সর্বশেষ আপডেট : ১ ঘন্টা আগে
মঙ্গলবার, ২২ অগাস্ট, ২০১৭, খ্রীষ্টাব্দ | ৭ ভাদ্র ১৪২৪ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাবর্তনে অংশ নেবে ৫ হাজার গ্রাজুয়েট

nu-logo-300x278নিউজ ডেস্ক:: বিশ্ববিদ্যালয়ের ১৫টি ব্যাচের ২০ লাখ স্নাতকের মধ্যে থেকে সমাবর্তনে অংশ নিতে নিবন্ধন করেছেন মাত্র চার হাজার ৯৩২ জন।

সমাবর্তন আয়োজনে খরচ হবে দুই কোটি টাকা। এ হিসাবে শিক্ষার্থীদের মাথাপিছু খরচ হবে চার হাজার ৫৫ টাকা।

বুধবার(৪ঠা জানুয়ারি) ধানমণ্ডিতে বিশ্ববিদ্যালয়ের নগর কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে উপাচার্য অধ্যাপক হারুন-অর-রশিদ জানান, আগামী ১৭ জানুয়ারি বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে প্রথম সমাবর্তনে তিন হাজার ১৩৭ জন ছাত্রী এবং এক হাজার ৭৯৫ জন ছাত্র অংশ নেবেন।

প্রথম সমাবর্তনে অংশ নিতে আড়াই হাজার টাকা নিবন্ধন এবং সনদের জন্য ৫০০ টাকা দিয়েছেন চার হাজার ৯৩২ জন।

বিশ্ববিদ্যালয়ের আচার্য ও রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ সমাবর্তনে উপস্থিত থাকতে সম্মতি দিয়েছেন জানিয়ে অধ্যাপক হারুন বলেন, “স্নাতক, স্নাতকোত্তর, এমফিল ও পিএইচডি শিক্ষার্থীরা চ্যান্সেলর কর্তৃক আনুষ্ঠানিকভাবে ডিগ্রিপ্রাপ্ত হবেন।”

১৯৯২ সালে বিশেষায়িত বিশ্ববিদ্যালয় হিসেবে গাজীপুরে প্রতিষ্ঠিত হয় জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়। এর অধীনে বর্তমানে দুই হাজার ১৫৪টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ২০ লাখেরও বেশি শিক্ষার্থী পড়াশোনা করছে।

সমাবর্তেন এত কম শিক্ষার্থীর অংশ নেওয়ার বিষয়ে জানতে চাইলে অধ্যাপক হারুন বলেন, “এত বছর পরে (সমাবর্তন) হওয়ার কারণে অনেকে দেশে-বিদেশে চলে গিয়েছে। আরেকটা যদি বলি, আস্থাহীনতার সংকট। এর আগে একবার উদ্যোগ নেওয়া হলেও সফল হয়নি, ২৪ বছরেও হয়নি।”

১৯৯৮ থেকে ২০১২ সাল পর্যন্ত ২০ লাখ শিক্ষার্থী জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পাস করেছেন জানিয়ে তিনি বলেন, সমাবর্তনে অংশ নিতে নিবন্ধনের সময় শেষ হওয়ার পরেও অনেকেই টাকা জমা দিতে চেয়েছিল।

“আমাদের ভাবনা ছিল (সমাবর্তনে) অনেক বেশি (নিবন্ধন) হবে। একবার এটা হয়ে গেলে এরপর দেখবেন যে কি অবস্থা হয়। নেক্সট টাইমের কনভোকেশন বঙ্গবন্ধুতে (বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্র) করা যাবে না ।”

গত ২৪ বছরেও কেন সমাবর্তন হয়নি এমন প্রশ্নে তিনি বলেন, “অর্থের কারণে করা যাচ্ছে না এটা ঠিক না। … অনেক চ্যালেঞ্জ আছে। সেই চ্যালেঞ্জ গ্রহণ করার মন-মানসিকতা ও দৃঢ়তা থাকতে হয়।

“একটা সমাবর্তন করার জন্য যে ধরনের উদ্যোগ-অঙ্গিকার দরকার তাতে ল্যাকিং ছিল। নানা ধরনের অ্যাডভারসিটি থাকা সত্বেও করা যেত না এটা আমি বিশ্বাস করি না, কোনোভাবে এটা হয়নি।”

আগামী ১২, ১৪ ও ১৫ জানুয়ারি সকাল সাড়ে ৯টা থেকে রাত ১০টা পর্যন্ত ধানমণ্ডির নগর কার্যালয় (বাড়ি ৫৮, রোড ৮/এ) থেকে গাউন বিতরণ করা হবে বলে জানান অধ্যাপক হারুন।

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য (প্রশাসন) অধ্যাপক মোহাম্মদ আসলাম ভুইয়া, উপ-উপাচার্য (অ্যাকাডেমিক) অধ্যাপক হাফিজ মো. হাসান বাবু, কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক নোমান-উর রশীদ প্রমুখ সংবাদ সম্মেলনে ছিলেন।

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭, ০১৭১৭ ৬৮ ১২ ১৪ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: