সর্বশেষ আপডেট : ১ মিনিট ৫৪ সেকেন্ড আগে
শনিবার, ১৯ অগাস্ট, ২০১৭, খ্রীষ্টাব্দ | ৪ ভাদ্র ১৪২৪ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

নবীপ্রেম জাগ্রত করেই জঙ্গীবাদমুক্ত বাংলাদেশ কায়েম করতে হবে

unnamedআল-হেলাল,সুনামগঞ্জ:: পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী (সঃ) পালন উপলক্ষ্যে সুনামগঞ্জ সদর উপজেলার কুরবাননগর ইউনিয়নের গুদারগাও গ্রামে ইসলামী আজিমুশ্শান মাহফিল সম্পন্ন হয়েছে। এতে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় আস্তর্জাতিক সূফী ঐক্য সংহতির চেয়ারম্যান ও আনজুমানে রহমানীয়া মইনীয়া মাইজভান্ডারিয়ার কেন্দ্রীয় সভাপতি শাহ্ সূফী সৈয়দ সাইফুদ্দীন আহমদ এর সুযোগ্য উত্তরসুরী সৈয়দ সহিদ উদ্দিন আহমদ ক্বোরআন সুন্নাহর আলোকে পরিবার সমাজ ও রাষ্ট্র পরিচালনার জন্য নিজেদেরকে যোগ্য মুমিন হিসেবে গড়ে তুলতে সকল ধর্মপ্রান মুসলমানদের প্রতি উদাত্ত আহবান জানিয়েছেন।

তিনি বলেছেন,কিছু উগ্রপন্থী লোকের অন্যায় অপতৎপরতার কারনে আজ পবিত্র ধর্ম ইসলামের বদনাম হচ্ছে। অথচ ইসলাম হচ্ছে শান্তি ও সম্প্রীতির ধর্ম। পবিত্র ধর্ম ইসলামে জুলুমবাজ ও জঙ্গীবাদের কোন স্থান নেই। সারা বিশ্বের ন্যায় আজ বাংলাদেশে বড় চ্যালেঞ্জ হচ্ছে তাগুত জুলুমবাজ ও জঙ্গীবাদকে মোকাবেলা করা। আমরা নবীপ্রেম দিয়ে জুলুমবাজ ও জঙ্গীবাদের মোকাবেলা করবো। ২৫ ডিসেম্বর রবিবার রাতে সুনামগঞ্জ শহরতলীর গুদারগাও গ্রামে পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী (সঃ) উপলক্ষে অনুষ্ঠিত আলোচনা ও দোয়া মাহফিলে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি একথা বলেন। আনজুমানে রহমানীয়া মইনীয়া মাইজভান্ডারিয়া সুনামগঞ্জ জেলা শাখার প্রতিনিধি আব্দুল হেকিম মাইজভান্ডারীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত মাহফিলে অন্যান্যর মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, কুরবাননগর ইউনিয়নের প্যানেল চেয়ারম্যান মোঃ আব্দুল কাইয়্যুম,ইউপি সদস্যা মোছাঃ করিমুন নেছা,মোছাঃ করফুল নেছা,ইউপি সদস্য মোঃ আলাউদ্দিন, ইউপি সদস্য মতিউর রহমান, ইউপি সদস্য নুর উদ্দিন, মোঃ আলমগীর কবীর রুহিনূর শাহ,সাবেক মেম্বার মোঃ আবু তাহের,সাংবাদিক আল-হেলাল,বিশিষ্ট মুরুব্বী আব্দুন নূর,ওয়ারিশ আলী ও আমরা মুক্তিযোদ্ধার সন্তান সদর উপজেলা শাখার সহ-সভাপতি নেছার আহমদ শফিকসহ এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ। শাহ্ সূফী সৈয়দ সহিদ উদ্দিন আহমদ বলেন, নবীপ্রেম যেখানে আল্লাহর মহব্বত রহমত ও নেয়ামত সেখানে। যেখানে নবীর সাথে বেয়াদবী শিক্ষা দেয়া হচ্ছে সেখানেই জঙ্গীবাদ সৃষ্টি হচ্ছে। এই জঙ্গীবাদ হচ্ছে শয়তানী মতবাদ। মনে রাখতে হবে নবীর দরুদ দেশের মানুষকে আদব শিক্ষা দেয়। আল-কোরআন ও নবীপ্রেম কেয়ামত পর্যন্ত জাগ্রত থাকবে। কেউ থাকে রুখতে পারবেনা। দেশে কারবালার স্মরনে মাহফিল করতে দেয়া হয়না উল্লেখ করে তিনি আরো বলেন,নবীর দরুদ যেমন মানুষকে আদব শেখায় তেমনি কারবালার চেতনা মুসলমানদেরকে ত্যাগ ও ঈমানী চেতনায় উদ্বুদ্ধ করে। তাই নবীপ্রেম ও কারবালার চেতনাকে জাগ্রত করেই জঙ্গীবাদমুক্ত বাংলাদেশ কায়েমে সকলকে এগিয়ে আসতে হবে।

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭, ০১৭১৭ ৬৮ ১২ ১৪ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: