)।

২০০৮ সালে প্রথম ফিফার বর্ষসেরা ও ফ্রান্স ফুটবল সাময়িকীর ব্যলন ডি’অর পুরস্কার জিতেছিলেন রোনালদো। দুটি পুরস্কার একীভূত হওয়ার পর ২০১৩ ও ২০১৪ সালের ‘ফিফা ব্যালন ডি’অর’ জেতেন পর্তুগিজ ফরোয়ার্ড। দুটি পুরস্কার আলাদা হয়ে যাওয়ার পর ২০১৬ সালের ব্যালন ডি’অর জেতার পর ফিফার ‘দ্য বেস্ট’ হয়ে চর্তুথবারের মতো তিনি হলেন বর্ষসেরা ফুটবলার।

ফিফার বর্ষসেরা ফুটবলার নির্বাচন প্রক্রিয়ায় এবার কিছুটা পরিবর্তন হয়েছে। এবার বিভিন্ন দেশের জাতীয় দলের কোচ ও অধিনায়কের শুধু ৫০ শতাংশ ভোট নেওয়া হয়েছে। বাকি ৫০ শতাংশে ভোট দিয়েছেন সমর্থক আর সারা বিশ্বের দুই’শর বেশি সাংবাদিক।

অন্যদিকে বর্ষসেরা নারী খেলোয়াড় হয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের ক্লাব হিউস্টন ড্যাশের মিডফিল্ডার কার্লি লয়েড। বর্ষসেরা কোচ লেস্টার সিটির ক্লদিও রানেইরি। জার্মানির সিলভিয়া নাইড পেয়েছেন বর্ষসেরা নারী কোচের পুরস্কার। আর বছরের সেরা গোলের পুসকাস অ্যাওয়ার্ড পেয়েছেন মালয়েশিয়ার অখ্যাত মোহাম্মদ ফাইজ সুবরি।

বিশ্বজুড়ে ফুটবলীয় চেতনা ছড়িয়ে দেওয়ার জন্য কলম্বিয়ার ক্লাব অ্যাটলেটিকো ন্যাসিওনাল পেয়েছে ফিফা ফেয়ার প্লে পুরস্কার।

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭, ০১৭১৭ ৬৮ ১২ ১৪ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: