সর্বশেষ আপডেট : ১৯ মিনিট ৫০ সেকেন্ড আগে
মঙ্গলবার, ১৭ অক্টোবর, ২০১৭, খ্রীষ্টাব্দ | ২ কার্তিক ১৪২৪ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

চিরকুটে যেসব দাবি জানায় ‘জঙ্গিরা’

image-13441নিউজ ডেস্ক:: দক্ষিণখানের পূর্ব আশকোনায় সন্দেহভাজন জঙ্গি আস্তানা ঘেরাওয়ের পর পুলিশ ধৈর্যের সঙ্গে অপেক্ষা করছিল আত্মসমর্পণের। বিশেষ করে ভেতরে সবাই নারী, শিশু আর একজন কিশোর থাকায় বল প্রয়োগ করতে চায়নি পুলিশ। বারবার তাদেরকে আত্মসমর্পণ করার আহ্বান জানানো হয়। এ সময় ভেতরে থাকা নারী ও মেয়ে শিশুদের মা বলেও সম্বোধন করে পুলিশ।

পুলিশের আত্মসমর্পণের আহ্বানের মধ্যে এক পর্যায়ে নরম হয় ভেতরে অবস্থান নেয়া নারীরা। এক পর্যায়ে তারাও কিছু দাবি জানিয়ে চিরকুট পাঠায়। এসব চিরকুটে লেখা লেখা ছিল- ‘আমরা বাসা থেকে বের হবো, তবে শর্ত হচ্ছে- আমাদের নিরাপদে যেতে দিতে হবে। গ্রেপ্তার করা যাবে না। জেলে নেয়া যাবে না। আমাদেরকে যার যার বাড়িতে যেতে দিতে হবে ।’

ভেতরে কতজন ছিলো, ভেতরে কী কী আছে- এসব বিষয়ও চিরকুটের মাধ্যমে জানায় সন্দেহভাজন জঙ্গিরা। চিরকুটের জবাবে পুলিশও তাদের প্রস্তাবে রাজি হয়ে স্বাভাবিকভাবে বের হওয়ার জন্য বলে। কিন্তু তারা তালবাহানা করতেই থাকে।

পুলিশ সদস্যরাও হ্যান্ডমাইকে বার-বার আত্মসমর্পণের আহ্বান জানাতেই থাকে। পরে সকাল সাড়ে ১১টার দিকে জঙ্গি সদস্যদের মধ্যে দুই নারী তাদের একজন করে মেয়ে শিশুকে নিয়ে বের হয়ে আসেন।

অভিযানে কর্তব্যরত পুলিশের উপ-কমিশনার (ডিসি) মহিবুল হক বলেন, ‘যে দুই নারী আত্মসমর্পণ করে, তার মধ্যে তৃষ্ণা একটু পজেটিভ ছিল। সেই প্রথমে আত্মসমর্পণ করতে রাজি হয়। কিন্তু অন্যরা খুব কমপ্লিকেউটেড ছিল।’

বেলা সাড়ে ১২টার দিকে আত্মসমর্পণের কথা বলে বের হয়ে আসেন আরেক নারী। তিনি বাইরে বের হয়ে এসে তার শরীরে বাঁধা বিস্ফোরক ফাটিয়ে দেন। এতে এক পুলিশ কর্মকর্তা আহত হন। আহত হয় তার নিজের শিশু কন্যাও। আর প্রাণ হারিয়ে ফেলেন এই হামলাকারী নিজেও। পুলিশ জানায়, আত্মঘাতী হামলাকারী নারী ‘জঙ্গি’ সুমনের স্ত্রী। সুমনের বিস্তারিত পরিচয় জানা যায়নি।

এক প্রশ্নের জবাবে এই পুলিশ কর্মকর্তা বলেন, ‘কয়েকজনকে সঙ্গে নিয়ে মারা যেতে চেয়েছিল ওই জঙ্গি। কিন্তু আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সতর্ক অবস্থানের কারণে সেটি সম্ভব হয়নি।’

মহিবুল হক বলেন, ‘তাদের আমরা বের হয়ে আসার জন্য আল্টিমেটামে দিই। আল্টিমেটামের কিছুক্ষণ আগেই এক নারী তার মেয়েটাকে নিয়ে বের হয়ে আসে। তাকে বার-বার হাত উপরের দিকে তুলে আসতে বললেও সে স্বাভাবিকভাবে আসে। তখন পুলিশ সদস্যরা অস্ত্র তাক করে থাকেন। ঘর থেকে বেরিয়ে বাসার গেটের কাছে এসে কোমরে থাকা বোমাটি সুইচ চেপে বিস্ফোরণ ঘটনায় এক নারী। এতে ওই নারীর পেট ও ডানপাশে ক্ষত-বিক্ষত হয়ে মারা যায়। এরপর শিশুটি আহত অবস্থায় উদ্ধার করে নিয়ে আসা হয়।’ – ঢাকা টাইমস

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭, ০১৭১৭ ৬৮ ১২ ১৪ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: