সর্বশেষ আপডেট : ১৬ মিনিট ৫৬ সেকেন্ড আগে
বৃহস্পতিবার, ১৯ অক্টোবর, ২০১৭, খ্রীষ্টাব্দ | ৪ কার্তিক ১৪২৪ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

সরকারি সতীশ চন্দ্র বালিকা উচ্চবিদ্যালয়ের হীরকজয়ন্তী উদযাপন

oooooo042-copyসুনামগঞ্জ সংবাদদাতা ::
‘এসো মিলি প্রাণের উৎসবে’ স্লোগানকে ধারণ করে বর্ণাঢ্য আয়োজনে সুনামগঞ্জের প্রাচীন বিদ্যাপীঠ সতীশ চন্দ্র বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের ৭৫ বছর পূর্তি অনুষ্ঠান শুরু হয়েছে। দু’দিনব্যাপী এই পুনর্মিলনী উৎসবের প্রথম দিন গতকাল শুক্রবার সকাল থেকে বিদ্যালয়ের প্রাঙ্গণ উৎসবমুখর হয়ে ওঠে পুরনো ও নতুন শিক্ষক-শিক্ষার্থী ও কর্মকর্তা-কর্মচারীদের মিলন মেলায়।
শুক্রবার সকাল নয় টা থেকে পবিত্র কোরআন তেলাওয়াত, গীতা পাঠ, জাতীয় সংগীতের সঙ্গে জাতীয় পতাকা এবং হীরক জয়ন্তীর পতাকা উত্তোলন, পায়রা মুক্তকরণ, ফেস্টুন উড়ানো, শোক প্রস্তাব জ্ঞাপন, শপথ পাঠ, পিটি ও রণসংগীত শেষে সকাল ১০ টায় শহরে বর্ণাঢ্য র‌্যালি বের হয়।
র‌্যালি শেষে কেকে কেটে অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এমএ মান্নান এমপি বিদ্যালয় প্রাঙ্গণের ২ দিনের অনুষ্ঠান উদ্বোধন করেন। এরপর বিদ্যালয়ের হীরক জয়ন্তীর প্রকাশনা ‘চন্দ্রালোকের বালিকারা’-এর মোড়ক উন্মোচন করেন অতিথিরা। পরে শুরু হয় আলোচনা অনুষ্ঠান।
আলোচনা অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন সুনামগঞ্জ-মৌলভীবাজারের সংরক্ষিত নারী আসনের সংসদ সদস্য অ্যাড. শামছুন নাহার বেগম শাহানা।
প্রধান অতিথির বক্তব্যে অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এমএ মান্নান এমপি সতীশ চন্দ্রের চন্দ্রালোকের বালিকাদের শুভেচ্ছা জানিয়ে বলেন, ‘সতীশিয়ানদের এই উৎসব যখন হচ্ছে, বাংলাদেশ তখন জাতির জনকের কন্যার নেতৃত্বে মানবজাতির মূল অভিযাত্রায় যোগদান করার সুযোগ পেয়েছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনা রয়েছে, সকল উন্নয়ন কৌশলের প্রধান কেন্দ্রে থাকবে শিক্ষা।’
তিনি বলেন, ‘১ হাজার বছরের পরাধীনতার গ্লানি থেকে ১৯৭১ সালে বাঙালি স্বাধীন হয়েছে। স্বাধীনতার পরও প্রায় ২০ বছর সাম্প্রদায়িকতার বিষবাস্প আমাদের অনেক পিছিয়ে দিয়েছে। আমরা এই ক্ষতি পুষিয়ে এগিয়ে যেতে চাই’। তিনি বিদ্যালয়ের দাতা সতীশ চন্দ্রের মা রাজেশ্বরী দেবীকে স্মরণ করে বলেন,‘এরকম একটি প্রতিষ্ঠান করে তিনি অমর হয়ে রয়েছেন’।
sunamgonj-pic-23-12-16-sc-balika-3বিদ্যালয়ের প্রাক্তন ছাত্রী তানিম চৌধুরীর সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন, সুপ্রিম কোর্টের হাইকোর্ট বিভাগের বিচারপতি মিফতাহ্ উদ্দিন চৌধুরী রুমী, বাংলাদেশ পাবলিক সার্ভিস কমিশনের চেয়ারম্যান ড. মোহাম্মদ সাদিক, সংসদ সদস্য পীর ফজলুর রহমান মিছবাহ্, জেলা প্রশাসক শেখ রফিকুল ইসলাম, পুলিশ সুপার হারুন অর রশিদ, বিজিবির অধিনায়ক লে. কর্নেল নাছির উদ্দিন, উদযাপন কমিটির সদস্য সচিব সঞ্চিতা চৌধুরী।
বিকাল ৩ টা থেকে রাত ১০ টা পর্যন্ত পরিবেশিত হয় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। আজ শনিবার দ্বিতীয় দিনের অনুষ্ঠান শুরু হবে।

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭, ০১৭১৭ ৬৮ ১২ ১৪ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: