সর্বশেষ আপডেট : ৫৩ সেকেন্ড আগে
শনিবার, ২৪ জুন, ২০১৭, খ্রীষ্টাব্দ | ১০ আষাঢ় ১৪২৪ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

রেলস্টেশনে দাঁড়িয়ে আছো তুমি আর এ দিকে হুইসেল বাজিয়ে চলে যাচ্ছে ট্রেন…

fদেলোয়ার হোসাইন::
আমি তোমার কথাই ভাবছিলাম। অন্য আলোয় যে তুমি মুখিয়ে থাকো সুখের আঙিনায়। সুখ গুলো তাই তোমার উঠোনে উড়ে উড়ে ভিড় করে। তবে কি পালের বাতাস তোমার অনুকুলে ? আমি বেদনার কোলবালিশটা বুকে নিয়ে নৈঃশব্দ্যের গান গাই আর তুমি তুমি বলে বিগত নয়টি বছরের স্মৃতি হাতড়ে বেড়াই…

কোথায় তুমি ? বীরপুরেরইস্নগ্ধ প্লাটফর্ম ছেড়ে জাদুর শহরে স্বপ্নের ডালপালা ছড়িয়েছো বেশ। সরষে ফুল আর মাশকালাইয়ের ঘ্রাণ থেকে দূরে, জোসনার মায়াবী আলো থেকে পালিয়ে, অনুভূতিহীন নগরে কেমন আছো তুমি ? কেমন কাটছে নাগরিক জীবন?

শুনেছি বেশ আছো। রঙিন দিনে উল্লাসি বুননে বর্ণমালায় সাজিয়েছো নতুন শ্লোগান। এখন আর পিছু ডাকে না কেউ ব্যস্ত অনুণয়ে। সময়কে নিজের করে নিয়ে সুখের বন্দরে ভাসিয়েছো তরী। এখন আর কোন পিছুটান নেই, নেই কোন আগামীর প্রবঞ্চনা। তোমর কাছে এখন সবটাই বর্তমান। সবকিছুই নতুন। তাইতো আমি আজ আমার কাছে অতীত অন্ধকার। অন্ধকারকে মনে রাখতে নেই…

আমি আছি সেই আগের মতো। এখনো নিয়ম করে সিগারেট ফুকি, বেখেয়ালি ভাবনায় কবিতায় হোচট খাই। রোজ ঘুম থেকে দেরি করে উঠি। অভিশপ্ত ভাবনা গুলো নিয়ে প্রতিদিন ছোট হতে থাকি। ছোট হতে হতে এখন আমি শূণ্যের ঘরে পড়ে থাকি মনের দরজা বন্ধ করে। কেবল তোমার মতো গুছিয়ে উঠতে পারিনা…
আমি এই, যাকে তুমি একদিন তোমার জীবনে কামনা করেছিলে। অথচ কামনার সব রঙ মুছে গেল বেদনার আগুনে। সবই কপাল তাই না ! হতেও পারে। কপালে খচিত যত মেঘ, যত রোদ ঠিক ততটাই আমাদের ব্যর্থতার ইতিহাস। একদিন তুমি যেটাকে স্বপ্ন বলতে আমি সেটাকে বলতাম প্রবঞ্চনা। আর তুমি আজ যেটাকে প্রবঞ্চনা বলে মেনে নিলে আমি সেটাকে স্বপ্ন বলে বাঁচিয়ে রাখি। এটাই কপাল…

কপালের কি দোষ বলো ? আমাদের যাবতীয় লোভ ও লাভের শেষ পরিণতির দায় আমাদের। আমরাই ভাঙি, আমরাই গড়ি। আবার আমরাই আমাদের দায়ি করি, দায়ি ভাবি। তাতে কপালের কিছু যায় আসেনা। হয়তো আমরা পারিনি আমাদেরকে বুঝে উঠতে, আর তাই আমরাই হেরেছি আমাদের কাছে।
তোমার সাথে বনিবনা না হওয়ার তেমন কিছু ছিলনা। তবে অপারগতার দায় ছিল। যা থেকে তুমি আমি কেউই মুক্ত নই। এটাই গোপন আর্তনাদ, দীর্ঘ দীর্ঘশ্বাস। তুমিতো জানতে চারপাশে গজিয়ে ওঠা কাঁটা গুলোর নির্মম আঘাতের কথা। তবে কেন মিছে ভৈববে বারবার ফিরে ফিরে আসা ?

সেদিন হঠাৎ করে মুঠোফোনে তোমার নাম্বারটি ভেসে উঠলো। না না কল দাওনি তুমি। মাত্র ছ’টি অক্ষরের একটা এসএমএস। এসএমএসটা দেখে মনটা ভীষণ খারাপ হয়ে গেল। ফিরতি মেসেজ দেবার কোন প্রয়োজন মনে করিনি বলে দূরত্বটা বজায় রেখেছি। আসলে তুমি আজ যেখানে নিজেকে নিয়ে গেছো সেখান থেকে আমার সাথে যোগাযোগ করাটা মানায় না। কেননা দগ্ধ মনে স্নিগ্ধ স্পর্শের কোন মানে হয় না।

মাঝে মাঝে ইচ্ছে করে উত্তরীয় বাতাসে কষ্ট গুলো উড়িয়ে দেই। জীবনের অনেকটা পথ হাঁটার পর যখন বুঝলাম আমি ভুল পথে হাঁটছি তখন নিজেকে প্রবোধ দেওয়ার আর কিছু বাকি থাকে না। ভুল পথই সহসাই পথ হয়ে ওঠে।

সারারাত আলোর দিকে থাকিয়ে থেকে যখন সকালে দেখলাম কুয়াশাই জয়ী। আমার ক্লান্ত চোখ তখন অন্ধকার ছাড়া আর কিছু দেখে নাই। আমি এখন অন্ধকারে অন্ধভাবে তোমাকেই খুঁজি। আমারতো কিছু করার ছিলনা। তুমি হয়তো বলবে এসব মিথ্যে কথা। সময়, সাহস, সাধ্য আমার ঠিকই ছিল অথচ আমি কিছুই করতে পারিনি। আসলে শেষ বাঁশিটা বাজার আগে তুমিই আমাকে মাঠ থেকে তাড়িয়ে দিয়েছো। বলেছো চোরাবালির কথা, চৈত্রের তাপদাহের কথা, শূণ্য গন্তব্যের কথা। অথচ একবারও যুদ্ধের কথা বলনি…

সময়ের ফ্রেমে থেমে আছে নয়টি বছর। থেমে আছি আমি, আমার জাগতিক দৌড়ঝাঁপ। তোমাকে বুঝাতে পারবো না স্মৃতির কি দহন। হয়তো তুমিও এই দহনে দগ্ধ। আমরা মানুষ বলে কষ্ট দেই, কষ্ট পাই। কাউকে বলা হয়না কিংবা কেউ কারো কষ্টের কথা শুনতে চায়না। জগতটাই এমন। আমাদের অতৃপ্ততার যন্ত্রনা গুলোর সাক্ষী কেবল আমরাই। ব্যবধান তবু থেকেই যায়। তুমি সব ভুলে অন্য আলোয় সাজিয়েছো পৃথিবী আর আজও রাত জেগে তোমার স্বপ্ন গুলো পাহারা দেই।
ইডেন কলেজ থেকে নিউ মার্কেট, টিএসসি থেকে কমলাপুর তুমি আছো সবখানে। আমি আজো চোখ বন্ধ করলে দেখতে পাই- বীরপুরের রেলস্টেশনে দাঁড়িয়ে আছো তুমি আর এ দিকে হুইসেল বাজিয়ে চলে যাচ্ছে ট্রেন…

বীরপুর টু জাদুর শহর। পিছনে পড়ে আছে নয়টি বছর। বলতে পারো কেন এমন হলো ? কেন এমন হয় ? কেন ভাঙনের ঝড়টা বারবার কেবল আমার দিকে তেড়ে আসে ? আমিতো এমনটা কখনোই চাইনি। বেদনার বালুচরে আজ কেবল বিষন্নতার ছড়াছড়ি। কোথাও আমার কোন আশ্রয় নেই। বেঁচে থাকার মিথ্যে অভিনয় করি নিজের সাথে। তুমি তা কখনোই দেখবে না, জানবে না। অথচ তোমার দেওয়া দুঃখ গুলো খুব যতনে আগলে রাখি বুকের খাঁচায়। দায় এড়িয়ে হারিয়ে গেলে কোন সে সুখের প্রলোভনে ? সুখি তুমি হয়েছো কি ? সুখ পাখির ডানা ঝাপটানি দেখে তুমি হয়তো ভুলে গেছো আগমনী
গান। জানি- একদিন সময়ের স্রোতে মুছে যাবে রোদের বাড়িঘর…

মন তবু তোমার কথা ভাবে। তপ্ত রোদে তোমাতে পেয়েছিলাম ছায়া। নিঃশ্বাসে বিশ্বাস। কামনায় শুদ্ধতার আহ্বান। স্বপ্ন যাত্রায় তুমি ছিলে সুখের সঙ্গী। একাকীত্বে তুমি বাড়িয়েছিলে হাত। আমি তোমার হাত ধরে হেঁটেছি এতটা পথ। মুগ্ধতায় কেটেছে জীবনের নয়টি বছর। অথচ মুগ্ধ হতে হতে আমি আজ দগ্ধ হয়ে গেছি। তুমি নেই, আমার কিছু নেই…

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭, ০১৭১৭ ৬৮ ১২ ১৪ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: