সর্বশেষ আপডেট : ২ মিনিট ৯ সেকেন্ড আগে
রবিবার, ২৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৭, খ্রীষ্টাব্দ | ৯ আশ্বিন ১৪২৪ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

জিপিএ-৫ এর চার পয়সা দাম নেই – ড. জাফর ইকবাল

1-daily-sylhetনিজস্ব প্রতিবেদক:: লেখক গবেষক মুহাম্মদ জাফর ইকবাল বলেছেন, ‘এখন পাওয়া জিপিএ ৫ এর চারপয়সা দাম নেই। এখন গুরুত্বপুর্ন হচ্ছে তুমি কতটুকু জানো ঠিক সেটাই। জিপিএ ৫ পাওয়া বহু শিক্ষার্থী পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষায় পাস করতে পারেনা। কারন তারা এ প্লাস ধারী হলেও তাদের জানার পরিধি অনেক কম। তিনি বলেন, মুল্যবোধের চর্চার মাধ্যম হল পরিবার ও বই। কিন্তু আমরা এখন পড়ি কম দেখি বেশি। বুক আর ফেসবুকের মাঝে আমরা লাইক কমেন্টসের ফেসবুকেই বেশি সময় কাটাই। ভাল মানুষ হতে হলে অনেক ভাল বই পড়তে হবে।

বেসরকারী এনজিও আইডিয়া ও গন স্বাক্ষরতা অভিযানের আয়োজনে পুলিশ লাইন্স হাই স্কুলে অনুষ্ঠিত এক মত বিনিময় সভায় তিনি এসব কথা বলেন। সিএসইএফ এর সহায়তায় আয়োজিত “শিক্ষাঙ্গনে শান্তি ও মুল্যবোধ চর্চা’ আমাদের করনীয় ” শীর্ষক এক মতবিনিময় সভায় প্রানবন্ত আলোচনায় অংশ নেন লেখক জাফর ইকবাল সহ আরো অনেক গুনীজন। সিলেট শহরে অবস্থিত কয়েকটি স্কুলের শিক্ষার্থীদের নিয়ে আয়োজন করা হয় এই সভার।

গনস্বাক্ষরতা অভিযানের নির্বাহী পরিচালক ও তত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা রাশেদা কে মেনন চৌধুরীর সঞ্চালনায় শান্তি ও মুল্যবোধ নিয়ে বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তরে প্রানবন্ত জবাব দেন লেখক জাফর ইকবালসহ অনুষ্ঠানে আগত অতিথিরা। জাতীয় সংগীত গাওয়ার মাধ্যমে অনুষ্ঠানের সূচনা করা হয়। পরিবার থেকে মুল্যবোধ শেখার বিষয়ে জাফর ইকবাল একটি গল্প বলেন।15902635_809636449175659_228690600_o

তিনি বলেন স্কুল জীবনে পড়া না পারার কারনে শিক্ষকের কথায় একবার তিনি তার সহপাঠীর কান মলে দিয়েছিলেন। পরে বাসায় এসে যখন তার মা বাবাকে ব্যাপারটি বলেন তখন তার মা বাবা রেগে আগুন হয়ে যান। তারা তাকে তার সহপাঠির কাছে ক্ষমা চাইতে বলেন।

জাফর ইকবাল বলেন আমাদের পরিবারে হয়ত অনেক সমস্যা আছে কিন্তু সেখান থেকেই আমাদের শিখে নিতে হবে। আর পরিবার থেকে যদি কিছু শিখতে না পারি তাহলে আমাদের আশ্রয় হবে বই। বই পড়তেই হবে । কারন চাইলেই আমরা রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর, হুমায়ুন আহমেদের সাথে দেখা করতে পারব না। কিন্তু তাদের বই পড়লেই আমরা তাদের সাথে দেখা করতে পারি। তবে আমরা এখন বই পড়ার চেয়ে ফেসবুকেই বেশি সময় কাটাই। আমরা পড়ি না শুধু দেখি।

মিথ্যা কথা সম্পর্কে এক শিক্ষার্থীর প্রশ্নের জবাবে বলেন, আমরা এমন মিথ্যা বলব না যে মিথ্যায় কারো ক্ষতি হয়। স্বজনপ্রীতি নিয়ে এক শিক্ষার্থীর প্রশ্ন করলে তিনি বলেন, চাকরি করার ক্ষেত্রে স্বজনপ্রীতি হয়ে থাকে। তোমরা চাকরী করবা কেন। তোমরা চাকরি দিবা। তোমরা চাইলেই কয়েকজন বন্ধু মিলে এমন কোন কিছুর উদ্যোগ নিতে পারো যাতে অনেক মানুষের কর্মসংস্থান হবে। তিনি জোর দিয়ে বলেন, আজকের যুগে এটা সম্ভব। শিক্ষকদের ভাল মনের মানুষ হওয়ার পরামর্শ দিয়ে তিনি বলেন একজন শিক্ষক সৃজনশীল হলেই একজন শিক্ষার্থীর সৃজনশীল হওয়া সম্ভব।
অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন, অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার মোহাম্মদ আযম খান, মদন মোহন কলেজের অধ্যক্ষ ড. আবুল ফতেহ ফাত্তাহ,মাধ্যমিক উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষা উপ পরিচালক জাহাংগীর কবির আহাম্মদ,পুলিশ লাইন্স স্কুলের প্রধান শিক্ষক শাহ আলম,বাপা সিলেট সাধারন সম্পাদক আব্দুল করিম কিম, রানা সিংহা সহ আরো অনেকে।

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭, ০১৭১৭ ৬৮ ১২ ১৪ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: