সর্বশেষ আপডেট : ১ মিনিট ৪৭ সেকেন্ড আগে
বৃহস্পতিবার, ১৭ অগাস্ট, ২০১৭, খ্রীষ্টাব্দ | ২ ভাদ্র ১৪২৪ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

তালাকের বিপক্ষে তিন নারীর অন্যরকম যুদ্ধ

164157_1আন্তর্জাতিক ডেস্ক: ‘তিন তালাক চাই না’- এ স্লোগানকে সামনে রেখে আন্দোলন চালিয়ে যাচ্ছেন ভারতের তিন নারী। তারা হলেন, আফরিন রহমান, জাকিয়া সোমান ও নুরজাহান সাফিয়া নিয়াজ। তাদের নাম ও মানুষ ভিন্ন হলেও দাবি অভিন্ন।

‘ভারতীয় মুসলিম মহিলা আন্দোলন’ নামের এ সংগঠনটি শত বাধা বিপত্তিকে স্পর্শ না করে মুসলিম পার্সোনাল ‘ল’ বোর্ডের হুকুমকে অমান্য করে আন্দোলন চালিয়ে যাচ্ছেন।

আন্দোলন কর্মী জাকিয়া বলেন, ‘আদালতে যাওয়া ও আইনের খসড়া তৈরির আগে বারবার কোরান-শরিফ পড়ে দেখেছি, ধর্মীয় আবেগে আঘাত করছি না তো? খোদার উপরে খোদকারি করার অধিকার তো কারো নেই! কেন শুনব মুসলিম পার্সোনাল ‘ল’ বোর্ডের হুকুম?’
‘তিন তালাক প্রথা তুলে দেয়া মানে তো অভিন্ন দেওয়ানি বিধির পক্ষেই প্রশ্ন করা, তাই না?’ সাংবাদিকের করা এমন প্রশ্নের জবাবে আন্দোলনরত নারীর অপর সদস্য নুরজাহান বলেন, ‘তিন তালাকের সঙ্গে অভিন্ন দেওয়ানি বিধিকে গুলিয়ে দেয়া একটা অপচেষ্টা। অভিন্ন দেওয়ানি বিধির জন্য নির্দিষ্টভাবে সব সম্প্রদায়ের মত নেয়া হোক। আমরা শুধু বলছি সব সম্প্রদায়ের যখন নিজস্ব বিধিবদ্ধ পারিবারিক আইন আছে, মুসলিমদের থাকবে না কেন?’

সম্প্রতি ভারতের এলাহবাদের হাইকোর্ট ‘তিন তালাক অসাংবিধানিক’ ঘোষণার পর মুসলিম পার্সোনাল ‘ল’ বোডের্র নেতারা বলছেন, এটিকে ভুলভাবে ব্যাখ্যা করা হচ্ছে। তারা এটিকে ভারতের মুসলিমদের বিরুদ্ধে এক ধরনের বৈষম্যমূলক পদক্ষেপ হিসেবে দেখছেন। তারা এলাহাবাদ শহরেই সমাবেশ করে ‘ল’ বোর্ড বলেছে, তিন তালাকের অধিকার রাখতেই হবে। তারা একটি নতুন মহিলা শাখা খুলেন। এরই প্রেক্ষিতে গণমাধ্যমের এক সাক্ষাৎকারে তিন নারী এসব কথা বলেন।

তিন কন্যা ‘ভারতীয় মুসলিম মহিলা আন্দোলন’ নামে এ সংগঠনটি প্রতিষ্ঠা করেন চার বছর আগে। প্রথম তারা বিপিএল তালিকায় নাম তোলা বা নাগরিকত্বের অধিকারের সুবিধা পেতে তারা কাজ করছিলেন। সাধারণ মুসলিম মহিলারা তাদের বললেন এ সব কাজ পরে করেন। আগে তিন তালাক সমস্যার সমাধানে কিছু একটা করুন! সেই আর্জি থেকেই লড়াই শুরু করেন তারা। যে লড়াই এখন সুপ্রিম কোর্টের দরজা পেরিয়ে সারাবিশ্বে মুসলিম সমাজ ও সংখ্যালঘু রাজনীতিতে তোলপাড় শুরু করেছে।

এ যুদ্ধ থেকে সরে দাঁড়ানোর জন্য চাপ দিয়ে নানা সময়ে হুমকি-ধামকি দিয়ে ফোন এসেছে। আর সেই সঙ্গে তিন এই কন্যার নামে ফতোয়াও জারি হয়েছে, কিন্তু কোনো হুমকি-ধামকিতে তারা ভয় পান না। তারা অনড়! রীতিমতো খসড়া তৈরি করে ফেলেছেন বিধিবদ্ধ মুসলিম পারিবারিক আইনের। তিন নারী চাইছেন, এ নিয়ে সর্বোচ্চ আদালতে যেমন লড়াই চলছে, চলুক। তার বাইরে দেশের সংসদও ওই আইনের খসড়া নিয়ে বির্তক করতে চাইলে করুক। তবু মুসলিম মহিলাদের সমানাধিকার সুরক্ষিত হোক।

এই লড়াইয়ের কথা সবাইকে বোঝাতে গোটা দেশ চষে ফেলছেন তারা। তিন তালাকের ভুক্তভোগী শায়রা বানু ২০১২ সালে সুপ্রিম কোর্টে মামলা দায়ের করার পরে তিনজনই তাতে যোগ দিয়েছেন। এ মামলাতেই কেন্দ্রকে সর্বোচ্চ আদালতের কাছে হলফনামা দিতে হয়েছে।

বিজেপি-প্রভাবিত একটি সংগঠনের আহ্বানে কলকাতায় এক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছিল। রাজনৈতিক তাগিদে নুরজাহানদের আন্দোলনের প্রতি সমর্থন জানিয়েছে দলের সর্বভারতীয় মুখপাত্র রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষের মতো বিজেপি নেতারাও। কিন্তু তিন নারী শুধু বলছেন, ‘কাজের কাজটা সংসদ করে দেখাক! তা হলেই হবে।’

আনন্দবাজার অবলম্বনে

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭, ০১৭১৭ ৬৮ ১২ ১৪ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: