সর্বশেষ আপডেট : ১১ মিনিট ১২ সেকেন্ড আগে
সোমবার, ২৬ জুন, ২০১৭, খ্রীষ্টাব্দ | ১২ আষাঢ় ১৪২৪ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

পাঠ্যবইয়ে ‘শিক্ষাগুরুর মর্যাদা’ ও বর্তমান প্রেক্ষিত

mnreza_1349480270_1-badsahঅধ্যক্ষ মুজম্মিল আলী ::
কবি কাজী কাদের নেওয়াজের ‘শিক্ষাগুরুর মর্যাদা’ কবিতাটি বর্তমান সময়ের শিক্ষকদের ও মনোতুষ্টি জোগায় বটে । কবিতাটিতে বাদশাহ আলমগীর তার সন্তানককে দিয়ে শিক্ষকের প্রতি যখন যথাযথ সম্মান প্রদর্শনের বিষয়টি নিশ্চিত করেন, তখন তাবত দুনিয়ার শিক্ষকগণ আত্ম সম্মানে বলীয়ান হয়ে ওঠেন। ছোট বেলায় কবিতাটি বহুবার পড়েছি । যতবার পড়েছি, শিক্ষকের প্রতি শ্রদ্ধায় ততবার মাথা নুয়ে পড়েছে । সাথে বাদশাহ আলমগীরের প্রতি ও শ্রদ্ধাবনত হয়েছি । কোন শিক্ষক যখন কবিতাটি পড়েন কিংবা পড়িয়ে থাকেন, তখন নিশ্চয় আত্ম সম্মানে তার মনটা ভরে ওঠে। সে এক অন্য রকম মানসিক তৃপ্তি বৈ কিছু নয় ।

কালের বিবর্তনে চিন্তা-চেতনা ও ধ্যান-ধারণায় নানা পরিবর্তন এসেছে । জীবন যাত্রা ও জীবনাচরণে আজ কতো ব্যবধান! দেশ-কাল-পাত্র ভেদে অবস্থার ভিন্নতা পরিলক্ষিত । কবির কবিতায় শিক্ষকের প্রতি যে সম্মান দেখানো হয়েছে , আজকালের বাস্তবতায় এর কতটুকু সামঞ্জস্য খুঁজে পাওয়া যায় ? আমাদের সমাজে এখন শিক্ষকদের মান মর্যাদায় বিরাট এক দূর্দিন । মুখে অনেকে বলেন, শিক্ষকদের কতই না সম্মান ! শিক্ষক জাতি গঠনের কারিগর ! সেদিন শিক্ষার মানোন্নয়ন বিষয়ক এক অনুষ্ঠানে জনৈক অশিক্ষক বক্তা কর্তৃক শিক্ষকদের জাতি গঠনের ‘নিপুন শিল্পী’ বলে আখ্যায়িত করতে শুনলাম। শুনতে ভালই লেগেছে । কিন্তু, যাদের এত সম্মান (!) সে সব শিক্ষকদের দিন অতিবাহিত হয় কীভাবে ?

আমাদের বাংলা ভাষায় যে কাউকে বিশেষায়িত করবার জন্য বিশেষণ পদের অবারিত ব্যবহার । শিক্ষকদের কেবল ভাষা দিয়ে পরিতুষ্ট করে রাখার ক্ষেত্রে সম্ভবতঃ আমরাই বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন।পৃথিবীর অন্য সকল দেশে শিক্ষকদের উন্নত জীবন মান নিশ্চিত করেই তবে তাদের প্রতি ভাষাগত সম্মান প্রদর্শন করা হয় । শিক্ষকের জন্য এ সম্মানই প্রকৃত সম্মান । আর আমাদের এখানে ? এখানে শিক্ষকদের জীবন মানের খবর নেই।কেবল ভাষাগত বিশেষণে বিশেষায়িত করা। কিন্তু, কেবল কথায় যে চিড়ে ভেজে না-সে কারো অজানা নয় । আমাদের শিক্ষকদের আজকাল অনেকেই ভাল চোখে দেখে না।মুখে মুখে শিক্ষকের গুণকীর্তন দু’ চারজনে করে বটে। সে কতটুকু বা আন্তরিকতা নিয়ে করে, সে বিষয়ে প্রশ্ন থেকে যায় । এ দেশে কত শিক্ষক পরিবার-পরিজন নিয়ে অনাহারে ও অর্ধাহারে দিন কাটান, সে হিসেব কে জানে ? কেবল সালাম আর আদাবে পেট ভরে না।পাঁচশ’ টাকার নীচে কোন ডাক্তারের ভিজিট নেই।যে সব শিক্ষক চিকিৎসা ভাতা মাত্র পাঁচশ’ আর বাড়ি ভাড়া এক হাজার টাকা পান,তাদের মর্যাদাটুকু বাঁচে কী করে ? যারা ঈদ বোনাসের টাকা দিয়ে একটা খাঁসি ও কিনতে পারেন না, কবিতার শিক্ষাগুরুর মর্যাদা তাদের কতটুকু তৃপ্তি জোগাতে পারে ?

কবি কাজী কাদের নেওয়াজ বিংশ শতাব্দীর সূচনা লগ্নের কবি । মূলতঃ তিনিও একজন শিক্ষক ।এক শিক্ষকের কবি মন আরেক শিক্ষকের মর্যাদায় সঙ্গত কারণে উচ্ছসিত হয় । আর আজ থেকে প্রায় একশ’ বছর আগের বাস্তবতা এবং আজকের বাস্তবতার মধ্যে বিস্তর ফারাক ।

গত কয়েকটা বছর কবি কাদের নেওয়াজের উল্লিখিত কবিতাটি আমাদের পাঠ্যপুস্তক থেকে উধাও হয়ে গিয়েছিল । শিক্ষকদের মর্যাদা ক্ষুন্ন করার এ কোন অপকৌশল ছিল কীনা কে জানে? এ নিয়ে দৈনিকশিক্ষায় অনেক লেখালেখি হয় । এ বছর পঞ্চম শ্রেণির বাংলা বইয়ে কবিতাটি পুনরায় সংযোজিত হওয়ায় অনেকেই একে ইতিবাচক বলে মনে করছেন। অনেকে তাতে শিক্ষকের মর্যাদা পুনঃপ্রতিষ্ঠিত হবার আলামত মনে করে উচ্ছসিত হয়েছেন । কিন্তু,এ যে কাব্যের স্তুতি । এর বাস্তব প্রতিফলন প্রতিষ্ঠা করা আজ অপরিহার্য হয়ে ওঠেছে ।

কেবল পাঠ্যবইয়ে ‘শিক্ষাগুরুর মর্যাদা’ প্রতিষ্ঠা করলে কী হবে ? যে দেশে বছরের পর বছর শিক্ষকতা করে অনেকে বেতনটুকু পর্যন্ত পান না-অনেকে অপর্যাপ্ত বেতন পান-কেউ কেউ বৈশাখি ভাতা ও ইনক্রিমেন্ট প্রাপ্য হয়ে ও পান না-সে দেশের শিক্ষকরা ‘শিক্ষাগুরুর মর্যাদা’ কবিতা পড়ে কিংবা পড়িয়ে কতটুকু তুষ্ট হতে পারেন ? মোটেই নয় । তাই কেবল কবিতায় নয়, বাস্তবে ও শিক্ষকের মর্যাদা যথাযথ প্রতিষ্ঠা করা আজ একান্ত দরকার হয়ে ওঠেছে । অন্যথায় জাতি হিসেবে আমরা নিজেদের মর্যাদা একদিন নিজেরাই হারিয়ে ফেলব ।

লেখক : অধ্যক্ষ, চরিপাড়া উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজ, কানাইঘাট, সিলেট।

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭, ০১৭১৭ ৬৮ ১২ ১৪ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: